বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রাত নামলেই শ্রীমঙ্গলের রাধানগর পুরুষশূন্য গ্রাম



5555555555555555

শ্রীমঙ্গল সংবাদদাতা::
শ্রীমঙ্গলের রাধানগর গ্রাম এখন পুরুষশূন্য। রাত নামলেই ভয় আর আতঙ্ক ঘিরে ধরে এলাকাবাসীদের। প্রতি রাতে পুলিশ এসে টহল দেয়। মোবাইল ফোনে চলছে ভয়ভীতি দেখানোর পালা। সোমবার (২২ জুন) রাধানগর এলাবাসীর পক্ষে একটি সংবাদ সম্মেলনের কথা থাকলেও পুলিশ প্রশাসনের ভয়ে তারা তা করতে পারেননি।

এদিকে, গত মঙ্গলবার (১৬ জুন) শ্রীমঙ্গল উপজেলার রাধানগর এলাকায় কবরস্থানের জমি দখল করতে গেলে এলাকাবাসীর হামলার শিকার হন সমাজকল্যাণমন্ত্রী সৈয়দ মহসীন আলীর ছোট ভাই সৈয়দ লিয়াকত আলী। এ সময় তার ভকসি গাড়িটি (ঢাকা মেট্রো চ- ১১-৭২২৯) ভাংচুর করার সময় গাড়ি চালক জসিম উদ্দিন ও ভাগিনা সোহেল আহত হন। তবে লিয়াকত আলী সাংবাদিকদের বলেছেন, তিনি এ বিষয়ে জড়িত নন।

হামলার ঘটনায় গত বুধবার (১৭ জুন) সৈয়দ লিয়াকত আলীর গাড়ি চালক জসিম মিয়া বাদী হয়ে রাধানগর গ্রামের চৌদ্দজনের নাম উল্লেখ করে ও আরো কয়েকজনকে অজ্ঞাত আসামি করে শ্রীমঙ্গল থানায় মামলা দায়ের করেন। এই মামলার সূত্র ধরে পুলিশ প্রতি রাতেই রাধানগরে হানা দিচ্ছে। ফলে নিরিহ এলাকাবাসীর মাঝে বিরাজ করছে চরম আতঙ্ক।

তবে, রাধানগরের কয়েকজন নারী এ প্রতিবেদককে বলেছেন, হয়রানী করার জন্যই তাদের স্বামীদের নামে মামলা দেওয়া হয়েছে। ঘটনার সময় উপস্থিত ছিলেন না, এমন ব্যক্তির নামও নাকি মামলায় জড়‍ানো হয়েছে।

হাসমা বেগম নামের এক বৃদ্ধা বলেন, ‌আমার ছেলে মকসুদ মিয়া ঘটনার সময় ভুরভুরিয়া চা বাগানে ডিউটিতে ছিল। সে চা বাগানে চকিদারের কাজ করে। আমার ছেলেকে আসামি করা হয়েছে। আমার ছেলে মকসুদ কোনো ভাবেই এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত নয়।

এমন অভিযোগ করেন গ্রামের শাহানারা বেগমও। তিনি বলেন, তার স্বামী লুৎফুর রহমানকে ৫নং আসামি করা হয়েছে। অথচ ঘটনার সময় তিনি তার লেবু বাগানে ছিলেন।

পারুল বেগম, হোসনে আরা এবং আয়েশা বেগম বলেন, আমাদের জান থাকতে আমরা আমাদের কবরস্থানের সামান্য জায়গা দিবো না। আমাদের পূর্বপুরুষরা এখানে শুয়ে আছেন। শুনেছি আমাদের নারীদের নামেও নাকি মামলা হবে।

তারা আরও বলেন, মিথ্যা মামলার আসামি হওয়ায় পুলিশের ভয়ে গ্রামের পুরুষরা এলাকা ছাড়া।

সোমবার দুপুর ১২টার সময় ওই গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, এক সময়ের কোলাহলপূর্ণ গ্রামটিতে এখন নিঃস্তব্ধতা বিরাজ করছে। বিশেষ করে নারীদের মধ্যে রয়েছে চরম আতঙ্ক।

সংবাদ সম্মেলন করলেন না কেন জানতে চাইলে গ্রামের মো. আব্দুল খালেক বলেন, শ্রীমঙ্গল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল জলিল স্থানীয় ইউপি সদস্যকে দিয়ে আমাদেকে নিষেধ করেছেন সংবাদ সন্মেলন না করার জন্য। করলে নাকি ক্ষতি হবে। তাই আমরা ভয়ে সংবাদ সম্মেলন করছি না। মোবাইল ফোনে আমাদেরকে হুমকি-ধমকিও দেয়া হচ্ছে।

রাধানগর বায়তুল নূর জামে মসজিদের ইমাম হোসেন আহম্মেদ বলেন, মামলার ভয়ে গ্রামে পুরুষ লোক না থাকায় তারাবির নামাজেও মানুষ কম হচ্ছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য (মেম্বার) শফিকুল ইসলামের মোবাইল বন্ধ থাকায় বক্তব্য নেওয়া যায়নি। তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করে শ্রীমঙ্গল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল জলিল বলেন, সংবাদ সম্মেলন না কারার জন্য আমি কাউকে বলিনি।