শনিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ওয়ানডে মিশন শুরু আজ



cri_55994b26a4300.png_73331স্পোর্টস ডেস্ক :
দুই ম্যাচের টি-২০ সিরিজে হারের পর আজ প্রোটিয়াদের বিপক্ষে ওয়ানডে মিশন শুরু করবে বাংলাদেশ। তিন ম্যাচের সিরিজে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে একটি ওয়ানডে ম্যাচে জিততেই হবে বাংলাদেশকে। নইলে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন ট্রফিতে খেলা অনিশ্চিত হবে বাংলাদেশের। শুধু চ্যাম্পিয়ন ট্রফিতে খেলাই নয়, ওয়ানডে ক্রিকেটে বাংলাদেশের বর্তমান পারফরম্যান্স বিশ্ব ক্রিকেটে ভাবিয়ে তুলেছে। এবার এটা ধরে রাখতে বাংলাদেশের জন্য এই সিরিজে ভালো করা ছাড়া উপায় নেই। মিরপুর স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় বিকাল ৩টায় ম্যাচটি শুরু হবে। বাংলাদেশ টেলিভিশন ম্যাচটি সরারসি সম্প্রচার করবে।
বিশ্বকাপের আগে নিজেদের প্রস্ততিপর্বে দেশের মাটিতে জিম্বাবুয়েকে সামনে পায় বাংলাদেশ। সেখানে জিম্বাবুয়েকে ৫-০ ব্যবধানে হারিয়ে ওয়ানডে সিরিজ জিতে নেয় টাইগাররা। এই জয়কে পুঁজি করেই বিশ্বকাপের মতো মঞ্চে ব্যাট-বল হাতে লড়াই করতে শামিল হয় মাশরাফির বাংলাদেশ। সেখানে পারফরম্যান্সে ঝলমল ছিল মাহমুদুল্লাহ-রুবেলরা। ফলে বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো কোয়ার্টার ফাইনালে নাম লেখায় বাংলাদেশ। শেষ আটে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচে নিজেদের উজাড় করে দিতে উন্মুখ হয়েছিল বাংলাদেশ। ম্যাচের শুরু থেকে সে পথেই হাঁটছিল টাইগাররা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আম্পায়ারদের ইচ্ছাকৃত ভুলে বিতর্কিতভাবে কোয়ার্টার ফাইনাল থেকেই বাংলাদেশকে বিদায়ের টিকিট ধরিয়ে দেয়া হয়। তারপরও বাংলাদেশ বাহ্বা পেয়েছে বিশ্ব ক্রিকেটের মঞ্চে। প্রশংসার জোয়ারে ভাসলেও, পারফরম্যান্সের ধারাবাহিকতা ধরে রাখার জিদ ঠিকই মনের মধ্যে ছিল মাশরাফি-মুশফিক-সাব্বিরদের। বিশ্বকাপের পর পাকিস্তানকে দেশের মাটিতে পেয়েই ৩-০ ব্যবধানে ওয়ানডে সিরিজ জিতে নেয় বাংলাদেশ। নিজেদের আরো উচ্চতায় নেয়ার লক্ষ্যে বিশ্ব ক্রিকেটের সবচেয়ে প্রভাবশালী দল ভারতকে হারের লজ্জা দেয় টাইগাররা। দাপটের সঙ্গে ২-১ ব্যবধানে সিরিজ জিতে মাশরাফি বাহিনী। এই ছিল ওয়ানডে ফরম্যাটে গেল সাত মাসে বাংলাদেশের পারফরম্যান্সের গ্রাফ। পারফরম্যান্সের গ্রাফের উচ্চতায় বসেই দেশের মাটিতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজ শুরু করে বাংলাদেশ। দুটি টি-২০ ম্যাচে লড়াই ছাড়াই সিরিজ হেরে বসে টাইগাররা। সেই স্মৃতি নিয়ে এবার ওয়ানডে ফরম্যাটের লড়াইয়ে নামবে বাংলাদেশ। কিন্তু এই ফরম্যাটে নিজেদের নিয়ে মোটেও চিন্তিত নয় স্বাগতিকরা। কারণ এই ফরম্যাটে তো এখন সাহসী যোদ্ধার এক দল বাংলাদেশ। সাহসী বাংলাদেশ দলকে বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখছে দক্ষিণ আফ্রিকাও। তবে টি-২০ সিরিজ জয়ে অনেক আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠেছে প্রোটিয়াসরা। ওয়ানডের আগে টি-২০ সিরিজ হওয়ায় নিজেদের ভালোভাবেই মানিয়ে নিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা। তাই এই ছোট্ট অভিজ্ঞতাকে ওয়ানডে সিরিজে কাজে লাগিয়ে ভালো ফল করতে উন্মুখ হামিশ আমলার দল। নিয়মিত অধিনায়ক এবি ডি ভিলিয়ার্স দেশে ফিরে যাওয়ায়, ওয়ানডে সিরিজে দলকে নেতৃত্ব দেবেন আমলাই। তাতে কিছুটা হলেও সুবিধা হয়েছে বাংলাদেশের। কারণ ডি ভিলিয়ার্সের মতো বিশ্ব মানের খেলোয়াড় দলে থাকাটা যেকোনো প্রতিপক্ষের জন্য অনেক বড় চিন্তার কারণ।
