বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

১ম মৃত্যুবার্ষিকীতে স্মরণ : একজন শিক্ষক মোবারক হোসেন ও তাঁর কর্মময়জীবন



1eda536ca98610404fc70b43b683d76d14
কমলকুঁড়ি প্রতিবেদক ॥
মানুষ গড়ার কারিগর একজন জনপ্রিয় শিক্ষক মোবারক হোসেন। শিক্ষাই জাতির মেরুদন্ড। আর এই জাতির কল্যাণে যারা মেরুদন্ড গড়ার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি অবদান রাখেন তারাই শিক্ষক। ১৪ মার্চ মোবারক হোসেন এর ১ম মৃত্যুবার্ষিকী। তাঁর কর্মময় জীবন আলোচনা করা হলে দেখা যাবে এক বিরল দৃষ্টান্ত রেখে গেছেন শিক্ষকতায়। উজ্জ্বল লম্বা এ সাদা মাটা মানুষটি অকালে চলে যাওয়া কমলগঞ্জে শিক্ষার যে শুন্যতা সৃষ্টি হয়েছে তা পূরণ হতে সময়ের ব্যাপার। তাঁর ১ম মৃত্যুবার্ষিকীতে স্মরণ করেত গিয়ে মনে পড়ে যায় কবির কথায়, যেতে নাহি দিবো হায় তবু যেতে দিতে হয়, তবু চলে যায়।
মানুষ মরণশীল এটা বাস্তব। কিন্তু কিছু কিছু মৃত্যু সত্যি বেদনাদায়ক। মানুষ মরে যায় কিন্তু তাঁর স্মৃতি অম্লান অক্ষয় থাকে। এই স্মৃতিকে ধরে রাখার আমার আপনার সকলের। জনপ্রিয় শিক্ষক মোবারক হোসেন কমলগঞ্জের শিক্ষাকে বিস্তৃতি করতে আনপ্রাণ চেষ্ট চালিয়ে গেছেন এবং সফলতা লাভ করেছেন।
মোবারক হোসেন মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার নারায়নপুর গ্রামে ১ লা জুন ১৯৪৮ সালে এক স¤্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহন করেন। পরিবারের ভাই-বোনদের মাঝে তিনি ছিলেন প্রথম। সদা হাস্যেজ্জ্বল, নিরহংকারী এবং নীতিবান একজন সহজ সরল নিবেদিত প্রাণ। একাধারে গ্রাম্য সালিশ বিচারক, শিক্ষানুরাগী,ক্রীড়া সংগঠক এবং গরীব দুঃখী মেহনতি মানুষের বন্ধু। যার মূল পেশা ছিল শিক্ষকতা। তিনি তার নিজ গ্রামের প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে শিক্ষা জীবন শুরু করেন। তারপর ১৯৬৪ সালে কমলগঞ্জ বহু মূখী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে কৃতিত্বের সাথে এস এস সি পাশ করেন এবং এম,সি কলেজ থেকে উচ্চ শিক্ষা সম্পন্ন করেন। তিনি বি,এস,সি,বি,এড পাশ করে শিক্ষা জীবনের ইতি টানেন। কমলগঞ্জের সকলের প্রিয় বিএসসি স্যার হিসেবে পরিচিতি ছিলেন। ১৯৬৯ সালে কমলগঞ্জের বহুমূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। ১৯৮৯ এবং ১৯৯৫ সলে যথাক্রমে সহকারী প্রধান শিক্ষক এবং প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব ভার গ্রহন করেন । তিনি নিজের যোগ্যতার মাধ্যমে অত্যন্ত দক্ষতার সাথে বিদ্যালয় পরিচালনা করেন। তার সময়ে বিদ্যালয়টি মডেল বিদ্যালয় হিসেব রুপান্তরিত হয়। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক থাকাকালীন  সময়ে অনেক মানুষের বিভিন্ন ভাবে উপকার করে গেছেন। ২০০৪ সালে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের অধীনে জেলার শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক নির্বাচিত হন। কমলগঞ্জ বহুমূখী মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হিসেবে দীর্ঘ দিন দায়িত্ব পালন করে ২০১০ সালে অবসর গ্রহন করেন। তার নিজের গড়া শত শত ছাত্র-ছাত্রী দেশ-বিদেশের বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ন পদে কমরত আছে। তিনি শিক্ষকতার পাশা-পাশি কমলগঞ্জ উপজেলার শিক্ষক সমিতির সভাপতি, গন মহাবিদ্যালয়ের সহ সভাপতি, কমলগঞ্জ উপজেলার স্কাউট কমিশনার, নারায়নপুর  জামে মসজিদের মুতাওয়াল্লী, ওয়াজ পরিচালনার কমিটির সভাপতি, ছলিমবাজার নজরানা ট্রাস্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন । এছাড়া তিনি আরও বিভিন্ন ধরনের গুরুত্বপূর্ন কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত ছিলেন।
২০১৪ সালের ১৪ মার্চ শুক্রবার সকাল সাড়ে আট ঘটিকার সময় সবাইকে কাঁিদয়ে না ফেরার দেশে পাড়ি জমান । তার মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে আসে পুরো এলাকায় । তাঁর সন্তানদ্বয় নিজ নিজ কর্মক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত। তাই কবির ভাষায় বলি-“এমন জীবন তুমি কর হে গঠন মরিলে হাঁিসবে তুমি কাঁিদবে ভূবন।

মোবারক হোসেন এর ১ম মৃত্যুবার্ষিকীতে ১৩ই মার্চ শুক্রবার নিজ গ্রাম নারায়ণপুর জামে মসজিদ ও কমলগঞ্জ পৌরসভার পানিশালা জামে মসজিদে বাদ জুম্মা এক দায়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। ১৪ই মার্চ শনিবার উপেজলা চৌমুহনী সংলগ্ন বাসভবনে পারিবারিকভাবে কোরআনখানি ও দোয়ার আয়োজন করা হয়েছে। পরিবারের পক্ষ থেকে সকলের কাছে দোয়া কামনা করা হয়েছে।