মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
Sex Cams

কমলগঞ্জের কামুদপুরে চরম অবহেলা আর অযতেœ চার মুক্তিযোদ্ধার সমাধিক্ষেত্র ও সংযোগ সড়ক



Kamalganj 4 freedom fighter cemetery --5
বিশ্বজিৎ রায় ।।
চরম অবহেলা আর অযতেœ পড়ে আছে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার কামুদপুরের চার মুক্তিযোদ্ধার সমাধিক্ষেত্র। ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালনি সময়ে  ৫ ডিসেম্মর তারিখে কমলগঞ্জ থানার পাকিস্থানী পতাকা নামিয়ে বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন কালে পাকবাহিনীর গুলিতে শাহদাৎ বরণ করেন কুমিল্লার দেবীদ্বার উপজেলার বড়সালপুর গ্রামের কৃতিসন্তান ৮ম বেঙ্গল রেজিমেন্ট সদস্য সিপাহী আব্দুর রশীদ। একই দিনে পাক সেনাদের সাথে সন্মুখ যুদ্ধে ধলাইনদীর পূর্বতীরে ব্রীজের কাছে গুলিবিদ্ধ হয়ে শাহদাৎ বরন করেন পাবনা জেলার  শাহজাদপুর উপজেলার দারোগাপাড়া গ্রামের কৃতিসন্তান ৮ম বেঙ্গল রেজিমেন্টের  সদস্য ল্যান্স নায়েক জিল্লুর রহমান ও  কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার কালাপাইলা গ্রামের কৃতিসন্তান ৮ম বেঙ্গল রেজিমেন্ট সদস্য সিপাহী মিজানুর রহমান এবং রাজকান্দি বনরেঞ্জ অফিস এলাকায়  গুলিবিদ্ধ হয়ে শাহদাৎ বরন করেন চট্টগ্রাম জেলার  মিরেশ্বরাই উপজেলার মুগাদিয়া  গ্রামের কৃতিসন্তান ৮ম বেঙ্গল রেজিমেন্টের  সদস্য সিপাহী মোঃ শাহজাহান মিয়া। দেশ স্বাধীনের উষালগ্নে শহীদ হওয়া এই চার বীর সেনানীকে এলাকার লোকজন ঘটনাস্থল থেকে প্রায় ৩ কিঃমিঃ দূরে ভানুগাছ- শমসেরনগর সড়কের কামুদপুর এলাকার একটি দীঘির পাড়ে সমাহিত করেন।
দীর্ঘদিন ধরে অবহেলায় অযতেœ  অরক্ষিত পড়ে থাকা এই চার শহীদের কবরকে সংরক্ষণের উদ্যোগ নেওয়া হয় ২০০৫ সালে। তৎকালীন কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আজাদুর রহমান মল্লিক এর মহতী উদ্যোগের কারণে নির্মিত হয় কবরের চর্তুপার্শ্বে বাউন্ডারী ওয়াল নির্মান করে তাতে লাগানো হয় নাম ফলক। উপজেলা প্রশাসন ও এলাকাবাসীর যৌথ প্রচেষ্টায় নির্মিত হয় প্রায় অর্ধ কিঃমিঃ দীর্ঘ বীরমুক্তিযোদ্ধাদের কবরস্থান সংযোগ সড়ক। ২০০৫ সালের মহান স্বাধীনতা দিবসের ২দিন আগে ২৪ মার্চ তারিখে এই সংযোগ সড়কের আনুষ্টানিক উদ্ভোধন করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আজাদুর রহমান মল্লিক। ভানুগাছ- শমসেরনগর সড়ক হতে শহীদ চার বীরমুক্তি যোদ্ধার কবরস্থান পর্যন্ত প্রায় অর্ধ কিঃ মিঃ দীর্ঘ এই সংযোগ সড়কটিতে গত ১০ বছর যাবৎ কোন সংস্কার কাজ না হওয়ায় চলাচলের একেবারেই অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। অপরদিকে কবরস্থানের নামফলকগুলোর লেখাগুলোও মুছে যাচ্ছে। রাস্তাটি সংস্কারের ব্যাপারে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, উপজেলা প্রশাসন, সুশীল সমাজ কারো কোন উদ্যোগ পরিলক্ষিত হচ্ছেনা। অথচ স্থানীয় প্রশাসন একটু উদ্যোগী হলে এই এলাকাটি হয়ে উঠতে পারতো একটি আকর্ষণীয় পর্যটন কেন্দ্র হিসাবে।
আলাপকালে এলাকার আয়ুব আলী, তেজাব মিয়া সহ অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, এপর্যন্ত জনপ্রতিনিধিদের অনেকেই রাস্তা ও সমাধিক্ষেত্রের উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন এলাকাবাসীকে । কিন্তু কেউই কথা রাখেননি। সর্বশেষ গত ১৩ই জুলাই তাই এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে স্থানীয় সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মো: আব্দুল মতিন এর নিকট সংযোগ সড়কটি পাকা করনের জন্য দাবী জানালে তিনি অবিলম্বে রাস্তাটি সংস্কারের আশ্বাস দেন। এলাকাবাসী আর আশ্বাস নয় প্রতিশ্রুতির সফল বাস্তবায়ন দেখতে চায়।