মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
Sex Cams

ঈদ আনন্দ নেই রাজনের ঘরে



ডেস্ক রিপোর্ট ।।

  ঈদের আনন্দ চলছে মুসলমাদের ঘরে ঘরে। সব বয়সী মানুষ মেতে উঠেছে ঈদের উচ্ছলতায়। এ আনন্দে শিশুদের দুরন্তপনার কি শেষ আছে? নতুন কাপড়, জুতো আরও কত কী!
কিন্তু সিলেটের কুমারগাঁওয়ে নির্যাতনে নিহত শিশু সামিউল আলম রাজনের ঘরে কি পৌঁছেছে এ আনন্দ? তার বাবা-মাসহ স্বজনরা কি এবারও রাজনের জন্য কিনেছেন ঈদের কাপড়?
রাজনের জন্য আর ঈদের পোশাক কিনতে হবে না। কখনও না। সে যে শুয়ে আছে বাড়ির আঙিনার পাশে কবরে।
পরিবারের শত অভারের মধ্যেও যার দুরন্তপনায় ঘর ভরে উঠত সেই রাজন আর কখনও ফিরবে না। ঈদের খুশি ছুঁয়ে যাবে না ছোট্ট সেই রাজনকে। নতুন জামা কিনে দেওয়ার আবদার করবে না কোনোদিন।
এদিনে ভোর হতে না হতেই যে পরিবারে এতদিন শুরু হতো ঈদ আয়োজনের তোড়জোড়, যেখানে এখন শুধুই হাহাকার, কান্না। রাজনের স্বজনদের সান্ত্বনা দেওয়ার ভাষাও নেই আজ প্রতিবেশীদের।
তারা শুধু তাদের কষ্টের অংশীদার হচ্ছেন। নীরবে চোখ মুছছেন। রাজনকে নির্যাতন করে হত্যার দৃশ্য যে সারাজীবন তাদের এবং সারাদেশের মানুষকে কাঁদাবে!
জালালাবাদের কান্দিগাঁও ইউনিয়নের বাদেয়ালী গ্রামের বাসিন্দা মাইক্রোবাস চালক বাবা আজিজুর রহমান ও গৃহিনী মা লুবনা আক্তারের প্রথম ছেলে ১৩ বছরের সামিউল আলম রাজন।
স্থানীয় অনন্তপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চতুর্থ শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করেছিল সে।
এরপরে আর পড়া হয়নি অভাবের কারণে। সংসারে একটু স্বচ্ছলতা আনতে সবজি বিক্রি করত রাজন।
কিন্তু একদল মানুষরূপী পশু দারিদ্র্যকিলষ্ট সেই শিশুকে নির্দয়ভাবে পিটিয়ে মেরেছে। পৈশাচিক উল্লাস করেছে। সেই দৃশ্য ভিডিওতে ধারণ করে ছড়িয়েছে ইন্টারনেটে। নিষ্ঠুরতার কোনো ঘাটতি রাখেনি ওই পশুর দল।
গত ৮ জুলাই চুরির অভিযোগ তুলে পিটিয়ে হত্যা করে কয়েকজন যুবক। পরে ওই নির্যাতনের দৃশ্য ভিডিও করে তারাই ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়। ২৮ মিনিটের ওই ভিডিও চিত্র সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে।
শনিবার সকালে বাদেয়ালী গ্রামে গিয়ে দেখা যায় রাজনের বাড়িতে ঈদের আনন্দের বদলে এখন শুধুই শূন্যতা।
আদরের ছেলেকে হারিয়ে রাজনের বাবা-মা আজ পাগলপ্রায়। তাদের দাবি শুধু একটাই ছেলের খুনিদের বিচার।
প্রতিবছর ঈদে ছেলে রাজনকে পরম যত্নে সেমাই মুখে তুলে দিতেন মা লুবনা আক্তার। সেই আদরের সন্তান আজ নেই।
তার ছবি বুকে জড়িয়ে বিলাপ করে বলছিলেন, ‘‘আমাদের কিসের ঈদ। সব আনন্দ কেড়ে নিয়েছে ওই পাষণ্ডরা। ওদের বিচার চাই, ফাঁসি চাই, ওরা আমার ওইটুকু ছেলেকে ‘চোর’ অপবাদে পিটিয়ে মেরেই ফেলল।’’
দুরন্ত ছেলে আজ শান্ত হয়ে শুয়ে আছে বাড়ির পাশের কবরে। তাই নির্বাক বাবা নীরবে তাকিয়ে থাকেন ছেলের কবরের দিকে।
আজিজুর রহমান বলেন, ‘‘প্রতি ঈদে ছেলেটা নতুন কাপড় কিনে দেওয়ার আবদার করত। এবার ও কবরে শুয়ে আছে, আমরা কীভাবে ঈদের আনন্দ করি? আমরা তার খুনিদের বিচার চাই।”
ঈদের নামাজ শেষে প্রতিবেশীরা সবাই এসেছেন রাজনদের ঘরে। কিন্তু কারো মুখেই আনন্দের ছাপ নেই। একরাশ কষ্ট বুকে নিয়ে দাঁড়িয়ে তাদের কষ্টের অংশীদার হচ্ছেন।
রাজনের মা-বাবার কান্নার আর্তি চোখ ভেজাচ্ছে সবার।

সূত্র: বিডিনিউজ