মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলগুলো নাশকতার বিরুদ্ধে ভূমিকা রাখবে- তথ্যমন্ত্রীর সাথে চ্যানেল মালিকদের বৈঠক



10

কমলকুঁড়ি ডেস্ক নিউজ ।।
সহিংসতা ও নাশকতা উস্কে দেওয়া খবর পরিবেশন না করা ও দেশের ‘স্বাভাবিক অবস্থা’ তুলে ধরতে সরকারের সঙ্গে একমত হয়েছে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল মালিকরা। একই সঙ্গে সঠিক তথ্য তুলে ধরে নাশকতা বন্ধে চ্যানেলগুলো সরকারের পাশে থাকবে।

সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ে এক বৈঠক শেষে গতকাল বৃহস্পতিবার বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের মালিক ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এবং শিল্প ও বাণিজ্যমন্ত্রী সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। সারাদেশে বিএনপির অবরোধ কর্মসূচির মধ্যে বুধবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বিশেষ সভার একদিন পরই টেলিভিশন মালিকদের সঙ্গে এ বৈঠকে বসলো সরকার। তবে তথ্যমন্ত্রী জানান, টেলিভিশন মালিকদের সঙ্গে নিয়মিত মতবিনিময়ের অংশ হিসেবে এ বৈঠক হচ্ছে।
সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টায় অনুষ্ঠিত বৈঠকে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু ছাড়াও শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, পানিসম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, সংসদ সদস্য ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) কার্যকরী সভাপতি মাঈনুদ্দিন খান বাদল উপস্থিত ছিলেন। বৈঠক শেষে শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু সাংবাদিকদের বলেন, দেশে এখন আন্দোলনের নামে নাশকতা ও সন্ত্রাস চলছে। নাশকতা ও সন্ত্রাস জাতি বা রাজনীতিকে গাইড (পথ নির্দেশ) করতে পারে না। আদর্শ স্থাপন করতে পারে না। দেশেকে একটি অন্য খাতে প্রবাহিত করতে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে এ কাজগুলো করা হচ্ছে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ঠেকানো, খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের বিচার যাতে না হয়, সরকার পরিবর্তন করা যায় কিনা।
তিনি বলেন, অনেক কিছু মানুষের অগোচরে ছিল। দেশের অবস্থা প্রকৃত অর্থে স্বাভাবিক, এ বিষয়ে মানুষ অবহিত নয়। প্রতিদিন ৫০ থেকে ৬০ হাজার গাড়ি ঢাকায় আসা-যাওয়া করছে, এ জিনিসগুলোর বিষয়ে মানুষ অবহিত নয়। দু’একটি বাস, ট্রাক পোড়ানোর বিষয় এমনভাবে তাদের দৃষ্টিগোচর করা হয়েছে যে তারা মনে করে সারাদেশেই একটা অস্বাভাবিক পরিস্থিতি বিরাজ করছে। সঠিক তথ্যটি যাতে উপস্থাপিত হয়।
‘মিডিয়াকে দেশের অবস্থাটা জানাতে চাই, অনেকেই ওয়াকিবহাল ছিলেন না। আমাদের কাছ থেকে শুনেছেন। আমরা প্রমাণ সহকারে তাদের কাছে উপস্থাপন করেছি। তাদের বোঝাতে সক্ষম হয়েছি (কনভিন্সড)। সঠিক তথ্য তুলে ধরার বিষয়ে আমরা সবাই একমত হয়েছি’ বলেন বর্ষীয়ান এ রাজনীতিবিদ।
সংবাদ প্রচারে কোন বিধিনিষেধের কথা বলা হয়েছি কিনা জানতে চাইলে আমু বলেন, না, সুনির্দিষ্টভাবে কোন নির্দেশনা নয়, কোনরকম কিছু নেই। আলোচনার ভিত্তিতে যেটুকু সেটুকুই। এ সময় বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘সত্যটা তুলে ধরা হবে। দেশে যে স্বাভাবিক অবস্থা বিরাজ করছে সেটাই মিডিয়ার মাধ্যমে তুলে ধরা হবে।’
