বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সফল হলো অনশন ।। অত:পর বিয়ে



কুলাউড়া থেকে বিশেষ সংবাদদাতা ।।

বড়লেখায় বিয়ের দাবীতে প্রেমিকের বাড়ীতে ২২ ঘন্টা অনশনের পর অবশেষে প্রেমিকের সাথে বিয়ে হলো প্রেমিকার। উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, মানবাধিকার কমিশনসহ গন্যমান্য ব্যক্তিদের হস্তক্ষেপে ১৭ জুন বুধবার বিকেল সাড়ে ৪টায় বিয়ের পিঁড়িতে বসে প্রেমিক পুলক চক্রবর্তী ও প্রেমিকা মান্না পুরকায়স্থ। গত এক সপ্তাহ প্রেমিকের পরিবারের সাথে সমঝোতায় ব্যর্থ হলে তরুণী এক হাতে বিষের বোতল আর অন্য হাতে ধারালো কাঁচের টুকরা নিয়ে মঙ্গলবার বিকেল থেকে অনশন শুরু করে। জানা গেছে, সিলেটের ওসমানী নগর উপজেলার খজগীপুর গ্রামের প্রদীপ পুরকায়স্থের মেয়ে বিএসএস দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী মান্না পুরকায়স্থের সাথে বড়লেখা উপজেলার মিহারী গ্রামের মৃত প্রতাপ চক্রবর্তীর ছেলে স্থানীয় কমিউনিটি ক্লিনিকের হেল্থ প্রোভাইডার পুলক চক্রবর্তীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। পুলকের বিয়ের প্রস্তাবে ৪ জুন মান্না পুরকায়স্থ ঘর ছেড়ে বিয়ানীবাজার চলে যায়। সেখান থেকে পুলক মান্নাকে রিসিভ করে বড়লেখার বিভিন্ন জায়গায় রাখে। এক সময় পুলক সবকিছু অস্বীকার করে মান্নাকে তাড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা চালালে সে উপজেলা চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম, ভাইস চেয়ারম্যান বিবেকানন্দ দাস ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রাহেনা বেগম হাসনাসহ গন্যমান্য ব্যক্তিদের শরনাপন্ন হয়। তারা এক সপ্তাহের মধ্যে প্রেমিক পক্ষের সাথে সমঝোতা করে দেয়ার আশ্বাস দিয়ে ১০ জুন মান্না পুরকায়স্থ তার মায়ের সাথে বাড়ী চলে যায়। ১৬ জুন মা মিনতি পুরকায়স্থকে নিয়ে মান্না পুরকায়স্থ বড়লেখা উপজেলা পরিষদে উপস্থিত হয়। বিকেল সাড়ে তিনটা পর্যন্ত প্রেমিক পক্ষ সমঝোতা বৈঠকে উপস্থিত না হওয়ায় সে বিয়ের দাবীতে প্রেমিকের বাড়ীতে অনশন চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। ১৬ জুন বুধবার দুপুরে সরেজমিনে প্রেমিক পুলকের বাড়ীতে গিয়ে দেখা যায়, প্রেমিকা মান্না বারান্দায় বসে রয়েছে। সে জানায় পাঁচ বছর ধরে পুলকের সাথে তার সম্পর্ক। সামাজিকভাবে না হলেও পুলক ধর্মীয় রীতিতে সিঁদুর পরিয়ে তাকে বিয়ে করেছে। সে বিয়েতে রাজি না হলে আমার আত্মহত্যা ছাড়া কোন রাস্তা খোলা নেই। বড়লেখা মানবাধিকার কমিশনের সাধারন সম্পাদক ইকবাল হোসেন স্বপন জানান, উপজেলা পরিষদ ও বিশিষ্টজনের হস্তক্ষেপে বুধবার বিকেল সাড়ে চারটায় প্রেমিক-প্রেমিকাকে আইনগতভাবে এফিডেভিটের মাধ্যমে বিয়ে দেয়া হয়েছে।