শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

লাল ফিতার দৌরাত্য বনাম প্রদেশিক সরকারে গুরুত্ব



-বশীর উদ্দীন আহমেদ

 

বাংলাদেশের আর্থসামাজিক প্রেক্ষাপটে লাল ফিতার দৌরাত্য কতটুকু তা’ বলাই বাহুল্য! জন্ম থেকে কবর পর্য্যন্ত আমাদের পুরো জিন্দেগী অদৃশ্য লাল ফিতায় বন্দি!! বার্থ সার্টিফিকেট নিতে যেমন চা-পানি লাগে ডেথ-সার্টিফিকেটেও লাগে! আর আবেদনকারি প্রবাসী হলেতো আর কোন কথাই নেই!!! নিজের বাস্তব অভিজ্ঞতা থেকেই মিছাল দেয়া যায়! সিলেট তাজপুর বর্তমান ওসমানি নগর হাসপাতালের সহকারি- সার্জন(মেডিক্যাল অফিসার)  আমার প্রয়াত শ্বশুড় ডাঃ মোহাম্মদ লুতফুর রহমান কর্মরত অবস্থায় ইন্তেকাল ফরমান। শ্বাসূড়ী (বর্তমানে লন্ডন প্রবাসীনি) পেনশন,গ্রাচুইটি,প্রভিডেন্ট ফান্ডসহ অন্যান্য পাওনা আদায়ে ব্যার্থ হয়ে অবশেষে দাদাল ধরেন! কারণ ফাইল সিলেট থেকে চট্টগ্রাম হয়ে ঢাকার মহাখালিস্থ মহাপরিদপ্তর হয়ে সচিবালয়ে আসতে হবে! এত লম্বা দৌড় কি কোন সদ্য বিধবার পক্ষে সম্ভব! দালাল সাহেব ভাল মানুষ ,তিনি বছর খানেক ঠেলে ফাইল ঢাকা পর্য্যন্ত ঠেলেছেন। কিন্তু ঢাকা এসে তিনি লাল ফিতার দৌরাত্যের কাছে অসহায় ফিল করছেন! অগত্যা অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র শ্যালক ইকবাল(বর্তমানে লন্নডন প্রাসী) ফাইল সহ হাজির!! আমি ১৯৮৮ সালের কথা বলছি! দেশ জুড়ে মহা প্লাবন! ঢাকার রাস্তায় নৌকা-ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্স!! ফাইল খুলে চক্ষু চড়ক গাছ!বিশাল অংক! যখন প্রতি থানায় এক জন তখন থেকেই আমার শ্বশুড় মেডিক্যাল অফিসার! এটাকায় তখনকার সময় ঢাকায় বা সিলেটে দুইটা বাসা কেনা যাবে! সূরা নিসা’র কথা কথা মনে পড়ল!! পিতার রেখে সম্পদে কন্যা পূত্রের অর্ধেক!! সম্ভবত এ’কারণেই ফাইল আমার কাছে আসতে এত দেরী! কথায় বলে যেখানে বাঘের ভয় সেখানেই রাত্রী হয়! সে আক এ’সব সর্বহারা পার্টির সদসিদের কাছে কোন বিষয় নয়! যাক পর দিন সকাল সকাল কল সবার প্রিয় আমার মুরব্বি তৎকালীন পূর্ত মন্ত্রী বঙ্গ বন্ধু পরিবারের সদস্য শেখ শহিদ সাহেবের  পিএস সরকারের ডেপুটি সেক্রটারী জনাব সৈয়দ আব্দুল মোক্তাদীর ভাইকে!(আমি তার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ূ কামনা করি)। নিয়ে গেলেন স্বাস্থ সচিব এবিএম গোলাম মোস্তফা মহোদয়ের দরবারে! লাল ফিতা খুলে গেল,অবিশ্বাশ্ব্য রকমের দ্রুত গতিতে কার্য্য সম্পাদন হুল! যদি প্রাদেশিক সরকার পদ্ধতি বহাল হত,যদি জালালাবাদ প্রদেশ বাস্তবায়ীত হত এ’সামান্য পেনশনের কাজটি স্থানীয় ভাবেই অনায়াসে এবং অল্পায়াসে সম্পাদন করা যেত।বেচে যেত সময় অর্থ এবং শ্রম! আমি ঢাকায় সিলেটের স্কুল কলেজের আমার শ্রদ্ধেয় শিক্ষকদের পেনশন বেনিফিট ইত্যাদীর জন্য অসহায় এতিমের মত ঘুরতে দেখেছি! অথচ পার্সেন্টেজের মায়া ছেড়ে প্রসাশন বিকেন্দীকরণ করলে দুর্দশা অনেকাংশে লাঘব হত।কাজের গতি বাড়ত। বেচে যেত অর্থ শ্রম ও লক্ষ-কোটি কর্ম ঘন্ঠা। বেচে যেত অসহায় মানুশ।

আমার এক ছোট ভাই ক্ষুদে সাংবাদিক! কমল গঞ্জ থেকে তৈমাসিক নাকি পাক্ষিক অনিয়মিত পত্রিকা বেক করে বলা যায় সৌখীন সাংবাদিক!মাত্র চার পৃস্টার এই সাময়িকির ডিক্লারেশন নিতে ঢাকা কি রকম ধর্ণা দিতে হয়েছে তার বর্ণা শুনলে গা শিউরে উঠবে! এই ক্ষমতাটা ডিসিকে দিলে কি মহা ভারত অশুদ্ধ হয়ে যাবে! লাল ফিতের দৌরাত্য ও গণ-মানুষের ভোগান্তির আমি ১০১ নজির উপস্থাপন করতে পারব। আমার এলাকার মেম্বার চেয়ারম্যান মহোদয়কে ফকিরাপুলের লাকি বোর্ডিং আর কাকরাইলের নীলিমায়! পারাবত হোটেলে দিনের পর দিন অবস্থান করতে দেখেছি। তারা ফাইলের পিছন্র দৌড়াচ্ছেন!২০ ফুট স্প্যান কাল্ভার্ত কিম্বা ১০ টন গমের বরাদ্দ! এককেন্দ্রিক প্রশাসন ও লাল ফিতার দৌরাত্যে উন্নয়ন ব্যাহত। মানুস অসহায়।রাজধানি ঢাকা বসবাসেরর অযোগ্য! যান-জটে নাকাল নগরবাসী! তাই আসুন আমরা দলমত নির্বিশেসে স্বদেশে বিদেশে প্রস্তাবিত জালালাবাদ প্রদেশ বাস্তবায়নের আন্দোলনে ঝাপিয়ে পড়ি। রাজধানী ঢাকাকে বিশ্বমানের নগর হিসেবে গড়ে তুলি! পরিবেশ বাচাই!সারা দেশে সুসম উন্নয়ন মফস্বলে কর্মচাঞ্চল্য সৃস্টিই হচ্ছে এক মাত্র পথ।আসুন জুরে সূরে আওয়াজ তুলি”আর কোন দাবি নাই,জালালাবাদ প্রদেশ চাই!!
বশীর উদ্দীন আহমেদ
আটলান্টা,জর্জিয়া!!