মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কমলগঞ্জের বীর মাতা বীরাঙ্গনা প্রভাসিনী মালাকারকে সম্মাননা ও আর্থিক সহায়তা দিল ঢাকা ধানমন্ডী ক্লাব



Image বিকুল চক্রবর্ত্তী॥
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার মুন্সিবার ইউনিয়নের মীর্জা নগর গ্রামের বীর মাতা প্রবাসিনী মালাকার প্রভাকে সম্মাননা দিয়েছে ঢাকা ধানমন্ডী ক্লাব। এ সময় তারা তাকে নগদ ৫০ হাজার টাকা আর্থিক সহায়তাও করেন। ৩০মে বৃহস্পতিবার রাতে ঢাকা ফার্মগেটে কৃষিবিদ ইষ্টিটিউট মিলনায়তনে এর ১৬তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকিতে তাকে সহ আরো ৪ জন মুক্তিযোদ্ধাকে এ সম্মাননা দেয়া হয়। অনুষ্টানে প্রধান অতিথি ছিলেন ঢাকা সিটি (দক্ষিন) এর নব নির্বাচিত মেয়র সাইদ খোকন, বিশেষ অতিতি ছিলেন ব্যারিষ্টার শেখ ফজলে নুর তাপস এমপি, দেশের বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যাক্তিত্ব মুক্তিযোদ্ধা আলী জাকের। ক্লাবের সভাপতি মো. শফিকুল আলম ফিরোজ এর সভাপতিত্বে সংগঠনের কার্যক্রম বিষয়ে স্বাগত বক্তব্যদেন ধানমন্ডী ক্লাবের ১৬তম প্রতিষ্টাবার্ষিকি উদযাপন পরিষদের আহবায়ক তপন কান্তি সরকার। এ ছাড়াও অনুষ্টানে দেশের অন্যতম মিডিয়া ব্যাক্তিত্ব ভোরের কাগজ সম্পাদক শ্যামলদত্ত, মুক্তিযুদ্ধ যাদুঘরের টাষ্টি মফিদুল হক সহ দেশের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ব্যাক্তিত্ব এবং ধানমন্ডী ক্লাবের কয়েকশত সদস্য ও তাদের পরিবার পরিজন উপস্থিত ছিলেন।১৬তম প্রতিষ্টা বার্ষিকিতে তাদরে ব্যাতিক্রমী কর্মযোগ্যের মধ্যে ছিল মুক্তিযুদ্ধ যাদুঘরকে দেশের স্বাধীনতার স্মৃতি ধরে রাখার জন্য সম্মাননা প্রদান ও তাদরে কর্মকান্ডে সহায়তার জন্য আড়াই লক্ষ টাকা অনুদান। একই সাথে মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার মুন্সিবাজার ইউনিয়নের মীর্জানগর গ্রামের অসহায় বীর মাতা প্রভাসিনী মালাকার প্রভাকে নগদ ৫০ হাজার টাকা সহায়তা ও তাকে সম্মাননা প্রদান। এ ছাড়াও তারা ধানমন্ডী এলাকার বাসিন্দা একজন বীর মুক্তিযোদ্ধাসহ দেশের আরো প্রায় ৪জন বিশেষ অবদানকৃত অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মাননা ও আর্থিক সহায়তা প্রদান করেন। এসময় তাদের ক্লাবের দুজন সদস্য দেশের শীষ ব্যবসায়ী সংগঠন এফবিসিসিআই এর প্রতিনিধি নির্বাচিত হওয়ায় তাদের সম্মাননা দেন। সম্মাননা দেন তাদের ক্লাবের সদস্য ও স্থানীয় সংসদ সদস্য ব্যারিষ্টার শেখ ফজলে নুর তাপস এমপিকে এবং নব নির্বাচিত মেয়র তারুণ্যদীপ্ত সাইদ খোকনকে। ১৬ বছর আগে ঢাকার অন্যতম বসতি ধানমন্ডীবাসীকে নিয়ে  সাবেক অর্থমন্ত্রী অর্থনীতিবিদ প্রয়াত শাহ এ এম এস কিবরীয়া প্রতিষ্টা করেন ধানমন্ডী ক্লাব। কালের পরিক্রমায় আজ শাহ এ এম এস কিবরীয়া নেই, কিন্তু তার গড়া প্রতিষ্টানটি বর্তমানে ষোড়শী, সু-যৌবনা সাথে রুপ রস ও যশসী। তার কর্মে  আজ সে প্রস্ফুটিত বলা চলে সু-হৃদয়া, স্বাধীনতাসেবী, দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ ও মানব প্রেমেব্রত একটি সংগঠন। যার যাত্রা শুধুই অগ্রগামী।  অনুষ্টানের ২য় পর্বে ক্লাবের বার্ষিক বিভিন্ন আনন্দ অনুষ্টানে বিজয়ী ক্লাব সদস্যদের পুরস্কার তুলেদেন অতিথিরা। পুরস্কার বিতরণ শেষে আগত অতিথি ও ক্লাব সদস্যদের বিনোদনের খোড়াক যোগাতে আয়োজন করা হয় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্টানের। সাংস্কৃতিক অনুষ্টানে বিশিষ্ট সংগীত শিল্পী আঁখি আলমগীরসহ দেশের খ্যাতনামা শিল্পীরা সংগীত পরিবেশন করেন।  এ ছাড়াও ক্লাবের কার্যক্রম ও মুক্তিযুদ্ধ যাদুঘরের সদস্যপ্রাপ্তির ফ্রমসহ একটি বিশেষ স্মরনিকাও প্রকাশ করা হয়। পরে সকল অতিথিদের সম্মানে আয়োজন করা হয় নৈশ্যভোজ।