শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আহমদ জে সোহানের একাদশ মৃত্যুবার্ষিকী পালিত।



শেখ শফিকুর রহমান, নিউইয়র্ক


নিউইয়র্ক শহরের বিশিষ্ঠ সামাজিক ব্যক্তিত্ব সিরাজ উদ্দিন আহমদ সোহাগের একমাত্র ছেলে ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রহিম বাদশার ভাগ্নে মরহুম আহমদ জে সোহানের একাদশ তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত হয়েছে ৫ই সেপ্টেম্বর রবিবার। এ উপলক্ষে মরহুম আহমদ জে সোহানের নামে প্রতিষ্ঠিত কুলাউড়ার আহমদ জে সোহান সোনালী হাইস্কুলে দোয়া মাহফিল ও পারিবারিক ভাবে নিউইয়র্ক ও কুলাউড়ার বাড়ীতে দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে মরহুমের জন্য মাগফেরাত কামনা করা হয়। মরহুম আহমদ জে সোহানের পিতা সিরাজ উদ্দিন আহমদ সোহাগ তার মরহুম ছেলের জন্য সবার কাছে দোয়া কামনা করেছেন। এদিকে মরহুম আহমদ জে সোহানের মা জাহানারা লক্ষ্মী তার একমাত্র হারানো ছেলের স্মৃতিচারন করে ফেইসবুক স্ট্রাস্টাস দিয়ে লেখেন- আমার পরম আরাধনা তুষ্ট করে ১৯৯২ সালের ২৬ শে ফেব্রুয়ারী পৃথিবীতে জন্ম নিয়েছিলে তুমি। তোমার দেহ সৌষ্ঠব বলে দেয় বেঁচে থাকলে তুমি হতে আজ সুগঠিত গড়নের ৩০ বছরের অতি সুদর্শন এক পুরুষ। কিন্তু, এ সুযোগ আর পেলে না। ১৮ তে পা দিতে না দিতেই তোমার চরম ব্যথিত পরম পিতা-মাতা সহ অসংখ্য গুণগ্রাহীর কোমল হৃদয়ে এক পর্বত ব্যথার বোঝা চাপিয়ে দিয়ে চিরতরে না ফেরার দেশে চলে গেলে তুমি। দিনটি ছিল ৬ ই সেপ্টেম্বর মোতাবেক ২৭ রমজান। যখনই তোমার মননশীলতা ও কর্ম থেকে ফিনকি দিয়ে আলোকছটা বিচ্ছুরিত হতে শুরু করেছিল, ঠিক তখনই তোমার বিদায়ের ঘন্টা যেন বেজে উঠল।
২০১০ সালের আজকের এই দিনে আমার জীবন আকাশের ধ্রুব তারা তুমি আমাদেরকে মাঝ দরিয়ায় অনেকটা দিশেহারা করে আকস্মিক পরপারে পাড়ি জমালে।
তোমার আকস্মিক প্রয়াণে সকলেই ব্যথা পেয়েছেন, ব্যথা পেয়েছেন তোমার বন্ধু, স্বজন-প্রিয়জন। কিন্তু, পৃথিবীর সকল ব্যথা সমবেত হয়ে যাদের হৃদয়ে নিশিদিন অসহনীয় এক যন্ত্রণার উদ্রেক করেই চলছে, তারা তোমার পরম প্রিয় আব্বু-আম্মু ও একমাত্র স্নেহের বোন প্রীতি।
তোমাকে হারানোর দিন থেকে কোনো না কোনো উপায়ে যতবারই তোমাকে হারানোর ব্যথা ভুলতে চেয়েছি, ততোবারই আমার মনে জমে থাকা অব্যক্ত কষ্টগুলো দুঃখের ভিসুভিয়াস হয়ে কাঁপা কণ্ঠ ও চোখের জলে জ্বলন্ত আগ্নেয়গিরির হয়ে বেরিয়ে এসেছে।
এখনো তোমার কথা স্মরণে এলে মনের গভীরে জমাটবদ্ধ বেদনার রক্তপ্রবাহ শ্রাবণের অঝোর ধারার বৃষ্টির মতো দু’চোখ বেয়ে গড়িয়ে পড়ে।
সেই শৈশব, কৈশোর পেরিয়ে নবীন যৌবনে উপনীত হওয়া পর্যন্ত তোমার দেহে সামান্য বালুকণার আঁচড় আঘাত করবে ভেবে বুকের পাঁজরে জড়িয়ে আগলে রাখতাম তোমায়। কিন্তু সে বাঁধন একদিন ছিন্ন করে আমাকে অসীম দুঃখের সাগরে ভাসিয়ে তুমি চলে গেলে অতি অজানা এক জগতে।
আজ এই তীব্র কষ্ট জাগানিয়া মুহূর্তে খুব জানতে ইচ্চে করে বাবা, তুমি ওপারে কেমন আছ!
তোমার শৈশব কৈশোরের স্মৃতিগুলো যখন চোখে ভাসে, শিমুল ফুলের মতো কোমল তোমার পরশ অনুভব করি,তখনই পারস্য বুলবুল কবি হাফিজের মতো পরম স্রষ্টার উদ্দেশ্যে এই বলে তোমাকে স্মরণ করি-
‘সোনার তাবিজ রূপার সেলেট
মানাতো না বুকেরে যার,
পাথর চাপা দিলে বিধি
হায়, কবর শিহরে তার।’
তুমি যেখানেই থেকো, ভালো থেকো। তোমার দুঃখিনী মা তোমার ভালো থাকার জন্য মহান আল্লাহ পাকের দরবারে নিরন্তর প্রার্থনা করছি।
পরম করুণাময় যেন তোমাকে জান্নাতুল ফেরদৌসের বাসিন্দা করে নিন।
আ-মীন!