বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

লাউয়াছড়ায় ট্রান্সমিটারযুক্ত “ইভা” অজগর সাপ অবমুক্ত



Pic---Agogor_Snake3[1] copy
কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ॥
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের জানকীছড়ায় একমাস দুইদিন পরিচর্য্যার পর ট্রান্সমিটারযুক্ত “ইভা” অজগর সাপ অবমুক্ত করা হলো। ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উপলক্ষে শনিবার সকাল সাড়ে ১১টায় জানকীছড়া বনের জলাশয়ের পানিতে ৭ ফুট ২ ইঞ্চি লম্বা “ইভা” নামক অজগর সাপটির শরীরে ট্রান্সমিটার লাগিয়ে অবমুক্ত করেন কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম মিঞা। এ সময় লাউয়াছড়া বনবিট কর্মকর্তা মো. মনিরুল ইসলাম সহ মৌলভীবাজার, কমলগঞ্জ ও শ্রীমঙ্গলের বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার লোকজন উপস্থিত ছিলেন।
বনভিাগ সূত্রে জানা যায়, গত ৫ ফেব্র“য়ারি কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর ইউনিয়নের ঝাপের গাঁও গ্রামের লক্ষন সিংহের বাড়ি সংলগ্ন ছনখোলা (জঙ্গল) থেকে ৭ ফুট ২ ইঞ্চি লম্বা অজগর সাপ উদ্ধার করেছিল গ্রামবাসী। পরে লাউয়াছড়া ওর্য়াল্ড লাইফ এর বন কর্মকর্তাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। লাউয়াছড়া বনবিট কর্মকর্তা মো. মনিরুল ইসলামের নের্তৃত্বে বনবিভাগের লোকজন অজগর সাপটি উদ্ধার করে নিজেদের হেফাজতে নিয়ে যায়। অজগরটির নাম রাখা হয় “ইভা”। তার ওজন আনুমানিক ৬ কেজি, লম্বায় ৭ ফুট ২ ইঞ্চি। ইভার বয়স প্রায় ৪ বছর হবে। গত ২৭ ফেব্রƒয়ারি “ইভা” এর শরীরে অস্ত্রপচার করে ছোট্ট রেডিও ট্রান্সমিটার স্থাপন করা হয়। আগামী দুই বৎসর এটাকে মনিটরিং করা হবে। এখন সুস্থ অবস্থায় তাকে শনিবার অবমুক্ত করা হয়। বন মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় এবং অজগর গবেষণা প্রকল্পের উদ্যোগে অজগরের উপর গবেষণা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।
লাউয়াছড়া বনবিট কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, অজগর সাপটি খাদ্যের সন্ধানে লোকালয়ে চলে এসেছিল। অজগর সাপটি উদ্ধারের পর গত ৫ ফেব্র“য়ারি বৃহস্পতিবার দুপুর ১২ টায় কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলামের মাধ্যমে বন বিভাগ অজগর সাপটি নিয়ে যায়। একমাস দুইদিন পর্যবেক্ষন করে শনিবার সকাল সাড়ে ১১টায় লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের জানকীছড়ায় এটাকে অবমুক্ত করা হয়।
অজগর গবেষণা প্রকল্প সূত্র জানা যায়, ২০১৩ সালের ১৮ জুলাই ‘আশা’ নামক অজগরের শরীরে প্রথম রেডিও ট্রান্সমিটার স্থাপনের মাধ্যমে দেশে বন্যপ্রাণী গবেষণার একটি ঐতিহাসিক শুভ সূচনা ঘটে। আশার দৈর্ঘ্য প্রায় ৮ ফুট এবং ওজন সাড়ে ৮ কেজি। ‘আশা’র এ সফলতার ওই বছরের ১১ অক্টোবর ‘বনি’ এবং ‘চৈতি’র দেহে অস্ত্রোপচার করে রেডিও ট্রান্সমিটার বসানো হয়। তিনদিন পর্যবেক্ষণ শেষে তাদের দু’জনকে ১৪ অক্টোবর ছেড়ে দেওয়া হয় লাউয়াছড়ার অরণ্যে। বনির দৈর্ঘ্য সোয়া ৯ ফুট ও ওজন সাড়ে ১০ কেজি আর চৈতির দৈর্ঘ্য সাড়ে ১১ ফুট এবং ওজন প্রায় ১৩ কেজি। এরপর ২০১৪ সালের ৪ আগস্ট লাউয়াছড়ায় অবমুক্ত করা হয় ৭ ফুট দৈর্ঘ্য এবং ৪ কেজি ওজনের ‘ডিন’কে।
অজগর গবেষণা প্রকল্পের প্রধান গবেষক ও প্রখ্যাত সরীসৃপ বিশেষজ্ঞ শাহরিয়ার সিজার রহমান বলেন, আমরা আশা, বনি, চৈতি, ডিন ও ইভাসহ মোট ৫টি বার্মিজ অজগরের শরীরে রেডিও ট্রান্সমিটার স্থাপন করে অজগর প্রজাতির রক্ষায় গবেষণার কাজ করে যাচ্ছি। বিলুপ্তপ্রায় সরীসৃপ প্রাণী অজগরকে প্রকৃতির মাঝে বাঁচিয়ে রাখতে এবং তার সম্পর্কে নানান পরীক্ষা-নিরীক্ষাসহ বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করাই মূলত এ গবেষণা অন্যতম উদ্দেশ্য। তিনি আরও বলেন, ক্যারিনাম সংস্থার উদ্যোগে এ অজগর গবেষণা প্রকল্পটি আমরা বাস্তবায়ন করছি। ১৯৭০ সাল থেকে এ রেডিও ট্রেকিং প্রযুক্তি ব্যবহার করে পৃথিবীর অন্যান্য দেশ প্রতি বছর হাজার হাজার সাপের উপর গবেষণা করে চলছে। তিনি বলেন, আধঘণ্টার একটি ছোট্ট অস্ত্রপচারের মাধ্যমে অজগরের চামড়া নিচে ট্রান্সমিটারটি বসিয়ে দেওয়া হয়। দু-তিন দিন পর্যবেক্ষণের পর অবমুক্ত করা হয়। অজগরের মোট ওজনের তুলনায় ট্রান্সমিটারের ওজন শূন্য দশমিক ৩ শতাংশ। ট্রান্সমিটারের ওজন ২০ গ্রাম। দৈর্ঘ্য প্রায় ১ দশমিক ৩। অনেকটা পেন্সিল ব্যাটারির মত। ৫শ’ মিটার থেকে দেড় কিলোমিটার পর্যন্ত এ ট্রান্সমিটারের কার্যক্ষমতা। আমাদের হাতে থাকা রেডিওতে ‘বিপ’ ‘বিপ’ ‘বিপ’ এ সংকেতধ্বনি জানান দিবে তার উপস্থিতি। অর্থাৎ কোথায় কোথায় সে বিচরণ করছে।
আশা, বনি, চৈতি এবং ডিনের পর অবশেষে এবার ইভা মুক্তির স্বাদ পেল। ‘আশা’ ছিল তাদের পথপ্রদর্শক। পরে বনি। এরপর গেল চৈতি। তারপর ডিন। সবশেষে ইভা। পাঁচ-পাঁচটি ট্রান্সমিটারযুক্ত অজগর ছেড়ে দেওয়া হলো লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে। উদ্দেশ্য উন্মুক্তভাবে বিচরণ করা এসব অজগরের কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে বিলুপ্তপ্রায়-প্রাণী অজগর সংরক্ষণ। লাউয়াছড়ায় প্রবেশের মুখেই পড়ে জানকিছড়া বিট।