শনিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শমশেরনগরে এলাকাবাসীর চাঁদায় সড়ক ও জনপথের উপর কালভার্ট নির্মাণ ॥ নালার ময়লা পানিতে দুর্ভোগ



শমশেরনগর প্রতিনিধি ।।
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর বিমান বন্দর সড়কে জামে মসজিদের সামনে নালার ময়লা পনি জমে জন দুর্ভোগের শিকার এলাকাবাসী।  পানি নিষ্কাশনে সড়ক জনপথ বিভাগের নতুন করে কালভার্ট নির্মাণে কোন প্রকল্প না থাকায় এলাকাবাসী নিজেরা চাঁদা দিয়ে সড়ক জনপথের উপর একটি কালভার্ট নির্মাণ করেছেন।
সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, অবিরাম বৃষ্টির কারণে শমশেরনগর বিমান বন্দর সড়ক জামে মসজিদ ও বিএএফ শাহীন কলেজের সামনে সড়কের পূর্ব প্রান্থের নালা ময়লা পানি সড়কে জমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি করেছিল। জমে থাকা ময়লা পানির কারনে জামে মসজিদের মুসল্লী ও বিএএফ শহীন কলেজের শিক্ষার্থী ছাড়াও এ সড়ক ব্যবহারকারীরা চরম দুর্ভোগের শিকার হয়েছেন। স্থানীয় ব্যবসায়ী আব্দুল বাছিত, শমশেরনগর বণিক কল্যাণ সমিতির সভাপতি সারোয়ার আহমদ, বিএএফ শাহীন কলেজের অভিভাবক নুরুল মোহাইমিন ও ব্যবসায়ী শহিদুল ইসলামসহ এলাকাবাসী বলেন, ঘটনাস্থলের পূর্ব দিকের ছোট নালা অতিরিক্ত পানি ধারণ করতে না পারায় ও এখানে পানি নিষ্কাষণে সুষ্ঠ কোন ব্যবস্থাপনা ছিল না। ফলে ময়লা পানি সড়কের উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে ও অতিরিক্ত যানবাহন চলাচলেল চাপে সড়কের একাধিক স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়। ফলে এখানে সড়ক কেটে একটি কালভার্ট নির্মাণ আবশ্যক হয়ে যায়। এ বিষয়টি নিয়ে এলাকাবাসীর পক্ষে সড়ক ও জনপথের মৌলভীবাজারের নির্বাহী প্রকৌশলীর সাথে দেখা করে দুর্ভোগ লাগবে একটি কালভার্ট নির্মাণের আবেদন করা হয়েছিল। আপাতত সড়ক জনপথ বিভাগের নতুন করে একটি প্রকল্প গ্রহন করে ঘটনাস্থলে কালভার্ট নির্মাণের কোন সুযোগ নেই বলে জানিয়েছিলেন। নির্বাহী প্রকৌশলী মৌখিকভাবে আরও জানিয়েছিলেন এলাকাবাসী সড়ক কেটে একটি কালভার্ট নির্মাণ করলে সড়ক জনপথ বিভাগের কোন আপত্তি থাকবে না।
সড়ক জনপথ বিভাগের মৌখিক সিদ্ধান্তে এলাকাবাসী স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের সাথে যোগাযোগ করে নিজেরা চাঁদা দিয়ে নালার পানি নিষ্কাশনে সড়ক কেটে একটি কালভার্ট নির্মাণ করেন। শমশেরনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জুয়েল আহমদ বলেন, আসলে নালার পানি নিষ্কাশন না হওয়ায় ময়লা পনি জমে ঘটনাস্থলে বড় ধরনের সমস্যার সৃস্টি হয়েছিল। ফলে এ দুর্ভোগ থেকে এলাকাবাসীকে রক্ষায় তিনিও তাদের সাথে যুক্ত হয়ে চাঁদার মাধ্যমে সড়ক কেটে অস্থায়ী ভিত্তিতে একটি কালভার্ট নির্মাণ করা হয়েছে।
সড়ক ও জনপথ বিভাগের মৌলভীবাজারের নির্বাহী প্রকৌশলী উৎপল সামন্ত এলাকাবাসীর চাঁদায় সড়ক কেটে কালভার্ট নির্মাণের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, শুধুমাত্র জনদুর্ভোগ লাগব ও সড়ক ভেঙ্গে গর্ত হয়ে যাচ্ছে বলে কালভার্ট নির্মাণে এলাকাবাসীকে মৌখিকভাবে সম্মতি জানানো হয়েছে। পরবর্তীতে এখানে প্রকল্প গ্রহন করে একটি স্থায়ী কালভার্ট নির্মাণ করা হবে।