শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ন্যাশনাল ইনোভেটিভ আইডিয়ার পুরুস্কার জিতেছেন কমলগঞ্জের শিপু



10

কমলকুঁড়ি ডেস্ক রিপোর্ট :

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আওতাধীন এ টু আই প্রকল্পের ন্যাশনাল ইনোভেশন ক্যাম্পের সেরা ইনোভেটিভ আইডিয়ার পুরুস্কার জিতেছেন নর্থ ইস্ট মেডিকেল কলেজের ৫ম বর্ষের ছাত্র কামরুল ইসলাম শিপু।  সাধারণ মানুষের কাছে কিভাবে তথ্যের মাধ্যমে সাস্থ্যসেবা পৌঁছে দেয়া যায় সে বিষয়ক ইনোভেটিভ আইডিয়া উপস্থাপন করে তিনি বিভাগীয় পর্যায়ে এ পুরস্কার জিতেন। তার দেয়া এই আইডিয়া জাতীয় পর্যায়ে বাস্তবায়ন করা হলে সেটা দেশের চিকিৎসা ব্যবস্থার ব্যপক পরিবর্তন সাধিত করবে বলেও ধারণা করা হচ্ছে। তাছাড়া এই প্রজেক্টের মাধ্যমে চিকিৎসা খাতেও ব্যয় কমার সম্ভাবনা থাকবে।

নিজের অসামান্য অবদানে এই পুরুস্কার জেতার পর কামরুল ইসলাম শিপু জানান, ন্যাশনাল স্টুডেন্ড ইনোভেশন ক্যাম্পে আমার আইডিয়াটা সিলেট বিভাগে প্রথম হয়েছে। সিলেটের সবগুলো ভার্সিটি লেভেলের প্রায় ২৬টি ও ৩ সদস্যের টিম এতে অংশগ্রহণ করে। আমাদের নর্থ ইস্ট মেডিকেল কলেজের টিমের নাম ছিলো মেডিকো-১৫। স্বপন ও মাসুদ ছিলো আমার সাথে। আমাকে কাজ করতে হয়েছে এমন একটা আইডিয়ার উপর যেটা হবে ইউনিক, যা সাধারণ মানুষের কাছে বোধগম্য হয়, এবং আমার এই আইডিয়ার কারণে যাতে খরচ ও যাতায়াত কমে যায়। যার ফলে মানুষ এটি দ্বারা উপকৃত হবে। আমি বেশ কয়েকমাস ধরে পাবলিক হেলথের এই আইডিয়াটা  নিয়ে কাজ করছিলাম। আইডিয়াটা ছিলো-”Developing a public health information system and integrating it with national web portal with the help of medical students all over the country”।
এই আইডিয়ার মূল বিষয়বস্তু ছিলো আমরা মেডিকেল স্টুডেন্টরা প্রিভেন্টিভ মেডিসিন সম্পর্কে যে তথ্য বই থেকে শিখি সেগুলোকে একটা ওয়েব পোর্টালের মাধ্যমে অতি সহজ ভাষায় দেশের মানুষের কাছে পৌঁছে দেয়া। যাতে করে রোগ হওয়ার আগেই বা রোগের প্রাথমিক পর্যায়ে মানুষ সেটা প্রতিরোধ করতে পারে। দেশের কমন রোগের মধ্যে বেশিরভাগই প্রতিরোধযোগ্য। আমাদের যেটা করতে হবে সহজ ভাষায় মানুষকে বুঝিয়ে বলতে হবে কিভাবে তারা সেটা করবে। এর মাধ্যমে চিকিৎসা খাতে জনগণের ব্যয় কোটি কোটি টাকা কমে আসবে। রুট লেভেলে যাতে ইনফরমেশন পৌঁছাতে পারে সেজন্য আমরা সরকারের সাহায্য নিবো। তাদের আই টি টিম আমাদের সাহায্য করবে।
প্রাথমিক পর্যায়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এ টু আই প্রকল্পের পরিচালকবৃন্দ, সিলেট জেলা প্রশাসক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ও প্রকল্পের বেশ কয়েকজনসহ পরিচালকের সমন্বিত জুড়ি বোর্ডের সামনে আমার এই প্রজেক্টটা প্রেজেন্টেশন করি। পরে তারা আমাকে ফোনে জানান যে প্রেজেন্টেশনটা তাদের পছন্দ হয়েছে।
এছাড়াও আমি স্টেডিয়াম জিমনেশিয়ামে ড. জাফর ইকবাল স্যার, ড. ইয়াসমিন ম্যাম, প্রকল্প মহাপরিচালক, জেলা প্রশাসক ও হাজারখানেক দর্শকের সামনে আবারও এটি প্রেজেন্ট করি। যার ফলে এই আইডিয়াটা দেখে সবাই খুব খুশি হয়েছেন।
তাছাড়া এটি “জাতীয় পর্যায়ে বাস্তবায়নের সুযোগ আছে বলেও জানিয়েছেন মহাপরিচালক”। এই প্রজেক্টটা বাস্তবায়ন হলে সবচেয়ে উপকার হবে সাধারণ মানুষের এবং সাথে সাথে দেশের সাস্থ্যসেবার খরচও অনেক কমে যাবে।
এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনপ্রিয় লেখক শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. জাফর ইকবাল। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন  প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহা-পরিচালক (প্রশাসন) কবির বিন আনোয়ার। শাবিপ্রবির অধ্যাপক ড. ইয়াসমিন হক। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সিলেট জেলা প্রশাসক মো. শহিদুল ইসলাম।
কামরুল ইসলাম শিপু মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার পতন উষার ইউনিয়ন এর গোপিনগর গ্রামের বিশিষ্ট সমাজসেবক, শিক্ষানুরাগী, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক আলহাজ্ব আব্দূন নূর মাস্টার ও নূরজাহান চৌধুরীর কনিষ্ঠ ছেলে। শিডুর সকলেল নিকট দোয়া ও আর্শিবাদ কামনা করছেন।