বৈঠকে শেষে এ্যাসোসিয়েশন অব টেলিভিশন চ্যানেল ওনার্সের (এটকো) সহ-সভাপতি ও মাছরাঙ্গা টেলিভিশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক অঞ্জন চৌধুরী বলেন, বর্তমান প্রেক্ষাপটে ইলেকট্রনিক মিডিয়ার ভূমিকা নিয়ে আলোচনা করেছি আমরা। সত্য তুলে ধরার জন্য আমরা যে প্রচেষ্টা নিয়েছি, মন্ত্রীরা আমাদের সে বিষয়ে উৎসাহিত করেছেন। আমাদের সামনে প্রশ্ন এসেছিল- এটা আন্দোলন না নাশকতা। আমরা একমত হয়েছি আন্দোলন একরকম, আর নাশকতা আরেক রকম।
‘যেভাবে নাশকতা দেখতে পাচ্ছি, তাতে আমরা একমত এটা যাতে আমরা সেনসেশনালাইজ (অতিরঞ্জিত) না করি। এ বিষয়ে তাদের কিছু মন্তব্য ছিল, আমরাও একমত হয়েছি। আমরা নিজেরাও সেন্সর করি, যেটা আমাদের দেশের জন্য ক্ষতিকর অবশ্যই সেটা আমরা করব না। আমরা যদি এ বিষয়গুলো (নাশকতা ও সহিংসতা) উৎসাহিত করি তবে ভবিষ্যতের জন্য ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি করবে’ বলেন অঞ্জন। তিনি আরও বলেন, ‘কেবল অপারেটররা ভারতীয় চ্যানেলগুলোকে প্রাধান্য দিচ্ছে। এ বিষয়ে সরকারের করণীয় জানতে চেয়েছি আমরা। বৈঠকে উপস্থিত মন্ত্রীরা একমত হয়েছেন এ বিষয় ব্যবস্থা নেবেন তারা। শিগগিরই একটি আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা করে এ বিষয়ে আামাদের একটি ফলাফল জানাবেন।’
চ্যানেল একাত্তর এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোজাম্মেল বাবু বলেন, ‘আমরা একমত হয়েছি ইলেট্রনিক মিডিয়ার অপার শক্তি ব্যবহার করে নাশকতা দমনে সরকার ও রাষ্ট্রের পাশে থেকে আমরা আমাদের সর্বোচ্চ ভূমিকা পালন করবো। সন্ত্রাসীদের কোন দল নেই। এটা আন্দোলন নয়, এটা নাশকতা। নাশকতার বিরুদ্ধে দেশ-জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করতে আমরা কাজ করবো।’
বৈশাখী টিভির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল বলেন, ‘বৈঠকে সবাই একমত হয়েছি যে, আমরা সহিংসতা ও রাজনীতিকে যেন না মিলিয়ে ফেলি। সহিংসতা সহিংসতাই, রাজনীতি রাজনীতিই। সহিংসতা যদি রাজনীতি দখল করে ফেলে তবে রাজনীতি বিপজ্জনক জায়গায় পড়বে। আমরা বলেছি আমরা সুস্থ রাজনৈতিক ধারার পক্ষে, আমরা সহিংসতার বিরুদ্ধে। সন্ত্রাস ও রাজনীতি এক ধারায় চলতে পারে না।’
বৈঠকে কোন ডিকটেশন, কোন নির্দেশনা এমনকি কোন অনুরোধও করা হয়নি বলেও জানান মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল। পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে আমরা একমত হয়েছি, বর্তমান যে অবস্থা চলছে, বার্ন ইউনিটে যে চিৎকার, তা জাতির আর্তনাদ। এ আর্তনাদের পক্ষে আমরা, যারা এ আর্তনাদ সৃষ্টি করে তাদের বিরুদ্ধে। বৈঠকের সূচনা বক্তব্যে তথ্য সচিব মরতুজা আহমেদ বলেন, টেলিভিশনসহ বিভিন্ন গণমাধ্যম জনজীবন, সামাজিক জীবন এমনকি রাষ্ট্রীয় জীবনকে প্রভাবিত করে। গণমাধ্যমের ভূমিকা ও আমাদের কিছু পর্যবেক্ষণ নিয়ে আজ আমরা আলোচনা করব।
তিনি বলেন, টেলিভিশন সংবাদে মানুষ উজ্জীবিত হয়, টেলিভিশন গণতান্ত্রিক উন্নয়নেও ভূমিকা পালন করে আসছে। টেলিভিশনের ভুল সংবাদ মানুষের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। ‘গতকালের সংবাদ ২৪ ঘণ্টা পর আপডেট করে তাজা খবর হিসেবে প্রচার করা হচ্ছে। বাসি খবরকে এভাবে তাজা বানালে মানুষের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে’ বলেন মুরতুজা আহমেদ।
বৈঠকে সময় টিভির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আহমেদ জুবায়ের, চ্যানেল আই’র বার্তা প্রধান প্রণব সাহা, এশিয়ান টিভির চেয়ারম্যান হারুন অর রশীদসহ বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলের মালিক ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।