শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কমলগঞ্জের লক্ষীপুর সার্বজনীন মন্দির নির্মাণের জন্য দেশ বিদেশের দানশীল ব্যক্তিদের সহযোগিতা কামনা



oMoM॥ কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ॥

 

kuri

লক্ষীপুর সনাতনী ভক্তবৃন্দের পূজা করার জন্য একটি মন্দির স্থাপন করা জরুরী হয়ে পড়েছে। দেশ বিদেশের দানশীল ব্যক্তিবগের্র আর্থিক অনুদানেই হতে পারে একটি মন্দির। মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার পতনঊষার ইউনিয়নের লক্ষীপুর গ্রামে প্রায় ঊনবিংশ শতাব্দির পূর্বের একটি তেতুলগাছ রয়েছে। তেতুলগাছটি এখন কালের স্বাক্ষী হিসাবে রয়েছে। লক্ষীপুর গ্রামের সনাতনী ভক্তবৃন্দগণ এই গাছটিকে স্বাক্ষী রেখে এখানে ভোগ আরতী, গান কীর্তন করে থাকেন। সেই ধারাবাহিকতায় আজ চালিয়ে যাচ্ছেন। ভৈরবতলী হিসাবে এখানে যুগ যুগ ধরে সনাতনী ভক্তবৃন্দ বিভিন্ন দেবতাদের পূজা অচর্না করে আসছে। কয়েক বছর পূর্বে এলাকাবাসীর সার্বিক সহযোগিতা ও সরকারী ভাবে এই তলীকে চতুর দিক বাউন্ডারী করা হয়। কিন্তু স্থায়ী মন্দির না হওয়াতে এলাকার সনাতনী ভক্তবৃন্দ পূজা করতে নানা অসুবিধার সম্মুখীন পোহাতে হচেছ। বিগত ৬ বছর থেকে এই তলীর ভিতরে শারদীয় দূর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এলাকার তরুন উদীয়মান সাংবাদিক পিন্টু দেবনাথ এর উদ্যোগে এলাকার সর্বস্তরের সনাতনী ভক্তবৃন্দ ও পূজারীবৃন্দগণকে নিয়ে এক বৈঠকের মাধমে প্রথম ২০০৯ খ্রি: শারদীয় দূর্গোৎসব করা জন্য প্রস্তাব দেয়া হয়। এরপরই ওই বৎসর থেকে শারদীয় দূর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হচ্ছে। শারদীয় দূর্গোৎসব ৬ষ্টবারের মতো ব্যাপক এবারও জাকজমকভাবে অনুষ্ঠিত হয়। এবার অনুষ্ঠিত হবে ৭ম বার্ষিকী। শুধু লক্ষীপুর নয় এলাকার বিভিন্ন  সনাতনী ভক্তবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন। লক্ষীপুর সনাতনী ভক্তবৃন্দের একটি মাত্র দেবস্থলী।

গরীব এলাকা থাকায় মন্দিরটি নির্মাণ করা সম্ভব হচ্ছে না। এই দেবস্থলীতে মন্দির না থাকায় ভক্তবৃন্দগণ নানা সমস্যায় পড়তে হয়। বার মাসে তের পূজায় এই দেবস্থথলীতে করতে হয়। মন্দির ঘর স্থাপনের জন্য দেশ বিদেশের দানশীল ও বিত্তশালীরা এগিয়ে আসার জন্য আহবান করা যাচ্ছে। আপনাদের আর্থিক সহযোগিতাই পারে এই মন্দির স্থাপন। কোন সুহৃদ দানশীল ও বিত্তশালী আর্থিক সহযোগিতা করার জন্য কমলকুঁড়ি পত্রিকার সাথে যোগাযোগ করার জন্য বিনীত অনুরোধ করা যাচেছ। মোবাইল : ০১৭১৬৩৬২৯৪৪।