শনিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
Sex Cams

মহাসড়কে সিএনজি অটোরিক্সা চলাচল বন্ধ রাখার সরকারী নির্দেশনার প্রতিবাদে কমলগঞ্জে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা



Pic---C.N.G---02
কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ॥
সারা দেশের মহাসড়কগুলোতে সিএনজি অটোরিক্সা চলাচল বন্ধ রাখার সরকারী নির্দেশনার প্রতিবাদে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। কমলগঞ্জ থানা সিএনজি অটোরিক্সা শ্রমিক ইউনিয়নের (রেজি নং ২৩৫৯) উদ্যোগে মঙ্গলবার (৪ আগষ্ট) বেলা সকাল ৮টা থেকে ১১টা পর্যন্ত একযোগে কমলগঞ্জ উপজেলা চৌমুহনা ও শমশেরনগর চৌমুহনায় এ কর্মসূচী পালন করা হয়। মানববন্ধন চলাকালে শ্রমিকরা প্রায় আধঘন্টা কমলগঞ্জ উপজেলা চৌমুহনা চত্বর অবরোধ করে রাখলে পুলিশ এসে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে।11828594_383586415172121_8729328733186761443_n
মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে ১১টা পর্যন্ত কমলগঞ্জ পৌর এলাকার ভানুগাছ বাজার থেকে উপজেলা পরিষদ চত্বর পর্যন্ত সিএনজি অটোরিক্সা রাস্তায় সারিবদ্ধভাবে রেখে মানববন্ধন কর্মসুচী পালন করা হয়। এতে কমলগঞ্জ থানা শাখার সিএনজি অটোরিক্সা শ্রমিক ইউনিয়নের কমলগঞ্জ সদর, ভানুগাছ, মুন্সীবাজার, আদমপুর, পাত্রখোলা, ভানুগাছ রেলষ্টেশন, কুরমা গ্রুপ কমিটির শ্রমিক নেতারা যোগদান করেন। মানববন্ধন চলাকালে সকাল সোয়া ১০টায় উপজেলা চৌমুহনা চত্বরে কমলগঞ্জ থানা সিএনজি অটোরিক্সা শ্রমিক ইউনিয়নের (রেজি নং ২৩৫৯) সভাপতি মো. আলমাছ মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য থানা শাখার সহ সভাপতি আবুল কালাম, সাধারণ সম্পাদক দিলবর মিয়া, ভানুগাছ গ্রুপ কমিটির সভাপতি মো. বাশার মিয়া, সদর গ্রুপ কমিটির সভাপতি আব্দুল মুকিত, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালিক, শ্রমিক নেতা ফারুক মিয়া, মোশাহীদ মিয়া, আনোয়ার মিয়া, শওকত মিয়া, চঞ্চল মিয়া প্রমুখ। অপরদিকে শমশেরনগর চৌমুহনায় মানবন্ধন চলাকালে প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন সিএনজি অটোরিক্সা মালিক সমিতির প্রতিনিধি মিজানুল হক, আবু সাদাত সায়েম, বিল্লাল হোসেন, শ্রমিক নেতা হারিছ মিয়া, সিরাজ মিয়া, শারপিন আহমদ, সিরাজ উদ্দীন, সিরাজুল ইসলাম প্রমুখ।
সমাবেশে বক্তারা বলেন, শ্রমিকরা পরিশ্রম করে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে উপার্জন করে। শ্রমিকরা কখনো অন্যায় অপরাধের সাথে জড়িত থাকেনা। তাদের জীবিকা অর্জনের একমাত্র বাহন অটোরিক্সা চালানো। সেই অটোরিক্সা হাইওয়ে রোডে চলাচল বন্ধ ঘোষণার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বক্তারা বলেন, বর্তমান সরকার শ্রমিকবান্ধব সরকার। শ্রমিকরা ক্ষতিগ্রস্ত হয় এমন কোন সিদ্ধান্ত সরকার গ্রহণ করবে না বলে আমরা আশাবাদী। অটোরিক্সার শ্রমিকদের সাথে কোন প্রকার আলোচনা না করে একতরফাভাবে হাইওয়ে রোডে সিএনজি চলাচল বন্ধ ঘোষণার সিদ্ধান্ত শ্রমিকরা কখনো মেনে নিবে না। কোন বাস্তবতা যাচাই না করে আকস্মিকভাবে সরকারী ঘোষণায় সারা দেশের মহাসড়কগুলোতে সিএনজি অটোরিক্সা চলাচল বন্ধ করা হয়। এর সরাসরি প্রভাব পড়েছে সারাদেশের লাখ লাখ পরিবারের উপর। শুধুমাত্র গ্রাম্য সড়কে সিএনজি অটোরিক্সা চলাচল করে মালিকের ভাড়া দিয়ে চালকের কোন টাকা থাকবে না। এগুলো মহাসড়কের উপর নির্ভরশীল। বক্তারা কমলগঞ্জ উপজেলার সিএনজি অটোরিক্সা চালকদের হাইওয়ে রোড পর্যন্ত গাড়ি চালানোর সুযোগ প্রদানের জন্য সরকারের প্রতি জোর দাবী জানান।
সারা দেশের কর্মসূচীর অংশ হিসাবে মঙ্গলবার ভোর থেকে কমলগঞ্জের সর্বত্র সিএনজি অটোরিক্সা চলাচল বন্ধ করে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করায় সাধান মানুষজন, স্কুল কলেজের শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও চাকুরী জীবিরা চরম দুর্ভোগের শিকার হয়েছেন। মঙ্গলবার কমলগঞ্জের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে উপস্থিতিও কম ছিল।