বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেলপথ চালু হওয়ায় আনন্দের বন্যা



4কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ।।
এক যুগেরও বেশী সময় ধরে বন্ধ থাকা কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেলপথ চালুর লক্ষ্যে গত মঙ্গলবার (২৬মে) একনেকের বৈঠকে ৬৭৮ কোটি টাকার অনুমোদনের খবরে মৌলভীবাজারের কুলাউড়া, বড়লেখা, জুড়ী  ও সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার প্রায় দশ লক্ষাধিক মানুষের মাঝে আনন্দের বন্যা বইছে।   চার উপজেলা বিভিন্ন স্থানে প্রধানমন্ত্রী, স্থানীয় হুইপ শাহাব উদ্দিনকে অভিনন্দন জানিয়ে আনন্দ মিছিল ও মিষ্টি বিতরন করা হয়েছে।   সুত্র জানায়, কুলাউড়া থেকে শাহবাজপুর পর্যন্ত ৪২ কিলোমিটার দীর্ঘ লাইনে চলাচলকারী ট্রেনের নাম ছিল ‘লাতুর ট্রেন’। এক সময় এ রেল পথ দিয়ে ভারতে করিমগঞ্জ পর্যন্ত মালামাল বহন করা হতো। এ রেললাইনে শাহবাজপুর, মুড়াউল, বড়লেখা, কাঠালতলী, দক্ষিনভাগ ও জুড়ী ষ্টেশন ছিল।

২০০২ সালের ৭ জুলাই বিএনপি-জামাত জোট সরকার রেলপথে ঘন ঘন ট্রেন র্দূঘটনা কাঠের স্লিপার, সেতুসহ অন্যান্য যন্ত্রাংশ সংস্কারের অভাব, লোকসান সহ নানা কারণ দেখিয়ে লাতুর ট্রেনটি বন্ধ করে দেয়। ফলে ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষ পড়েন চরম বিপাকে, বেহাত হয়ে যায় রেলওয়ের ভূমি ও রেলপাত, ক্লিপ, নাট-বল্টু, পাথর চুরি হয়ে যায় কোটি কোটি টাকার সম্পদ।   এরপর রেলপথটির সংস্কারসহ ট্রেন চলাচল চালুর দাবিতে বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন বিভিন্ন আন্দোলন কর্মসূচী পালন করে। ২০১৩সালের ৯ নভেম্বর বড়লেখায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সফরে এলে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে সংসদ সদস্য মোঃ শাহাব উদ্দিন রেল লাইন চালুর দাবী জানান। শেখ হাসিনা তার বক্তব্যে রেল লাইন চালুর ঘোষনা দেন।   অবশেষে গত মঙ্গলবার (২৬মে) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে একনেকের বৈঠকে রেল লাইন চালুর জন্য ৬৭৮ কোটি টাকার অনুমোদন দেয়া হয়।  এ খবরে মৌলভীবাজারের কুলাউড়া, বড়লেখা, জুড়ী  ও সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার প্রায় দশ লক্ষাধিক মানুষের মাঝে আনন্দের বন্যা বইছে। এখন অপেক্ষর প্রহর গুনছেন কবে থেকে স্বপ্নে ট্রেন এ লাইনে আবার কবে চলবে।