শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পোল্ট্রি ফার্ম করে সাবলম্বী এখন রিমা বেগমের পরিবার ॥ ইচ্ছা শক্তি ও পরিশ্রম করলেই সফলতা অনিবার্য



কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ॥
ইচ্ছা শক্তি ও পরিশ্রম করলেই সফলতা অনিবার্য। কাজ করার মতো মন মানসিকতা থাকলে সঠিক সিদ্ধান্তে পৌঁছে গিয়ে অল্প সময়েই সাবলম্বী হওয়া যায়।
এক সময় পরিবার পরিজন দিয়ে চিন্তা হতো কিভাবে দিনাপাত কাটাবো। একদিকে যেমন সন্তানদের লেখাপড়ার খরচ, পরিবারের দৈনন্দিন খরচ। অন্যদিকে স্বামীর বিদেশ এর ব্যাপারে লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ, সবকিছু মিলে এক দুর্বিস যন্ত্রণার মধ্যে ছিলাম। কোন উপায়ন্তর না পেয়ে হঠাৎ একজন ব্যবসায়ী (মুন্সীবাজারের জাহিদুল হক) পরামর্শ দিলেন পোল্ট্রি ফার্ম করেন। দেখবেন অল্প সময়ে সাবলম্বী হতে পারবেন। ব্যবসায়ীর কথা সাদরে গ্রহণ করি। কিন্তু পুঞ্জি না থাকায় আরও সমস্যায় পড়ি। তখন ওই ব্যবসায়ী বললেন আমি আপনাদের সহযোগিতা করবো। আল্লাহর নাম নিয়ে পোল্ট্রি ফার্ম এর জন্য যা যা প্রয়োজন সবকিছু তৈরি করি। এভাবে শুরু হয় পোল্ট্রি ফার্ম গড়া। কথাগুলো বললেন মৌলভীবাজার জেলাধীন কমলগঞ্জ উপজেলার পতনঊষার ইউনিয়নের লক্ষীপুর গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের স্ত্রী রিমা বেগম। Pic- Rima
রিমা বেগমের কাছ থেকে জানা যায়, প্রথমে ২০১৪ সালের অক্টোবর মাসে ১ হাজার মোরগের বাচ্চা ডিলার কাছ থেকে ৩৮ হাজার টাকা দিয়ে ক্রয় করেছেন। এই ১ হাজার বাচ্চা পালন করতে প্রায় ১ লক্ষ টাকার খাদ্য সামগ্রী, ১০ হাজার টাকার ঔষধ, বিদ্যুৎ বিল ২ হাজার টাকা, করাতের গুড়া ২ হাজার টাকা লেগেছে। এক মাসে বিক্রয় করার উপযোগী হলে খরচ বাদে প্রায় ১৬ হাজার টাকা লাভ হয়েছে। কঠোর পরিশ্রম করে বাড়িতে বসেই প্রথম মাসে যখন ১৬ হাজার টাকা লাভ পেলেন তখন তিনি আর উৎসাহ বোধ করলেন। এ কাজে স্বামী আব্দুর রাজ্জাক, ছেলে মেয়েরাও সহযোগিতা করেছেন। পরবর্তীতে তিনি এভাবেই পালন করে যাচ্ছেন। প্রতি মাসে সকল খরচ বাদে ১৮/২০ হাজার টাকা লাভ হয়ে থাকে। এছাড়া আরও কিছু বাড়তি লাভ হয়ে থাকে তা হচ্ছে পোল্ট্রি সামগ্রীর জিনিস বিক্রি করে।
আব্দুর রাজ্জাক-রিমা বেগম দম্পতির মেধাবী ২ মেয়ে কলেজে ও ১ ছেলে উচ্চ বিদ্যালয়ে লেখাপড়া করছে। এখন তারা সুখী ও সাবলম্বী। রিমা বেগম জানান, নারীরা ইচ্ছা করলেই পুরুষদের পাশাপাশি সবকিছু করতে পারেন। বাড়িতে বসেই অল্প সময়েই সাবলম্বী হওয়া যায়। সংসারের এ হাল ধরতে পেরে আমি নিজেকে অত্যন্ত গর্বিত মনে করছি। আজ ইচ্ছে মতো প্রয়োজনীয় বোধে টাকা খরচ করতে পারছি। আল্লাহর অশেষ কৃপায় ছেলে মেয়েদের লেখাপড়া, পরিবারের খরচসহ ইত্যাদি করতে পারছি। মানুষের ইচ্ছা শক্তি ও মনোবলই পারে সামনে দিকে অগ্রসর হতে। তাঁর ভাষায় “ পরিশ্রম করে দরিদ্রতা দূর করি, সুখী সমৃদ্ধ জীবন গড়ি”।