বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কমলগঞ্জে হরিণ জবাই করে মাংস ভাগাভাগি



কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ॥
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান থেকে লোকালয়ে বেরিয়ে আসা ১টি হরিণ জবাই করে মাংস ভাগাভাগি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গ্রামবাসী ও ইউপি সদস্যের উপস্থিতিতে কমলগঞ্জ থানার এক উপ-পরিদর্শক জবাইকৃত হরিণের কিছু মাংস উদ্ধার করে জব্দ করেছে। শনিবার (৬ জুন) সকাল ৭ টায় মাধবপুর ইউনিয়নের টিলাগাঁও গ্রামে ঘটনাটি ঘটে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন গ্রামবাসী জানান, উপ পরিদর্শক আব্দুল আজিজ স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল আহাদ ও লিকন মিয়াকে স্বাক্ষী রেখে এক কেজি পরিমাণ হরিনেল মাংস উদ্ধার করে থানায় নিয়ে গেছেন। পরে কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: এনামুল হকের কাছে সংবাদকর্মীরা হরিণের মাংস উদ্ধারের তথ্য জানতে চাইলে তিনিও এ বিসয়টি জানেন না বরে জানান। বিষয়টি নিয়ে সংবাদকর্মীরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে কয়েক দফা কথা বললে থানা কর্তৃপক্ষ প্রথমে মাংস উদ্ধার হয়নি বলে জানান। পরে নির্বাহী কর্মকর্তার জোর চাপে পড়ে উপ পরিদর্শক সামান্য কাটা মাংস উদ্ধারের সত্যতা স্বীকার করে সেগুলো নিয়ে বেলা আড়াইটায় নির্বাহী কর্মকর্তার অফিসে আসেন। তবে শনিবার বেলা তিনটায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে উপ-পরিদর্শক একটি পরিত্যক্ত স্থান থেকে মাংস উদ্দারের সত্যতা স্বীকার করেন।
কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম মিঞা হরিণ জবাই করে মাংস ভাগাভাগি ও সামান্য মাংস জব্দের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তাও সম্ভব হয়েছে সংবাদকর্মীদের সহায়তায়। এখন জব্দকৃত হরিণের মাংস পশু জবাই ও নিয়ন্ত্রণ আইন ২০১১ এর ২২ ধারায় তা বিনষ্ট করে মাটির গের্ত পুতে ফেলা হবে। এজন্য রাজকান্দি বনরেঞ্জ কর্মকর্তা মালেকুজ্জামানকে দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে। এ দিকে লাউয়াছড়া বনবিট কর্মকর্তা (বন্যপ্রাণী) মনিরুল ইসলামও জানান, হরিণের মাংস উদ্ধারের বিষয়টি প্রাথমিকভাবে থানার পুলিশ অস্বীকার করেছেন।
বাংলাদেশ পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন (বাপা) সিলেট শাখার সম্পাদক আব্দুল করিম বলেন, বন্যপ্রাণী শিকার ও জবাই করা দন্ডনীয় অপরাধ। আর শনিবারের কমলগঞ্জে হরিণ ধরে জবাই করার বিষয়টিতে পুলিশের দায়িত্বহীনতার পরিচয় পাওয়া যায়। এ জন্য পুলিশ উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ তদন্তক্রমে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা উচিত। তা হলে ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা ঘটবে না। উল্লেখ্য, কমলগঞ্জে নিয়মিত বনের হরিণ শিকার করে জবাই করার মত ঘটনা ঘটলেও বন বিভাগ ও পুলিশ প্রশাসন নিরব ভূমিকা পালন করেন।