শনিবার, ৬ মার্চ ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ২২ ফাল্গুন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

কমলগঞ্জে স্কুলে যাবার পথে নবম শ্রেণির ছাত্রীর শ্লীলতাহানীর চেষ্টা



Untitled-1 copy
 কমলকুঁড়ি রিপোর্ট
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে একটি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির এক ছাত্রী অর্ধ বার্ষিক পরীক্ষা দিতে যাবার পথে এক বখাটে পথরোধ করে শ্লীলতাহানীর চেষ্টায় সড়কের উপর টানা হেছড়া করে। এ ঘটনায় স্কুল কর্তৃপক্ষ কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন। রোববার (৯ জুলাই) বেলা সাড়ে ১২টায় আলীনগর ইউনিয়নের জালালিয়া এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে।
কমলগঞ্জ বহুমুখী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, আলীনগর ইউনিয়নের গকুলনগর গ্রামের আকল মিয়ার মেয়ে ( লিমা আক্তার) (১৪) বিদ্যালয়ে যাওয়া আসার সময় প্রায়ই বখাটে খালিক মিয়া নানাভাবে উত্যক্ত করে। বখাটে খালিক মিয়া পার্শ্ববর্তী মথুরাপুর গ্রামের আকবর মিয়ার ছেলে।  রোববার (৯ জুলাই) বিকালের পর্বে ইংরেজী ১ম পত্র পরীক্ষা দিতে নবম শ্রেণির ছাত্রীটি কমলগঞ্জ বহুমুখী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে যাচ্ছিল। শমশেরনগর-কমলগঞ্জ সড়কের জালালিয়া এলাকায় পৌছলে বেলা সাড়ে ১২টায় বখাটে খালিক মিয়া (২৩) ছাত্রীটির পথরোধ করে শ্লীলতাহানীর চেষ্টা করে। এক পর্যায়ে বখাটে ছেলে ছাত্রীকে টানা হেছড়া করতে শুরু করে। তখন ছাত্রীর আর্ত্মচিৎকার শুনে এলাকাবাসী এগিয়ে আসলে বখাটে দৌড়ে পালিয়ে যায়।
ছাত্রীটি বিদ্যালয়ে গিয়ে প্রধান শিক্ষকের কাছে ঘটনার বিবরণ দিলে প্রধান শিক্ষক হুমায়ূন কবীর সুবিচার প্রার্থনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানিয়ে বিকালেই কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। কমলগঞ্জ বহুমুখী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক হুমায়ূন কবীর ঘটনার ও অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ পথে প্রায় শতাধিক ছাত্রী বিদ্যালয়ে আসে। এ ঘটনার সুষ্ঠ ও বিহিত ব্যবস্থা গ্রহন ও ছাত্রীদের নিরপত্তা চেয়েই তিনি নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ করেছেন।
ঘটনা সম্পর্কে লাঞ্চিত ছাত্রীর সাথে কথা বলা না গেলেও ছাত্রীর চাচাতো ভাই শামীম মিয়া বলেন, মথুরাপুর গ্রামের আকবর মিয়ার ছেলের উপর অনেক অভিযোগ রয়েছে। সে নিয়মিত স্কুলগামী ছাত্রীদের উত্যক্ত করে থাকে। রোববার সে তার (শামীমের) চাচাতো বোনের পথরোধ করে এ অবস্থা করেছে।
অভিযোগ সম্পর্কে জানার চেষ্টা করে অভিযুক্ত খালিক মিয়ার সাথে চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। ঘটনার পর থেকে সে পালিয়েছে।
কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহমুদুল হক অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ছেলেটি কয়দিন পালিয়ে থাকবে। তাকে খুঁজে দ্রুত গ্রেফতার করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করার কমলগঞ্জ থানার ওসিকে বলেছেন। সাথে সাথে এখন থেকে বিদ্যালয় ও কলেজগামী ছাত্রীদের নিরাপত্তার দিকে নজরদারী করা হবে।