শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতির মৃত্যুতে সমালোচনা ও অামার মতামত




ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতির মৃত্যুতে সমালোচনা ও অামার মতামত

 গত ২৭ এপ্রিল ভারতের সাবেক রাস্ট্রপতি ড.এ পি জে আবদুল কালাম আজাদ মৃত্যুবরণ করেছিলেন। তার মৃত্যুতে শুধু তার দেশ নয়, পুরো বিশ্বেই শোকের ছায়া পড়েছে প্রকটভাবে।

বাংলাদেশের বড় বড় মানুষ থেকে শুরু করে অনেক সাধারণ মানুষ তার মৃত্যুতে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। একই সঙ্গে এটাও খেয়াল করলাম কতিপয় ফেসবুক মহাজ্ঞানী এই মহান মানুষটির মৃত্যুর দিনও তার সমালোচনা করতে কুন্ঠাবোধ করেননি।

তিনি কেন মিসাইল নিয়ে কাজ করলেন? কেন তিনি এই চুক্তি করলেন? কোন স্বার্থে তিনি মিসাইল নিয়ে এইভাবে কাজ করলেন? এগুলোই তাদের যুক্তি। বাংলাদেশের মানুষ হয়ে কেন ভারতের সাবেক রাস্ট্রপতির মৃত্যুতে কেন এত কষ্ট পাচ্ছে সেটা নিয়েও তাদের অভিযোগ।

এটা ধরেই নেয়া যায় তাদের ড. কালাম সম্পর্কে এমন কোনো ধারণা নেই। এই মানুষটি তার সময়ের সেরা একজন বিজ্ঞানী ছিলেন, অসাধারণ একজন শিক্ষক ছিলেন, একটি দেশের রাস্ট্রপতি ছিলেন…..এভাবে আরো অনেক কিছু বলা যায়। তিনি আমার কাছে বা আমার মতো অনেক তরুণদের হৃদয়ে আজীবন বেঁচে থাকবেন..তার নিজেরই রচিত “উইংস অব ফায়ার” বইটির মাধ্যমে।

একজন মানুষ জীবনকে কতটুকু পজেটিভভাবে দেখতে পারেন তা এই বই না পড়লে বুঝতাম না। একজন মানুষ বিজ্ঞানের আধুনিকতম একটি শাখায় মহারথী হয়েও কিভাবে সৃষ্টিকর্তার এতো কাছে থাকতে পারেন, কিভাবে নিজের বিজ্ঞানী সত্ত্বা ছাপিয়ে মানবজীবনকে এতো গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করতে পারেন? কিভাবে?

‘উইংস অব ফায়ার’ বইটির ভূমিকায় বইটির প্রিফেস-এ বইটির কো-অথর বলেছেন, আপনারা অনেকেই হয়তো ড. কালাম এর সাথে সরাসরি সাক্ষাৎ করতে পারবেন না। কিন্তু এই বইটি পড়লে আপনারা তাকে চিনতে পারবেন এবং তিনি আপনার আধ্যাত্মিক বন্ধুতে পরিণত হবেন।

এজন্যই ড.কালাম এর মৃত্যুতে আমরা শোকাহত হই, হে ফেসবুক মহাজ্ঞানীরা। কারণ তিনি আমাদের আধ্যাত্মিক বন্ধু। জীবনের কঠিন সব বাস্তবতা ও পরিস্থিতিতে তার কথাগুলো আমাদের অনুপ্রেরণা দেয়।
মিসাইল নিয়ে যাদের সমস্যা আছে তারা উত্তর ড. কালাম এর বইয়ের ভূমিকা থেকেও নিতে পারেন,
‘Each individual creature on this beautiful planet is created by God to fulfil a particular role. Whatever I have achieved in life is through His help, and an expression of His will. He showered His grace on me through some outstanding teachers and colleagues, and when I pay my tributes to these fine persons, I am merely praising His glory. All these rockets and missiles are His work through a small person called Kalam, in order to tell the several-million mass of India, to never feel small or helpless. We are all born with a divine fire in us. Our efforts should be to give wings to this fire and fill the world with the glow of its goodness.’

অবশ্য ড. কালামের এইসব সমালোচকদের একটা সমস্যা আছে। তারা সেটা সরাসরি উচ্চারণ করতে চান না। ড. কালাম জায়ান্ট সায়েন্টিস্ট ছিলেন তারপরও তিনি সবকিছুর উপর রেখেছিলেন আধ্যাত্মিকতা ও সৃষ্টিকর্তাকে।

বাংলাদেশি অবিশ্বাসী ও বিজ্ঞানের সোল এজেন্ট দাবি করা মহাজ্ঞানীদের ড. এপিজে আবদুল কালাম আজাদকে পছন্দ না করতেই পারেন। তাহলে বলব ‘ইউ উইল বি গ্রেটলি মিসড স্যার’।

সূত্র: বিডিলাইভ