মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
Sex Cams

স্মরণ : ভাষা সৈনিক রাজনৈতিক নেতা মফিজ আলী



॥ কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ॥
আজ ১০ অক্টোবর বাংলাদেশের শ্রমিক, কৃষক মেহনতি মানুষের এক নিবেদিত প্রাণ মফিজ আলীর ৭ম মৃত্যুবার্ষিকী। শ্রমিক রাজনীতির প্রথম যুগের হাতে গোনা কয়েকজনের একজন তিনি। আজকাল শ্রমিক নেতা বলতে যা বোঝা যায় তার সাথে মফিজ আলীদের কোন মিল খুঁজে পাওয়া যাবে না। আজকের দু’একজন বাদে অধিকাংশ শ্রমিক নেতা মানেই সফেদ পাঞ্জাবী পরিহিত বাড়িওয়ালা গাড়িওয়ালা একজন; কিন্তু মফিজ আলী তাদের মত কেউ নন। মফিজ আলী এদের উল্টো ঘরাণার লোক ছিলেন। শ্রমিক আন্দোলন করে কেউকেটা হওয়ার ইচ্ছা কিংবা আখের গোছানোর লক্ষ্য তার ছিল না। জেল, জুলুম, ত্যাগ তিতিক্ষা মোকাবেলা করে নিজেকে সম্পূর্ণরূপে বিলিয়ে দিয়ে খেটে খাওয়া মানুষের অধিকার প্রতিষ্টাই ছিল তার মুল লক্ষ্য। পাকিস্তান আমলে অনেক সুযোগ পাওয়ার পরও তিনি রাজনীতি থেকে পিছপা হননি। বৃহত্তর সিলেট তথা বাংলাদেশের বামপন্থী প্রগতিশীল আন্দোলনের এক অতি পরিচিত নাম। নিজ বাড়ীর অদুরে রাস্তায় একটি দুর্ঘটনা কবলিত হলে দীর্ঘ ৪৫ দিন সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসারত অবস্থায় ২০০৮ সালের ১০ অক্টোবর ভোররাত ৩.৪৫ মিনিটে ৮১ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন। তাঁর ৭ম মৃত্যুবার্ষিকীতে গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করছি।
১৯২৭ সালের ১০ ডিসেম্বর মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার শ্রীসূর্য ধোপাটিলা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। পিতা আজফর আলী ও মাতা নূরজাহান বিবির বড় ছেলে মফিজ আলী ছাত্রজীবন থেকেই প্রগতিশীল রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত হন। ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন তার মনে রাজনৈতিক চেতনার সৃষ্টি করেছিল। প্রবীন এই চা শ্রমিক নেতা ভাষা সৈনিক, শিক্ষাবিদ, এক কালের তুখোড় সাংবাদিক, বিশিষ্ট লেখক, প্রগতিশীল রাজনীতিবিদ, বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ছিলেন। শ্রীমঙ্গলের বালিশিরা কৃষক আন্দোলনসহ বিভিন্ন কৃষক আন্দোলনেরও একজন বলিষ্ট নেতা হিসেবে পরিচিত। মৌলভীবাজার সরকারী হাইস্কুল থেকে ১৯৪৯ সালে তিনি মেট্রিক পাশ করেন। ১৯৫০ এর দশকে শুরু হয় তার কলেজ জীবন। মদন মোহন কলেজ থেকে আই,এ পাশ করার পর এম,সি কলেজে ভর্তি হন। ছাত্র ইউনিয়নের কার্যকলাপের জন্য এম,সি কলেজের তৎকালীন অধ্যক্ষ সুলেমান চৌধুরী মফিজ আলীকে কলেজ থেকে বহিষ্কার করায় তার পক্ষে ডিগ্রি পরীক্ষা দেয়া সম্ভব হয়নি। তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের প্রাদেশিক মুখ্যমন্ত্রী আতাউর রহমান খানের কাছে আবেদন জানানো সত্ত্বেও কলেজে পুনরায় ভর্তি হতে পারেননি। ছাত্রজীবন থেকেই মফিজ আলী ছিলেন একজন তুখোড় সাংবাদিক ও কলামিষ্ট। তিনি পাকিস্তান আমলে ডন, ইত্তেফাক, সংবাদ, জনতা, আজাদ, গণশক্তিসহ বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ ও কলাম লিখেছেন। ষাটের দশকে তিনি দৈনিক সংবাদ এর নিজস্ব প্রতিবেদক ছিলেন। ছাত্রজীবনে তার প্রকাশিত পুস্তিকার নাম “পাকিস্তানে সাম্রাজ্যবাদী শোষণের নমুনা।” পঞ্চাশের দশকে সাপ্তাহিক ইত্তেফাকে তার লেখা প্রবন্ধের মধ্যে রয়েছে “রাষ্ট্রভাষা ও আঞ্চলিক স্বায়ত্ত্বশাসন”, “মে দিবসের ইতিহাস” এবং ঈদ সংখ্যায় ছোট গল্প “একটি গামছা।” ঢাকা থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক সেবার নিয়মিত লেখক ছিলেন।