২০১৭ সালে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিতব্য আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে খেলতে হলে, চলতি বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত র‌্যাংকিংয়ে শীর্ষ আট দলের মধ্যে থাকতে হবে বাংলাদেশকে। সেপ্টেম্বর পর্যন্ত র‌্যাংকিংয়ে শীর্ষ আটে থাকাটা নিশ্চিত করেছিল বাংলাদেশ (পাকিস্তান-ভারতের বিপক্ষে সিরিজ জয়ে বাংলাদেশের শীর্ষ আটে থাকা নিশ্চিত হয়েছিল)। কিন্তু হঠাৎ করেই ষড়যন্ত্র করে বসেছে র‌্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষ আটে থাকতে না পারার শঙ্কায় পড়া পাকিস্তান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ। আর তাতে বাংলাদেশের সমীকরণটা কিছুটা হলেও ‘যদি’ ওপর নির্ভর হয়ে পড়েছে। তারপরও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তিন ম্যাচ সিরিজে বাংলাদেশ একটি জয় তুলে নিতে পারলেই, ষড়যন্ত্রকারীদের ষড়যন্ত্র মুখ থুবড়ে পড়বে। তাতে মাথা উঁচু করেই চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে খেলবে বাংলাদেশ।
তাই পাকিস্তান ও ভারতের সিরিজ হারের পর বাংলাদেশকে নিয়ে দলটি আরো বেশি সতর্ক। টি-টোয়েন্টি সিরিজের পর দলটি ওয়ানডে সিরিজও শুরু করতে চায় জয় দিয়ে। আর প্রথম ম্যাচে জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী দলের অধিনায়ক হাশিম আমলাও। বাংলাদেশের কন্ডিশনের সঙ্গে নিজেদের মানিয়ে নিতে দলটি বেশ কয়েকদিন আগেই বাংলাদেশে আসে। প্র্যাকটিস ম্যাচ আর টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলে দলটি নিজেদের ভালোই মানিয়ে নিয়েছে। তবে বাংলাদেশ-দক্ষিণ আফ্রিকা ওয়ানডে সিরিজের বড় বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে বৃষ্টি। কারণ গতকার সারা দিনই বৃষ্টি ছিল। বৃষ্টির কারণে গতকাল দুদলেরই অনুশীলনে বিঘœ ঘটে। আজো বৃষ্টি থাকার সম্ভাবনা বেশি। আর ভারী বৃষ্টি হলে ম্যাচটি মাঠে গড়ানোই কঠিন হতে পারে।
বাংলাদেশ স্কোয়াড : মাশরাফি বিন মর্তুজা (অধিনায়ক), সাকিব আল হাসান (সহঅধিনায়ক), তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, এনামুল হক বিজয়, লিটন কুমার দাস, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মুশফিকুর রহিম, সাব্বির রহমান, নাসির হোসেন, আরাফাত সানি, জুবায়ের হোসেন, রুবেল হোসেন ও মুস্তাফিজুর রহমান।
দক্ষিণ আফ্রিকা স্কোয়াড : হাশিম আমলা (অধিনায়ক), কাইল এ্যাবট, ফারহান বেহারদিয়ান, কুইন্টন ডি কক (উইকেটরক্ষক), জেপি ডুমিনি, ফাফ ডু প্লেসিস, ইমরান তাহির, রায়ান ম্যাকলারেন, ডেভিড মিলার, মরনে মরকেল, ক্রিস মরিস, ওয়েন পার্নেল, এ্যারন ফাঙ্গিসো, কাগিসো রাবাদা, রিলি রোসৌ ও ইডি লি।