শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কমলগঞ্জে কাল বৈশাখী ঝড়ে শতাধিক বাড়িঘর বিধ্বস্ত : বিদ্যুৎ লাইনে বিপর্যয়



11119864_1423878611246986_3601288229875556694_n11102682_1423878624580318_2025455474523662970_n

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া কাল বৈশাখীর আঘাতে ৪টি ইউনিয়নে শতাধিক ঘরবাড়ি বিধবস্ত ও ২ শতাধিক কাঁচাঘর বাড়ি আংশিক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। উপড়ে পড়েছে অসংখ্য গাছপালা। গাছের ডাল পড়ে এক ব্যবসায়ী আহত হয়েছেন। লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের পাহাড়ি এলাকা ও গ্রামাঞ্চলে ১৬টি বৈদ্যুতিক খুঁটি ভেঙ্গে ও তার ছিড়ে আঞ্চলিক বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন লন্ডভন্ড হয়ে পড়ে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরির্দশন। উপজেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। শনিবার রাত সাড়ে ৮টায় এই কালবৈশাখী ঝড় বয়ে যায়।
উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সুলেমান মিয়া জানান, কালবৈশাখী ঝড়ে ইসলামপুর ইউনিয়নের কানাইদাসী গ্রামে ৫০টি কাঁচা ঘর সম্পূর্ণ ভাবে বিধবস্ত হয়েছে। এছাড়া উত্তর কানাইদাসী, গোলের হাওড়, চাম্পারায়, কুরমা চাবাগানসহ বিভিন্ন গ্রামে প্রায় ১০০ ঘরবাড়ির টিনের চাল উড়িয়ে নিয়ে গেছে। প্রায় শতাধিক গাছপালা উপড়ে পড়েছে। ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম মিঞা পরিদর্শন করেছেন।
মাধবপুর ইউপি চেয়ারম্যান পুস্প কুমার কানু জানান, পাত্রখোলা বাজার, ধলাই চা বাগান, পদ্মছড়া চা বাগান, ধলাইপাড়, শিববাজার এলাকায় প্রায় ২০ টি কাঁচাঘর বিধবস্ত এবং আংশিক প্রায় ৫০টি ঘর ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। প্রচুর গাছপালা ভেঙ্গে পড়েছে। এছাড়া আদমপুর ইউনিয়ন অফিসসহ প্রায় ৩০টি ঘর ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ভানুবিল গ্রামে ৩টি, ছনগাঁও গ্রামে ১টিসহ ২০টি ঘর বিধবস্ত হয়েছে বলে প্যানেল চেয়ারম্যান কে মনিন্দ্র কুমার জানান। এছাড়া কালবৈশাখী কবলে পতনউষার ইউনিয়নে আংশিক বিধবস্ত ৬০টি,আলীনগরে ৮টি, শমশেরনগর বাঘিছড়া চা বাগানসহ ২৫টি কাচাঁঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। প্রচন্ড ঝড়ে কমলগঞ্জ উপজেলার বিদ্যুৎ লাইন লন্ডভন্ড হয়ে পড়েছে। গাছপালা পড়ে গ্রামাঞ্চলে বিদ্যুত লাইনের তার ছিড়ে বিদ্যুত সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।
মৌলভীবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি(পবিস) কমলগঞ্জ জোনাল কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, কালবৈশাখী ঝড়ে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের পাহাড়ি এলাকার বেশ কয়েকটি স্থানে ৩৩ কেভি প্রধান বিদ্যুৎ লাইনের ১৬টি খুটি ভেঙ্গে ও তার ছিড়ে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে বিদ্যুৎ সরবরাহ। কিছু কিছু বৈদ্যুতিক খুঁটির ও যন্ত্রাংশের ক্ষতি সাধন হয়। ৩৩ কেভি প্রধান বিদ্যুৎ লাইনছাড়াও আঞ্চরিক সঞ্চালিত বিদ্যুৎ লাইনের (ফিডারের) উপর গাছ ভেঙ্গে পড়ে তার ছিড়ে গেছে। ফলে রাত আটটার পর থেকে রবিবার বেলা ২টা পর্যন্ত কমলগঞ্জ উপজেলা বিদ্যুৎ বিহীন হয়ে পড়ে।
কমলগঞ্জ জোনাল অফিসের ডিজিএম এম হাসনাত হাসান কাল বৈশাখী ঝড়ে বিদ্যুৎ লাইনের ব্যাপক ক্ষতির সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, রবিবার ভোর থেকে বিদ্যুৎকর্মীরা ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা ঘুর প্রকৃত ক্ষতির পরিমাণ নিরুপণ করে মেরামত কাজ করে পর্যায়ক্রমে বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করা হচ্ছে।
কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম মিঞা কালবৈশাখী ঝড়ে ক্ষতির সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ইসলামপুর ইউনিয়নে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেছেন। ক্ষয়ক্ষতির প্রকৃত তালিকা সংগ্রহ করে পরবর্তীতে সাহায্য করা হবে।