শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পাত্রখোলা চা বাগানে কয়েকদিন পর পর সংঘর্ষ, নিরসনে বাস্তবমুখী পদক্ষেপ প্রয়োজন



কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলা ৮নং মাধবপুর ইউনিয়নের পাত্রখোলা চা বাগানে কয়েকদিন পর পর দু গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। তা নিরসনের জন্য বাস্তবমুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করা প্রয়োজন। যে কোন বিষয় নিয়ে সংঘর্ষ বেধে উভয় পক্ষই আহত হন। পূর্বেও এভাবে সংঘর্ষ হয়। এতে করে বাগান বন্ধ হওয়ায় চা শিল্পের উপর প্রভাব পড়ে। বিষয়টি নিয়ে বাগান কর্তৃপক্ষ, জনপ্রতিনিধি, বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়ন, প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সম্মিলিতভাবে কঠোর ও বাস্তবমুখী পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন বলে সচেতন মহল মনে করেন।

মঙ্গলবার যে ঘটনা ঘটে :

কমলগঞ্জের পাত্রখোলা চা বাগানে আধিপত্য বিস্তারের জের ধরে দু’পক্ষের দু’দফা সংঘর্ষে নারীসহ ছয়জন আহত হয়েছেন। আহতদের কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, মৌলভীবাজার জেলা সদর ও সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজে ভর্তি করা হয়েছে। গত সোমবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। পরদিন মঙ্গলবার সকাল থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত চা বাগানে কাজ বন্ধ রাখেন চা শ্রমিকরা। এ সময় বাগানের কারখানার প্রধান ফটকের সামনে বিক্ষোভ করে চা শ্রমিকদের একাংশ।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ন্যাশনাল টি কোম্পানির (এনটিসি) মালিকানাধীন পাত্রখোলা চা বাগান পঞ্চায়েত কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক শ্রমিক সর্দার মোবারক হোসেন ও বর্তমান কমিটির সভাপতি দেবাশীষ চক্রবর্তী শিপনের মধ্যে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছে। এরই জের ধরে সোমবার রাতে দুই দফা সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় বাগানের পোস্ট অফিস লাইন এলাকার মোবারক হোসেন, তার স্ত্রী আছমা বেগম, মেয়ে লুৎফুন্নাহার আঁখি ও চা শ্রমিক জীবন উরাং আহত হন। দ্বিতীয় দফায় বাজার লাইনে সংঘর্ষে কিষান অলমিক ও মধু কর্মকার আহত হন।\হচা বাগানের ব্যবস্থাপক শামসুল ইসলাম সেলিম জানান, এটা তাদের দীর্ঘদিনের সমস্যা। কিছুদিন আগেও এ ধরনের ঘটনা ঘটে। বৃহস্পতিবার উভয় পক্ষকে নিয়ে বৈঠকে ঘটনাটির সমাধান করা হবে।