বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পতনঊষারে বহুল আলোচিত মজিদ হত্যা মামলার রায় || ৩ জনের যাব্বজীবন ও ১ জনের ৫ বছর কারদণ্ড



Mojid Pic
কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ॥
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলায় বহুল আলোচিত ব্যবসায়ী আব্দুল মজিদ হত্যা মামলার রায় দীঘ ২ বছর পর রায় প্রদান করা হয়েছে। রবিবার ২০ সেপ্টেম্বর  সিলেট বিভাগীয় দ্রুত বিচার ট্রাইবুনালের জজ মকবুল আহসান এই রায় দেন। রায়ে মামলার ১নং আসামী  রুবেল হোসেন, ২ নং আসামী জুয়েল মিয়া ও ৩ নং আসামী আজাদুর রহমানকে যাব্বজীবন কারাদন্ড এবং  ৪ নং আসামী আব্দুল মোহিত মিয়াকে ৫ বছরে কারদন্ড এবং মহিলাসহ ৭ জন আসামীকে বেকসুর খালাস প্রদান করা হয়েছে।  রায়ে নিহতের পিতা আব্দুর রহমান আদালতের প্রতি সম্মান জানিয়ে বলেন আসামীদের সব্বোর্চ শাস্তি হলে শান্তি পেতাম।
উল্লেখ্য, কমলগঞ্জ উপজেলার পতনউষার ইউনিয়নের গোপীনগর গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে নয়াবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সদস্য আবদুল মজিদকে ২০১২ সালের ২৯শে আগষ্ট  বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে রাতে নির্মম ভাবে হত্যা করা হয়। নির্মম হত্যাকান্ডের নিন্দার ঝড় উঠে পতনউষার ইউনিয়নসহ কমলগঞ্জ উপজেলায় সর্বত্র। তার অপরাধ ছিল প্রতিবেশি আজাদুর রহমানের মেয়ে আমেনা আক্তার জুই এর সাথে প্রেম ছিল। প্রেমটি আসামি আজাদুর রহমান মেনে নিতে না পারায় ২৯ আগষ্ট রাতে মেয়ের দুই ভাই আসামি রুবেল মিয়া (২৪) ও আসামি জুয়েল মিয়া (২৩) রাতে আবদুল মজিদকে ঘর থেকে ডেকে নিয়ে প্রেমিকার বাড়িতে নির্মম হত্যা করা হয়। পরিকল্পিতভাবে তাকে রাতে খাওয়ানোর পর মজিদের হাত পা বেধে গাড় ভেঙ্গে, কান কেটে, কানে শিকড় ডুকিয়ে চোখ দুটি তুলে ফেলে এবং পুরুষাঙ্গ কেটে শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম করে নৃশংসভাবে খুন করার পর লাশ মজিদের বাড়ির পিছনের ডোবায় ফেলে রাখে। পরে অনেক খুজাখুুজির পর পুলিশ ডোবা থেকে লাশ উদ্ধার করে। নিহত মজিদের বাবা আব্দুর রহমান  রুবেল হোসেনকে প্রধান আসামী করে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে  রুবেল হোসেন, জুয়েল মিয়া, আজাদুর রহমান, আব্দুল মোহিত, মাসুক, আফরোজ, শাহিন, আজমান, ডলি, আলমা ও জুইকে আটক করে। পুলিশ ব্যাপক তদন্ত করে ২০১৩ সালের ৮ আগষ্ট ১১জনকে অভিযুক্ত করে  মামলার ফাইনাল চার্জশীট আদালতে দাখিল করা হয়।
রায়ের তারিখ ৩ দফা পেছানোর পর অবশেষে  রবিবার ২০ সেপ্টেম্বর সিলেট দ্রুত বিচার ট্রাইবুনালের জজ মকবুল আহসান কোর্টে আলোচিত মজিদ হত্যা মামলার রায় প্রদান করেন। এরায়ে মামলার ১নং আসামী  রুবেল হোসেন, ২নং আসামী জুয়েল মিয়া ও ৩নং আসামী আজাদুর রহমানকে যাব্বজীবন কারাদন্ড এবং  ৪ নং আসামী আব্দুল মোহিত মিয়াকে ৫ বছর কারাদন্ড, ১ হাজার টাকা জরিমান অনাদায়ে আরো ১ বছরের কারাদন্ড প্রদান করা হয়। বাকী ৭ জন আসামী  মাসুক মিয়া, আফরোজ মিয়া, শাহীন মিয়া, আজমল মিয়া, ডলি বেগম, আলমা বেগম ও আমিনা আক্তার জুঁইকে বেকসুর খালাস প্রদান করা হয়।
এদিকে নিহত আব্দুল মজিদ এর বাবা আব্দুর রহমান ও নিহতের মামা আব্দুর রব রায়ের পর অনুভুতি জানতে গেলে তারা বলেন, রায়ে তারা খুশি। তবে সব্বোর্চ্চ শাস্তি হলে মজিদের আত্মা শান্তি পেত।