মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দুটি দেশ পৃথক হলেও অন্তরে মনে প্রাণে এক অভিন্ন -কমলগঞ্জে ভারতীয় ডেপুটি হাই্ কমিশনার



কমলকুঁড়ি রিপোর্ট
বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় ডেপুটি হাই কমিশনার স্বন্দীপ চক্রবর্তী বলেছেন, বাংলাদেশ ভারত দুটি পৃথক দেশ হলেও অন্তরে মনে প্রাণে এক অভিন্ন। বাংলাদেশের মণিপুরী সম্প্রদায়ের সংস্কৃতির বিকাশে সহযোগিতা করে ভারত সরকার গর্বিত। মণিপুরী সংস্কৃতি কমপ্লেক্সে সু-ব্যবস্থা ও সুন্দরভাবে পরিচালনা করতে হবে। তাহলে ভবিষ্যতে বাংলাদেশের মণিপুরী সম্প্রদায়ের সংস্কৃতি চর্চায় ভারতীয় খ্যাতিমান প্রশিক্ষক এনে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। শনিবার ( ৩ জানুয়ারী) সকাল সাড়ে ১০ টায় মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের নয়াপত্তন গ্রামে নির্মিত মণিপুরী কালচ্যারাল কমপ্লেক্সের উদ্বোধন উপলক্ষে মৈতৈ মণিপুরী সম্প্রদায় আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।
রেলপথ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব শশি মোহন সিংহের সভাপতিত্বে ও কল্যাণ সিংহের সঞ্চালনায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় ডেপুটি হাইকমিশনার স্বন্দীপ চক্রবর্তী। অনুষ্টানে বিশেষ অতিথি ছিলেন আদমপুর ইউ.পি চেয়ারম্যান সাব্বির আহমদ ভূইয়া,মনিপুরী আদিবাসী ফোরামের সভাপতি আব্দুল মজিদ চৌধুরী ও মনিপুরী সাংস্কৃতিক পরিষদের সভাপতি চন্দ্রকীর্তি সিংহ। প্রধান অতিথি অনুষ্ঠান স্থলে এসে পৌছলে ঐতিহ্যবাহী মৈতৈ মণিপুরী প্রথায় তাঁকে বরণ করে নেওয়া হয়।
জানা যায়, বাংলাদেশের মৈতৈ মণিপুরী সম্প্রদায়ের সংস্কৃতির উন্নয়নে ভারত সরকারের অর্থায়নে প্রায় ৪ কোটি টাকা ব্যায়ে গত বছর মণিপুরী কালচ্যারাল কমপ্লেক্স নির্মাণ কাজ শুরু হয়। শনিবার নির্মিত এ কমপ্লেক্সটি উদ্বোধন করেন ডেপুটি হাই কমিশনার স্বন্দীপ চক্রবর্তী। বেলা ১ ঘটিকায় ডেপুটি হাই কমিশনার কুলাউড়া উপজেলার বরমচালে তাঁর পূর্বপুরুষদের বাড়ি পরিদর্শনে যান।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বন্দীপ চক্রবর্তী বলেন, ভবিষ্যতে ভারতের মণিপুর রাজ্যের সাথে শিক্ষা সংস্কৃতি বিষয়ক আদান প্রদানের ক্ষেত্রে মনিপুরী কালচারেল কমপে¬ক্স ভবন সেতু বন্ধন হিসেবে কাজ করবে। অতিরিক্ত সচিব শশী কুমার সিংহ বলেন, মনিপুরীদের দীর্ঘদিনের স্বপ্ন লালনের বহিঃপ্রকাশ মনিপুরী কালচারেল কমপে¬ক্স ।এজন্য ভারত সরকার ও দুতাবাসের কাছে এদেশের মনিপুরী সম্প্রদায় কৃতজ্ঞ। মণিপুরী সাহিত্য সংস্কৃতি কৃষ্টি সংরক্ষণ ও লালন করতে এটি মুখ্য ভূমিকা রাখবে। মণিপুরী কালচারেল কমপ্লে¬ক্স আমাদের জাতীয় সম্পদ এটি সুষ্টভাবে পরিচালনার দ্বায়িত্ব আমাদের সকলের।