রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪ খ্রীষ্টাব্দ | ১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

খাড়িয়া ভাষা জানা দু’বোনের সন্ধান!



কমলকুঁড়ি প্রতিবেদক :

বাংলাদেশে ৪৩টি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর নিজস্ব ভাষার অস্তিত্ব রয়েছে। তার মধ্যে অতি বিপন্ন এক মাতৃভাষা ‘খাড়িয়া’।
এই মাতৃভাষাটি এখন টিকে আছে মাত্র দুই মানুষের কাছে।

শ্রীমঙ্গল উপজেলার বর্মাছড়া চাবাগানের শ্রমিক দু’বোন ভেরোনিকা ও খ্রিস্টিনা। তাদের পরিবারের সদস্যরাও নিজ ভাষা মাতৃভাষা খাড়িয়া ভাষা জানেন না। বেঁচে থাকা সত্তরোর্ধ্ব দুই বোনের মৃত্যু হলে বাংলাদেশ থেকে হারিয়ে যাবে এই ভাষা। বন্ধ হয়ে যাবে একটি সভ্যতা, সাংস্কৃতিক সম্পদের প্রবেশ পথ।
বহু ভাষাভাষীর মানুষে সমৃদ্ধ চা শিল্পাঞ্চলে বেশ কয়েকটি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী রয়েছেন যারা নিজেদের ভাষা ছাড়া অন্য ভাষায় বলতে, লিখতে বা পড়তে পারেন না। চাবাগান শ্রমিকদের তেমনি এক জাতিসত্তা হলো ‘খাড়িয়া’। ঐতিহ্যগতভাবে তাদের ভাষার নাম ‘খাড়িয়া ভাষা’। এক সময় এই ভাষায় কথা বলতেন বহু খাড়িয়া শ্রমিক। কিন্তু কালের বিবর্তনে ভাষাটি হারিয়ে যেতে বসেছে।
পাঁচ বছর আগে খাড়িয়া ভাষায় কথা বলতেন ভেরোনিকা কেরকেটা, তার স্বামী আব্রাহাম সোরেং ও ছোট বোন খ্রিস্টিনা কেরকেটা। তবে অসুস্থ হয়ে ২০১৯ সালে মারা যান আব্রাহাম সোরেং। ভেরোনিকা কেরকেটা বলেন, ভাষাটি নিয়ে টিকে আছি আমি ও আমার ছোট বোন। তার সঙ্গে মাঝে-মধ্যে দেখা হলে নিজেদের খাড়িয়া ভাষায় কথা বলি। আমাদের ছেলে-মেয়ে, নাতি-নাতনিরা কেউ কেউ দুই-একটি ভাষা জানে মাত্র। পুরো ভাষা জানে না। ফলে তাদের সঙ্গে কথা বলা যায় না। শেষ বয়সে এসে মনে চায় নিজেদের ভাষায় প্রাণ খুলে কথা বলি। তবে আর কেউ খাড়িয়া না জানা, না বোঝায় প্রাণ খুলে গল্প করা সম্ভব হয় না। #