ভাষা আন্দোলনের সেই সংগ্রামী দিনগুলোতে মফিজ আলী সিলেট এমসি কলেজের ছাত্র অবস্থায় কলেজে আন্দোলনের ফাঁকে তিনি এলাকায় ছুটে এসে কমলগঞ্জে সভা সমাবেশ করেছেন। তখন সভা সমাবেশ ছিল অসম সহসের ব্যাপার। ক্ষমতাসীন সরকারের রক্তচক্ষুতে আঙ্গুল দিয়ে তখনকার সময়ে ভাষা আন্দোলনের জন্য সাহসী নেতৃত্ব প্রদান করেন তিনি।Mofij Pic সিলেটে কলেজ জীবনে তিনি ছাত্র ইউনিয়নে যোগদান করেন। ছাত্র ইউনিয়নের জেলা কমিটিতে মফিজ আলী প্রথমে সহ সম্পাদক এবং পরে ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। মৌলানা ভাসানীর গঠিত কৃষক সমিতির শুরু থেকেই তিনি এই সংগঠনে যুক্ত ছিলেন। বৃহত্তর সিলেট জেলা কমিটির প্রথমে সহ সম্পাদক এবং পরবর্তীকালে সম্পাদক হিসেবে কাজ করেন। ১৯৬০ সালে তিনি কমিউনিষ্ট পার্টির সদস্য পদ লাভ করেন। ১৯৬৩ সালে তিনি শ্রীমঙ্গলে বালিশিরা কৃষক আন্দোলনে নেতৃত্ব দেন। এই আন্দোলনে পুলিশের গুলিতে ছালিক ও গনু মিয়া নামের ২ কৃষক মারা যান। ১৯৫৪, ১৯৬০, ১৯৬৪, ১৯৬৫, ১৯৬৭, ১৯৬৯ ও ১৯৭২ সালে রাজনৈতিক কারণে পাকিস্তান নিরাপত্তা আইন ও বিভিন্ন মামলায় তিনি দীর্ঘ প্রায় ৬ বছর কারাবরন করেছেন। তার রাজনৈতিক জীবনে অনেক উচ্চাভিলাসী জীবন যাপনে পাকিস্তান আমলে প্রস্তাব দেয়া হলে তিনি ঘৃনাভরে তা প্রত্যাখান করেছেন। মাঝামাঝি সময়ে ১৯৮৫ সালে জাতীয় পার্টিতে যোগদান করে ১৯৮৬ সালে কমলগঞ্জ-শ্রীমঙ্গল নির্বাচনী এলাকায় সংসদ সদস্য প্রার্থী হিসাবে প্রতিদ্বন্ধিতা করে পরাজিত হন। জাতীয় পার্টিতে থাকাকালীন এই সময়ে মফিজ আলী কমলগঞ্জের বেশ কিছু ভূমিহীনদের খাসজমির ব্যবস্থা করে দেন। এছাড়াও ৮৮ সালে এরশাদ মৌলভীবাজারে গমনকালীন সময়ে একমাত্র মফিজ আলী ধলাই নদীর বন্যা সমস্যার স্থায়ী সমাধানের প্রস্তাব জানালেও এ ব্যাপারে প্রস্তাব উত্থাপিত না হওয়ায় পরবর্তী কিছু দিনের মধ্যেই তিনি জাতীয় পার্টি থেকে পদত্যাগ করেন।
চা শ্রমিকদের দুঃখ দুর্দশা দেখে তিনি ১৯৬৪ সালে চা শ্রমিক নেতা কর্মীদের নিয়ে “পূর্ব পাকিস্তান চা শ্রমিক সংঘ” নামে একটি শ্রমিক ইউনিয়ন দাঁড় করান। অনেক নির্যাতন নিপীড়ন সহ্য করে তিনি চা শ্রমিকদের নিয়ে আন্দোলন সংগ্রাম চালিয়েছেন। নিজের লোভ লালসার উর্ধ্বে থেকে দেশের শ্রমিক কৃষক মেহনতি মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য তিনি আপোষহীন রাজনীতি করেছেন। যিনি কখনও নিজের সুখ স্বাচ্ছন্দ্য অর্থবিত্তের দিকে ফিরেও তাকাননি। এই নির্লোভ নিরহঙ্কার বড় মাপের মানুষটির স্মৃতি তর্পন করে তাঁকে স্মরণ করে নিজেদেরকে ধন্য করতে চাই। রাজনীতির এই বড় মানুষটির তৃতীয় প্রয়াণ বার্ষিকী পালন উপলক্ষে মৌলভীবাজার জেলা ট্রেড ইউনিয়ন সংঘ পুষ্পার্ঘ অর্পন, আলোচনা সভা আর পারিবারিক উদ্যোগে দোয়া মাহফিল আয়োজন করেছে। এই মহান নেতার ৭ম মৃত্যু বার্র্ষিকীতে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করছি।