শনিবার, ৬ মার্চ ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ২২ ফাল্গুন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মহেশ ভট্টাচার্যের সম্পত্তি রক্ষার জন্য প্রধান মন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ



 

মতি লাল দেব রায়

বাংলাদেশের ব্রাহ্মণ বাড়িয়া জেলার অন্তর্গত নবীনগর উপজেলার বিটঘর গ্রামের স্বর্গীয় মহেশ ভট্টাচার্যের সম্পত্তিকে সরকারি খাস জমি হিসাবে রেকর্ড করা হয়েছে যা ছিল সম্পূর্ণ বে আইনি , কি করে একজন জেলা প্রশাশক একটি ট্রাস্টি বোর্ড থাকা সত্বেও তাদেরকে না জানিয়ে উপরোক্ত সম্পত্তি খাস ভুমি হিসাবে নথিভুক্ত করলেন তা খোজে বের করতে হবে , তার জন্য কাহারা দায়ী তাদের কে খুজে বের করা দরকার এবং কাদের প্ররোচনায়, কাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে মহেশ বাবুর রেখে যাওয়া সম্পত্তি খাস ভুমি হিসাবে রেকর্ড হয়েছে তাদের বিরুদ্বে আইনি ব্যেবস্তা নেওয়া খুব জরুরী । সরকারের গৃহ নির্মাণ প্রকল্প একটি গুরুত্ব পূর্ণ এবং জনপ্রিয় কর্মসূচি কিন্তু এই কর্মসূচিকে বিতর্কিত করার জন্য বিটঘর গ্রামে অ্যারো অনেক খাস ভুমি থাকা সত্বে ও কেন একটি ট্রাস্টি বোর্ড থাকা সত্বে ও ঐ জমির উপর গুছ গ্রাম তৈরি করার সিদ্দান্ত নিলেন তা খুজে বের করা দরকার, এই জায়গায় গুচ্ছ গ্রাম করার প্রস্তাব নিয়ে অবশ্যই উপজেলা পরিষদের সভায় আলোচনা হয়েছে সেখান থেকেই প্রস্তাব কারীর নাম জানা যাবে, তখনই বুজা যাবে এই প্রস্তাব কারীর কি উদেশ্য ছিল । জানা যায় যে প্রয়াত মহেশ ভটের বসত ভিটার ৭৪ শতাংশ জায়গায় ৩২ টি ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে যেখানে আশ্রয়হীনরা থাকবে । এই এলাকার সাধারন জনগন স্তানিয় সরকারের এই সিদ্বান্তের বিরুদ্বে মাঠে নেমেছে , তাহারা সমাবেশ করেছে, মিছিল করেছে, মানব বন্ধন করেছে । তাহাদের মানব বন্ধনের তিনটি স্লোগান আমার নিউ ইয়র্ক থেকে বসে ও দেখার সুভাগ্য হয়েছে তার একটি ছিল মহেশ বাবুর স্মৃতি রক্ষা করা হউক, রক্ষা করতে হবে, অন্য একটি স্লোগান ছিল মহেশ ভটের বুকে ছুরি চালাতে দিবনা, শেষ স্লোগানটি ছিল মমতাময়ি প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার সুদৃষ্টি চাই ।
মহেশচন্দ্র ভট্টাচার্য ১৮৫৮ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার বিটঘর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা ঈশ্বর ভট্টাচার্য ছিলেন একজন পণ্ডিত। তার মায়ের নাম রামমালা দেবী। দরিদ্রতার কারণে মহেশচন্দ্রের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা গ্রহন করা সম্ভব হয়নি,তবে তিনি নিজ বাড়িতেই লেখাপড়া করে স্বশিক্ষিত হয়েছিলেন।প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা না থাকা সত্বে ও তিনি বঙ্গ বিদ্যালয়ে কিছুদিন শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন।তাহাঁর প্রতিষ্ঠিত হোমিওপাথিক ঔষধ তৈরি কোম্পানি এম ভট্টাচার্যয় এন্ড কোম্পানি এখন ও দেশের হোমিওপাথিক চিকিৎসার ঔষধ সরবরাহ করে থাকে যাহার প্রধান কারয্যালয় রয়েছে কুমিল্লা শহরের কান্দিরপার এলাকায় যেখানে আরো রয়েছে ১৯৩৫ সালে প্রতিষ্ঠিত ঈশ্বর পাঠশালা,একই সালে প্রতিষ্ঠিত রাম মালা গ্রন্থাগার, মহেসাঙ্গন নিবেদিতা ছাত্রি নিবাস,নিবেদিতা বালিকা বিদ্যালয়,রাম মালা ছাত্রাবাস ।তা ছাড়া ও তার নিজ গ্রামে প্রতিষ্ঠা করেন শিক্ষা সংসদ। তিনি কাশীধামে প্রতিষ্ঠা করেন ঈশ্বর পাঠশালা টোল। তার প্রচেষ্টায় ১৯৩৫ সালে স্থাপিত হয় রামমালা রোড ও রামমালা ডাকঘর। গ্রামের লোকের পানীয় জলের অভাব দূরীকরণের জন্য নিজ গ্রামে একটি পুকুর খনন করেন। আজীবন সমাজ সেবক মহেশ ভট্টাচার্য বারানসীতে তার সহধর্মিণী হরসুন্দরী দেবীর নামে একটি ধর্মশালা প্রতিষ্ঠা করেন।মহেষ ভট্টাচর্যের সম্পত্তি দেখভালের জন্যে তিন সদস্যের একটি ট্রাস্টি বোর্ড আছে। এই বোর্ডের ম্যানেজিং ট্রাস্টি হচ্ছেন সাবেক এটর্নি জেনারেল নিখিলেশ দত্ত, স্বরূপ কান্তি দেব,অসীম দত্ত। এ ব্যাপারে যথাযত ব্যেবস্থা গ্রহনের জন্য মান নীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করছি ।