মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সংসদে নারী সদস্যদের তোপের মুখে এরশাদ !!



Earshed_sm_467750622নিউজ ডেস্ক ::

নিজেদের ক্ষমতা বাড়ানো নিয়ে এর আগে জাতীয় সংসদে একাধিকবার দাবি জানালেও ‘নিজেরা যে ক্ষমতাহীন‘ তা মানতে নারাজ জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্যরা।
এ কারনেই সোমবার জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসাইন মুহাম্মদ এরশাদ যখন তাদেরকে ‘শোপিস’ বলে আখ্যায়িত করলেন তখন চিৎকার করে সম্মিলিতভাবে এর প্রতিবাদ জানালেন তারা। আর তখন বরাবরের মতোই পুরুষ সদস্যরা ঠোটে মুচকি হাসি নিয়ে বসে ছিলেন নিজ আসনে।
এরশাদ ২০১৫-১৬ অর্থবছরের বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে এমন মন্তব্য করেন। আর এ মন্তব্য করে তাৎক্ষনিকভাবে নারী সদস্যদের তোপের মুখে পড়েন তিনি।
নারীর ক্ষমতায়ন নিয়ে এরশাদ তার বক্তব্যের এক পযায়ে বলেন, ‘আমরা কথায় কথায় বলি, আমাদের প্রধানমন্ত্রী নারী, স্পিকার নারী, সংসদ উপনেতা নারী; বিরোধীদলীয় নেত্রী নারী; কিন্তু এরা শোপিস। এরা কিন্তু শোপিস। বাইরে কিন্তু এই অবস্থা নেই। বাইরে নারীরা অসহায়।’
তিনি এ মন্তব্য শুরু করার সাথে সাথেই চারদিক থেকে নারী সদস্যরা এর তীব্র প্রতিবাদ শুরু করেন। তবে তাতেও থেমে যাননি এরশাদ। তিনি তার বক্তব্য ফের বলেন, বাইরে কিন্তু নারীরা অসহায়।
মনে আছে ২১ ফেব্রুয়ারীতে রাতের বেলার কথা। নারীরা শহীদ মিনারে থাকেন না, যায় না। কোন নারী সেখানে যায় না। কেননা ভয়ে যায় না। আমি যদি ভুল কোন কথা বলে থাকি তাহলে উথড্রো করলাম। কথা হলো মধ্যরাতে নারীরা সেখানে যেতো ভয় পায়। কেন ভয় পায়?
তখনও নারী সদস্যরা এর প্রতিবাদ করতে থাকলে এরশাদ তাদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘বসুন মাননীয় সদস্য বসুন, নিরবতা পালন করুণ’। পহেলা বৈশাখের কথা মনে আছে? আমি ছিলাম না।
এদেশের সংস্কৃতি, সবাই মিলে আনন্দ করা। সেখানে যা হয়েছিল তা নিয়ে কি বিচার হয়েছে? ভিডিওতে যার যার ছবি এসেছিলো তাদের বিচার হয়নি। আমার সময়ে একটি নারীকে এসিড ছোড়া হয়েছিল, তাকে আমি ফাঁসি দিয়েছিলাম। যে কারনে এসিড ছোড়া কমে গিয়েছিলো।
এরশাদের বক্তব্য শেষ হলে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, নারীর ক্ষমতায়ন নিয়ে বক্তব্য রাখতে গিয়ে মাননীয় সদস্য যেসব অসংসদীয় শব্দ ব্যবহার করেছেন সেগুলো এক্সপাঞ্জ করা হলো।