শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নেপালে ভূমিকম্প ।। ৮০ লাখের উপরে মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত ।। মৃত্যুর সংখ্যা প্রায় সাড়ে ৪ হাজার



30

কমলকুঁড়ি ডেস্ক রিপোর্ট ।।

শনিবারে স্মরণকালে ভয়াভহ ভূমিকম্পে নেপালে ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। এ পর্যন্ত মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে সাড়ে ৪ হাজারের উপরে। ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সংখ্যা প্রায় ৮০ লাখের উপরে।  আহত প্রায় সাড়ে সাত হাজারের বেশি। বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের বরাতে জানা যাচ্ছে মধ্যরাতের পর থেকে দেশটিতে এখন পর্যন্ত চারটি আফটারশক আঘাত হেনেছে। সর্বশেষ আফটারশকটি হয়েছে আজ ভোরে। লাখ লাখ মানুষ আরও একটি রাত খোলা আকাশের নিচে রাত কাটিয়েছে। দেশটিতে ব্যাপকভিত্তিক আন্তর্জাতিক উদ্ধার অভিযান চলছে। সরকার বলছে, সেখানে চিকিৎসক, কম্বল, বিদ্যুৎ, গাড়িচালক সবকিছুর অভাব দেখা দিয়েছে। আশঙ্কা করা হচ্ছে রোগবালাই ছড়িয়ে পড়ার। বর্ষা মৌসুম চলে আসার আগেই ক্ষতিগ্রস্তদের আশ্রয় দেবার প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করেছেন একটি দাতব্য সংস্থার মুখপাত্র। নেপালের সেনা ও পুলিশ বাহিনীর প্রায় পুরোটাই উদ্ধার তৎপরতায় নিয়োগ করা হয়েছে। উদ্ধার কাজে যোগ দিয়েছেন, নেপালের সেনা ও পুলিশের প্রায় সব সদস্য। এছাড়া, এভারেস্টে আটকে পড়া দুশ’ অভিযাত্রীকেও জীবিত ফিরিয়ে আনা সম্ভব হয়েছে। ভয়াবহ এই প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় বাংলাদেশ, চীন, ভারত, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্যসহ বেশ কিছু দেশ ত্রাণ পাঠিয়েছে। তবে, আন্তর্জাতিক মহলকে আরো সহায়তা পাঠানোর আহ্বান জানিয়েছে নেপাল।

ভূমিকম্পের তাণ্ডবে ধ্বংসস্তুপ নেপাল। এর মাঝেও দুদিন পর ধ্বংসস্তুপ থেকে উদ্ধার করা হয় জীবিত একজনকে। যেন মৃত্যুকে ফাঁকি দিয়ে জীবনের আলো পেলেন কাঠমান্ডুর এই বাসিন্দা।
এখন পর্যন্ত রাজধানী কাঠমান্ডুতে ইট-পাথরের ধ্বসংস্তুপ সরাতেই ব্যস্ত, উদ্ধারকারী দল।

সোমবার সন্ধ্যায় ভারত নেপাল সীমান্তে ৫ মাত্রার ভূমিকম্পের পর বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা বাড়ছেই। কলোরাডো বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষকের হিসেবে, ভারতের সঞ্চারনশীল ও পরিবর্তনযোগ্য ভূ-ত্বকের বিশাল খণ্ড বা টেকটোনিক প্লেটের অ্যালাইমেন্টে পরিবর্তনের জন্যই এই ভূমিকম্প। মধ্য এশীয় টেকটোনিক প্লেটও এই প্লেটের সাথে মিশেছে সিকিম থেকে নাগাল্যান্ড পয়েন্টে। এই সংযোগস্থলে ভারতীয় প্লেটটি মধ্য এশীয় প্লেটের নিচ দিয়ে চলে গেছে। ফলে এ অংশটি আরো ঝুঁকিপূর্ণ। গবেষকেরা বলছেন, এরপর যেখান থেকে ভূমিকম্পের উৎপত্তি হবে তার মধ্যে রয়েছে সিকিম, ভূটান, আসাম, লাগাল্যান্ড ও সিলেট। এই লাইনের যে কোন স্থান ভূমিকম্পের কেন্দ্র হলে নেপালের মতো ভয়াব্হ ধ্বংসযজ্ঞ ও প্রাণহানি ঘটবে এসব জায়গায়ও।