বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কুলাউড়া থানা পুলিশের তদন্ত করে এলেন সিলেটর অতিরিক্ত ডিআইজি আক্কাস উদ্দিন ভূঁইয়া



14. digকুলাউড়া প্রতিনিধি ।।
সস্প্রতি সময়ে বিভিন্ন মিডিয়ায় ও অনলাইনে কুলাউড়া থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ ঘুষ নিয়ে মামলা রেকর্ড করে এবং মানুষকে হয়রানীসহ বিভিন্ন অভিযোগের কথা তুলে ধরা হয়। এই সমস্ত সংবাদের ভিত্তিতে সিলেটের অতিরিক্ত ডিআইজি আক্কাস উদ্দিন ভূঁইয়া আজ রবিবার সকালে কুলাউড়া থানা পুলিশের ওসির তদন্তে যান।

এ সময় ওসির বিরুদ্ধে মৌখিক ও লিখিত বক্তব্য উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আ.স.ম কামরুল ইসলাম প্রদান করলেও বিভিন্ন জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক, ব্যবসায়ী ও থানায় জড়ো হওয়া সাধারণ মানুষ বর্তমান ওসি আসার পর আইন শৃঙ্খলা স্বাভাবিক আছে। ডাকাতি রোধে পুলিশ নিরলস ভাবে কাজ করছে। থানা পুলিশের ওসির রুম দালাল মুক্ত হয়েছে বলে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন ডিআইজির কাছে। এ সময় কুলাউড়া প্রেসক্লাব সভাপতি শাকিল রশিদ চৌধুরী, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ফজলুলক হক খান শাহেদ ও নেহার বেগম উপস্থিত ছিলেন। তদন্তের এক পর্যায়ে উপজেলা চেয়ারম্যানের ভাই ও থানায় জড়ো হওয়া লোকদের হট্টগোল বাধে ওসির পক্ষে বিপক্ষে কথাবর্তা নিয়ে।

তবে ডিআইজির নির্দেশে তদন্তে মৌলভীবাজার সার্কেলের এএসপি আশরাফুল ইসলাম জুন মাসে কুলাউড়া থানায় মামলা ও জিডি করতে আসা আইনী সহায়তা চাওয়া বিভিন্ন লোকদের লিখিত বক্তব্য গ্রহন করেন। এসব বক্তব্যে ওসির দোষ ও সাধারণ মানুষের কোন হয়রানীর কথা উঠে আসেনি বলে জানান পুলিশের এক সিনিয়র কর্মকর্তা। পরে থানা পুলিশের ওসির রুমে পুলিশ, জনপ্রতিনিধি ও সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় কালে সবার সাথে মিলে মিশে কাজ করার পরামর্শ দেন কুলাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মতিয়ার রহমানকে। থানায় আসা আইনী সহায়তা চাওয়া লোকদের সাথে ভাল ব্যবহার করার পরামর্শ দেন তিনি। এ সময় পৌর মেয়র কামাল আহমদ জুনেদ, ওসি তদন্ত সাইফুল আলম, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন-সম্পাদক ও ০৬নং কাদিপুর ইউপি চেয়ারম্যান শফি আহমদ সলমান, ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ, অধ্যাপক মো: শাহাজান, সাংবাদিক চৌধুরী আবু সাইদ ফুয়াদ, সাংবাদিক এমমাদুর রহমান চৌধুরী জিয়া উপস্থিত ছিলেন। কুলাউড়া থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ মতিয়ার রহমান জানান, আমি আসার পর থেকে থানা দালালমুক্ত করা, হাজত থেকে কোন আসামীকে মুক্তি না দেওয়া, জামায়াত শিবিরের কোন তদবির না শুনাসহ বিভিন্ন কারণে এবং আমি আসার পর ৫মাস ১৪দিনে ২৩জন জামায়াত শিবিরের জেলার শীর্ষ পর্যায়ের নেতা সহ ৮৭ জন জামায়াত শিবির, ১৪ জন পেশাদার মাদক ব্যবসায়ীসহ মোট ৩১৬জন আসামী আটক করি। এসব আসামী আটকের পর থানায় আটক বানিজ্যের সুযোগ না দেওয়ায় অনেকেই আমার উপর ক্ষিপ্ত।