বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কুলাউড়ায় স্ত্রীকে হত্যা করে ওসমানী হাসপাতালে স্বামীর আত্মহত্যা



এম. মছব্বির আলী :

স্ত্রীকে গলাকেটে হত্যা করে বস্তার ভেতর লাশ লুকিয়ে রাখার পর নিজের গলা ছুরি চালিয়ে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করেন কুলাউড়া উপজেলার গাজীরপুর গ্রামের আনসার আলী (৩৫)। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে ভর্তি করা হয়েছিল সিলেট এমএজি ওসমানী হাসপাতালে। পরে তিনি ৬ এপ্রিল সোমবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে হাসপাতালের ৪ তলা থেকে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করেন।
আনসার আলীর আত্মহত্যার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিলেট নগরীর লামাবাজার পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই রবিউল ইসলাম মাসুম। তিনি জানান, আমরা শুনেছি আনসার তার স্ত্রীকে জবাই করে হত্যা করেছে।
বিকেলে সে হাসপাতালের ৪র্থ তলা থেকে লাফ দিয়ে নিজেও আত্মহত্যা করেছে। ধারণা করা হচ্ছে সে মানষিকভাবে বিপর্যস্ত ছিল। তার লাশ উদ্ধার করে ওসমানী হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।
পুলিশ সূত্রে জানা যায়, আনসার আলী তার স্ত্রী ২ সন্তানের জননী আজিরুন বেগমকে হত্যা করে লাশ বস্তাবন্দি করে রাখেন। ঘটনার পর নিজেই গলায় ছুরি চালিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালান। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে ভর্তি করা হয় সিলেট এমএজি ওসমানী হাসপাতালে। সোমবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে হাসপাতালের ৪ তলা থেকে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করেন আনসার।
১ এপ্রিল কুলাউড়া উপজেলার গাজীপুর গ্রামের উসমান আলীর ছেলে আনসার আলী স্ত্রী আজিরুন বেগমকে গলা কেটে খুন করে ঘরের ভেতর বস্তাবন্দি করে লুকিয়ে রাখেন। পরে স্ত্রীকে খোঁজে পাওয়া যাচ্ছে না দাবি করে থানায় গিয়ে জিডি করেন তিনি। পুলিশ তদন্তে নেমে আনসারের ঘর থেকে রোববার তার স্ত্রীর গলিত লাশ উদ্ধার করে। এরপর পুলিশের হাতে ধরা পড়ার ভয়ে আনসার আলী নিজেই গরায় ছুরি চালিয়ে প্রথম দফা আত্মহত্যার চেষ্টা চালান। ২ এপ্রিল তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালের ৪র্থ তলার ৭ নং ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন ছিলেন। বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে ওসমানী হাসপাতালের ৪ তলার ছাদ থেকে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি। সংবাদ পেয়ে পুলিশ হাসপাতালের নীচ থেকে তার লাশ উদ্ধার করে।
এদিকে আজিরুন বেগমের ক্ষতবিক্ষত লাশ উদ্বারের ঘটনায় স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল জলিলসহ ১৩ জনের বিরুদ্ধে কুলাউড়া থানায় হত্যা মামলা রুজু হয়েছে। নিহতের বড় ভাই আব্দুল হক বাদী হয়ে এ হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ০৭। মামলার প্রধান আসামী নিহতের স্বামী আনছার মিয়া। মামলার অন্যান্য আসামীরা হলেন নিহতের শ্বশুর উসমান আলী (৬৫) শাশুড়ী হাছনা বেগম (৪০) ও উসমান মিয়ার ২য় স্ত্রী ও ননদ রিমা বেগম (১৭) সহ আরও ৯ জন। পুলিশ ইতিমধ্যে মামলার এজাহারভুক্ত ৩ আসামী শ্বশুর ওসমান মিয়া, শাশুড়ী হাছনা বেগম ও ননদ রিমাকে আটক করে মৌলভীবাজার কোর্টে সোপর্দ করেছে।