রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪ খ্রীষ্টাব্দ | ১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শ্রীমঙ্গলে চা জনগোষ্ঠীর ঐতিহ্যবাহী ফাগুয়া উৎসব অনুষ্ঠিত



বিশেষ প্রতিনিধি

বসন্তে নতুন করে সেজেছে প্রকৃতি। চা-বাগানের ঘরে ঘরে শুরু হয়েছে ফাগুয়া বা হোলি উৎসব।
চা জনগোষ্ঠীর ঐতিহ্যবাহী অন্যতম এই উৎসব এবার রঙিন রং ছড়ালো মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলার ফুলছড়া চা বাগান মাঠে। হাজার হাজার নারী-পুরুষের উপস্থিতিতে এক মিলনমেলায় পরিণত হয়।
ফাগুয়া উৎসব, পরব বা হোলি নামেও এটি পরিচিত। প্রতিবছর ফাল্গুনে দোল পূর্ণিমা থেকে শুরু করে পরবর্তী ১৫ দিন পর্যন্ত থাকে এই উৎসবের আমেজ।
উৎসবকে কেন্দ্র করে শ্বশুরবাড়ি থেকে বাপের বাড়ি আসেন মেয়েরা। প্রতিটি চা-বাগানে তরুণ-তরুণীরা রঙিন সাজে সেজে নাচের দল নিয়ে বের হন। মাদলের তালের সঙ্গে পাহাড়ি গানের সুর তৈরি করে এক অন্য রকম অনুভূতি জাগায়।

শনিবার ছিল ফাগুয়া উৎসবের ৬ষ্ট দিন। ফাগুয়া উৎসব উদ্‌যাপন পরিষদের আয়োজনে সবুজ-শ্যামল চায়ের দেশ মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার ফুলছড়া চা বাগান মাঠে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে রঙ খেলার পাশাপাশি নৃত্য-গীত সহকারে চা শ্রমিকদের পরিবেশনায় অনুষ্ঠিত হয় এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

ফাগুয়া উৎসবের আনুষ্ঠানিক শুভ উদ্বোধন করেন মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক মীর নাহিদ আহসান। অনুষ্ঠানে গেষ্ট অব অনার ছিলেন ভারতীয় সহকারি হাই কমিশনার শ্রী নিরাজ কুমার জয়সওয়াল।
ফাগুয়া উৎসব উদযাপন কমিটির সভাপতি রাজঘাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিজয় বুনার্জীর সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব কালীঘাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রাণেশ গোয়ালার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ভানুলাল রায়, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলী রাজিব মাহমুদ মিঠুন, উপজেলা আওয়ামী সভাপতি অর্ধেন্দু কুমার দেব সহ আরো অনেকে।

সিলেট অঞ্চলের বিভিন্ন চা-বাগান থেকে ফাগুয়া উৎসবে এসেছিল ১৫ টি সাংস্কৃতিক দল।
এই উৎসবে তারা ঝুমুর নৃত্য, লাঠি নৃত্য, হোলি গীত, মঙ্গলা নৃত্য, গুরুবন্ধনাসহ মনোমুগ্ধকর অনেক নৃত্য পরিবেশন করে। মঞ্চে নৃত্যের তালে তালে উপস্থিত দর্শকবৃন্দ নাচে মেতে উঠেন।
এ সময় অতিথিরা ও দর্শক স্রোতা রং খেলা করে এক আনন্দঘন পরিবেশ সৃষ্টি হয়।

বিকেল ৩ টা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত হাজার হাজার দর্শক উপভোগ করেন চা-জনগোষ্ঠির ঐতিহ্যবাহী এই ফাগুয়া উৎসব।

অনুষ্ঠানে কবি, সাহিত্যিক, সাংবাদিক, জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠনসহ দেশি-বিদেশি পর্যটকরা ও বিভিন্ন শ্রেণিপেশার নেতৃবৃন্দ উপস্থিতিতে অনুষ্ঠানস্থল মিলনমেলায় পরিনত হয়। #