শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শুভ বিজয়া দশমীঃ প্রতিমা বিসর্জন



কমলকুঁড়ি রিপোর্ট


সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বৃহত্তম প্রধান ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনা ও ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যপূর্ণ পরিবেশ এবং প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে সমাপ্ত হয়েছে। ৫ দিনব্যাপী এ অনুষ্ঠানে ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে উৎসবের আনন্দকে ভাগাভাগি করে নেয়।

এক বছর পর পর মহামায়া দেবী দুর্গা মত্তে এসে পূজিত হন। এবারও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি। সারাদেশে ন্যায় মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল, কমলগঞ্জ, মৌলভীবাজার সদর, রাজনগর, কুলাউড়া, জুড়ী ও বড়লেখা উপজেলায় সর্বমোট ১ হাজার ৭টি পুজামন্ডপে দেবী দুর্গার পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
গত পহেলা অক্টোবর মহাষষ্ঠীর পূজার মাধ্যমে শুরু হওয়া শারদীয় দুর্গাপূজা ৫ অক্টোবর প্রতিমা বিসর্জনের মাধ্যমে পরিসমাপ্তি ঘটে।

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস, অসুর শক্তি বিনাশকারী দেবী দুর্গার বিদায় নেয়ার সঙ্গে সঙ্গে পৃথিবী থেকে সকল অপশক্তি বিনাস হয়। বিজয়া শোভাযাত্রার পূর্বে নারীরা দেবীর ললাটের সিদুঁর আপন ললাটে এঁকে নেন। পুরুষরা অশুভ শক্তির বিনাশ কামনা করেন। সবার অন্তরে কামনা আগামী শরতে আবার বাঙালী হিন্দুর ঘরে ঘরে ফিরে আসবেন মা উমা। ভক্তবৃন্দের কন্ঠে ’মা তুমি আবার এসো’ এ আকুতি জানিয়ে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হলো হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজার।

বুধবার বিকেল মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গলে শহরে বৃষ্টি উপেক্ষা করে হাজার হাজার ভক্তরা সারা শহর জুড়ে অবস্থান করেন। এসময় বের হয় বিজয়া দশমীর শোভাযাত্রা। শোভাযাত্রায় অংশগ্রহণ করেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ভানুলাল রায়, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলী রাজ মাহমুদ মিঠুন, অফিসার ইনচার্জ শামীম অর রশীদ তালুকদার,
উপজেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি ডা. হরিপদ রায়, সাধারণ সম্পাদক শ্রীপদ দেবসহ জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ , প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ সর্বস্তরের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
এবছর প্রতিটি মন্ডপে নিরাপত্তা জোরদার ছিল। কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার ঘটেনি, শান্তিপূর্ণভাবে শারদীয় দূর্গোৎসব সমাপ্তি হয়।
এবার দেবী দুর্গা গজে চড়ে এসেছেন এবং ফিরেছেন নৌকায়। বিজয়া দশমীতপ মন্ডপে মন্ডপে ভক্তদের ঢাক আর ঢোলক শঙ্খধ্বনি, উল্লুল ধ্বনি, সিঁদুর খেলায় মুখরিত হয়ে ওঠে মন্ডপ প্রাঙ্গন।
একদিকে উৎসবের আমেজ অন্যদিকে বিদায়ের সুর। শুরু হয় আনন্দে বিষাদে বিদায় উৎসব।
পুরোহিতের শেষ মন্ত্রপাঠের মধ্য দিয়ে ধর্মীয় রীতি মেনে অপরাজিতা পূজা শেষে বিসর্জন দেয়া হয় দেবী দুর্গাকে। সব শেষে মন্ডপে মন্ডবে অনুষ্ঠিত হয় শান্তির জল ছিটানো ও শান্তিবারী সিঞ্চন। আগামী বছর দেবী দুর্গার আগমনী অপেক্ষায় শেষ বিদায় জানান ভক্তকূল।