শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন বাড়ছে



3

কমলকুঁড়ি ডেস্ক ।।

সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন বাড়ছে। দ্বিগুণ বাড়ানোর কথা বলা হলেও বাড়তি বেতন হিসেবে একজন অফিস সহায়কের (পিয়ন) পকেটে যাবে মাত্র ১ হাজার ৩২০ থেকে ২ হাজার ৬৫০ টাকা। এই বৃদ্ধি শতাংশের হিসেবে দাঁড়ায় ১৯ দশমিক ০৪ থেকে ৪৭ দশমিক ৩২ শতাংশ।  আর প্রশাসনের সর্বোচ্চ পদে বেতন বাড়ছে ৬৩ শতাংশ। অথচ বেতন দ্বিগুণ বৃদ্ধির আলোচনায় এখনই ব্যবসায়ীরা গোঁফে তা দিচ্ছেন বলে মনে করছেন সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। আর এতে বিরুপ প্রভাব পড়বে সরকারের নিম্ন পদের কর্মচারিদের ওপরই। একই সঙ্গে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির ঘটনা ঘটলে বেকায়দায় পড়বেন সাধারণ চাকুরেরা। এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ সচিবালয় কর্মচারী সংযুক্ত পরিষদের সভাপতি মো. নিজামুল ইসলাম মিলন বলেন এমন অবস্থায় প্রস্তাবিত বেতন কাঠামোতে সিলেকশন গ্রেড ও টাইম স্কেল রহিত করা হলে লাভের চেয়ে ক্ষতিই বেশি হবে। বর্তমানে প্রশাসনের সর্বোচ্চ পদ সচিবের বেতন ৪০ হাজার (শুধু কেবিনেট সচিবের বেতন ৪৫ হাজার) টাকা।  সচিবের বেতন বাড়িয়ে প্রস্তাব করা হয়েছে ৭৫ হাজার টাকা করার। অর্থাৎ বাড়ছে ৩৫ হাজার টাকা। যা শতাংশে দাঁড়ায় ৬৩।  বর্তমানে ২০ নম্বর গ্রেডের মূল স্কেল ৪ হাজার ১০০ টাকা। মহার্ঘভাতা কার্যকর রয়েছে ২০১৩ সাল থেকে। এই মহার্ঘভাতা সর্বনিম্ন দেড়  হাজার টাকা, আর সর্বোচ্চ ৫ হাজার ৬০০ টাকা।

প্রশাসনের সর্বনিম্ন পদে প্রস্তাবিত গ্রেড অনুযায়ী বেতন ৮ হাজার ২৫০ টাকা। আর ২০ শতাংশ মহার্ঘভাতা যোগ করা হয়েছে। অর্থাৎ ৫ হাজার ৬০০ টাকা থেকে ৮ হাজার ২৫০ টাকা বেতন নির্ধারণ করা হলে বৃদ্ধির হার দাঁড়াবে সর্বোচ্চ ৪৭ দমশিক ৩২ শতাংশ।

কোনো কোনো ক্ষেত্রে এই বৃদ্ধির হার আরো কম। যে অফিস সহায়ক (পিয়ন) ৭ বছর চাকরি করেছেন, তিনি ইনক্রিমেন্টও পেয়েছেন ১৯০ টাকা হারে। আট বছর না হওয়ায় টাইমস্কেল পাননি। মহার্ঘভাতাসহ তার বর্তমান বেতন দাঁড়ায় ৬ হাজার ৯৩০ টাকা। তার বেতন ৮ হাজার ২৫০ করা হলেও তার বাড়ছে মাত্র ১ হাজার ৩২০ টাকা। শতাংশ হিসেবে এই বৃদ্ধি ১৯ দশমিক ০৪ শতাংশ।
দ্বিতীয় শ্রেণি ও তৃতীয় শ্রেণির চাকরিজীবীদেরও প্রায় একই অবস্থা বলে দাবি করেছেন সচিবালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। তাদের মতে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির প্রায় ৬০ শতাংশ ব্লক পদ রয়েছে, যাদের কোনো পদোন্নতি নেই। তাদের ভরসাই হচ্ছে টাইমস্কেল এবং সিলেকশন গ্রেড। পদোন্নতি ছাড়া সারা জীবন চাকরি করে যদি তারা এ দুটি থেকে বঞ্চিত হন, তাহলে এর চেয়ে দুঃখের কিছু থাকবে না।