শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৫ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
Sex Cams

মজুরী ও শ্রম আইনেও বৈষম্যের শিকার চা শ্রমিকরা



॥ সীতারাম বীন ॥
চা শ্রমিকরা নিজের ও পরিবারের যাবতীয় প্রয়োজন মিটানোর জন্য কঠোর পরিশ্রম করে থাকেন। প্রাপ্য মজুরীই চা শ্রমিকদের একমাত্র বেঁচে থাকার অবলম্বন। কিন্তু যুগ যুগ ধরে তারা ন্যায্য মজুরী থেকে বঞ্চিত হয়েছেন, তাদের ন্যায্য মজুরী প্রাপ্তির অধিকার নিয়ে বিচ্ছিন্ন ভাবে সংগ্রাম হলেও সংগঠিত ভাবে কিংবা ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলনের রূপ নেয়নি, সংগঠিত হবার আগেই মালিক পক্ষের দাপটে তাদের উপর চলে অবিচার। অথচ চা শ্রমিকরা হাঁড় ভাঙ্গা খাটুনি খেটে মালিকের মুনাফা অর্জনে ভূমিকা রাখে। এমতাবস্তায় চা শ্রমিকরা যদি ন্যায্য মজুরী না পায় বা প্রয়োজন অপেক্ষা কম পান বা নির্দিষ্ট সময় মতো প্রাপ্য অধিকার হতে বঞ্চিত হন, তবে দুঃখ কষ্টের সীমা থাকেনা এতে হতাশায় ভারাক্রান্ত হয়ে কাজের প্রতি শ্রমিকদের অশ্রদ্ধা ও বিতৃষ্ণা সৃষ্টি হয়। পুঁজিপতি তার মুলধন খাটানোর কারণে এবং শ্রমিক তার শ্রমের বিনিময়ে লাভের অংশীদার হয়ে থাকেন।  মলিক শ্রমিকের মধ্যে সুসম্পর্ক বিরাজমান থাকলে এবং শ্রমিকরা যদি তাদের ন্যায্য পাওনা পায় তাহলে উৎপাদন আরও বৃদ্ধি পাবে।  আর উৎপাদন যদি বৃদ্ধি পায় তাহলে দেশ ও জাতি যেমন উপকৃত হবে তেমনই শান্তি প্রতিষ্ঠিত হবে সর্বত্র। শ্রমিকরাউৎপাদনে শরিক থাকলেও তাদের মুনাফায় শরিক করা হয়না। একজন চা শ্রমিক বিশ কেজি চা পাতা তুলে মজুরী পান ৬৯ টাকা অর্থাৎ প্রতি কেজি চা পাতার মূল্য ৩.৪৫ টাকা পরে। অথচ নিরিখের অতিরিক্ত চা পাতা তুলতে দিগুণ শ্রম লাগে কারণ নিরিখার চা পাতা তুলতে কান্ত হয়ে পড়েন চা শ্রমিকরা কিন্তু নিরিখের অতিরিক্ত চা পাতার মূল্য মারাত্বক কম দেওয়া হয়। কোন কোন চা বাগানে কেজি প্রতি ১.৫০ টাকা আবার কোন বাগানে ১.৬০ টাকা  আবার কোন বাগানে ৩ টাকা ২ টাকা হারে  দেওয়া হয়। পাউন্ড এর প্রচলন ছিল যখন বিশ পাউন্ড এর নিরিখ ছিল পাউন্ড থেকে যখন সের আসল তখন বিশ সেরে নিরিখ সের থেকে যখন কেজিতে আসল তখন বিশ কেজিতে নিরিখ। সহজ সরল চা শ্রমিকরা তখন শুভঙ্করের ফাকি বুঝতেই পারে নি। সব চাইতে পরিতাপের বিষয় যে, চা শ্রমিকদের সাত দিনের মজুরী দেওয়ার কথা তাকলেও সাপ্তাহিক ছুটির মজুরী দেওয়া হয় না।
আইনেও বৈষম্যের  শিকার চা শ্রমিকরা ঃ
২০০৬ সালের শ্রম আইনের ৩২ ধারা অনুযায়ী কোন চা শ্রমিক চাকরী হারালে তাকে ৬০ দিনের মধ্যে মালিকের বরাদ্দ দেওয়া বাস¯’ান ছাড়তে হবে চা বাগানে ¯’ায়ী ও অস্থায়ী এই দুই ধরনের শ্রমিক থাকেন। শ্রম আইন অনুযায়ী ৯০ দিনের মধ্যে চাকরী স্থায়ী করার কথা থাকলেও ১ হতে ১৫ বছর পর্যন্ত কাজ করা প্রায় ৩৫ হাজার চা শ্রমিক আছেন যাদের কাজ স্থায়ী হয়নি। শ্রম আইনে ১১৭ ধারার কারখানা ও শিল্পপ্রতিষ্ঠান সড়ক পরিবহন শ্রমিকের ক্ষেত্রে  প্রতি ১৮ দিন কাজের জন্য ১ দিন এবং সংবাদপত্র শ্রমিকের জন্য প্রতি ১১ দিন কাজের জন্য ১ দিন অর্জিত ছুটির বিধান আছে অথচ এই আইনে চা বাগানের শ্রমিকের জন্য অর্জিত ছুটি ১ দিন। চা শ্রমিকদের নৈমিত্তিক ছুটির ক্ষেত্রে ও রয়েছে বৈষম্য শ্রম আইনের ১১৫ ধারায় বলা আছে একজন শ্রমিক বছরে পূর্ণ মজুরীতে ১০ দিন নৈমিত্তিক ছুটি পাবে তবে শর্ত থাকে যে এই ধারার কোন কিছু চা বাগানের আইনে নিযুক্ত  শ্রমিকের ক্ষেত্রে বলবৎ হবেনা। আর তাই কোমলমতি চা শ্রমিকরা শ্রম আইনের বৈষম্য ও মজুরী বৈষম্যের  সঠিক বাস্তবায়ন চায়।
লেখক : সম্পাদক, মাসিক চা মজদুর।