বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঈদের টানা ছুটিতে – কমলগঞ্জের পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে ভিড়



Pic--Madobpur Lake
কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ॥
পবিত্র ঈদুল ফিতরের টানা ছুটিতে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান, মাধবপুর লেইক, হামহাম জলপ্রপাতসহ পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে পর্যটকদের পদচারনায় মুখরিত। গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি থাকলেও তা উপেক্ষা করে পর্যটকরা নিজ আনন্দে মেতে উঠেছিলেন। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে নৈসর্গের অপরূপ এ প্রাকৃতিক দৃশ্যগুলো দেখতে ছুটে এসেছিলেন বিভিন্ন শ্রেণী পেশার হাজার হাজার লোকজন। কমলগঞ্জ উপজেলার লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান দেখার পাশাপাশি পর্যটকরা কমলগঞ্জের চা বাগান, খাসিয়া পুঞ্জি, মণিপুরী ললিতকলা একাডেমী, মাধবপুর লেক, দলই সীমান্তে বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান স্মৃতিস্তম্ভ দেখার পাশাপাশি পর্যটকরা মাধবকুন্ড জলপ্রপাতের চেয়েও অপূর্ব সুন্দর হামহাম জলপ্রপাত দেখতে সেখানে ভিড় করেন। পশুপাখি ও পোকা-মাকড়ের ঝিঁ ঝিঁ শব্দ, বানরের ভেংচি, এক গাছ থেকে অন্যগাছে উল¬ুকের ছোটাছুটি এ হচ্ছে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের চির-চেনা দৃশ্য। নিস্তব্ধতা ভেদ করে ঝিঁ ঝিঁ পোকার অদ্ভুদ একটানা শব্দ শুনতে শুনতে পর্যটকরা হারিয়ে যান প্রাকৃতিকভাবে গড়ে ওঠা এ গহীন অরণ্যে। খুঁজে পান ব্যতিক্রমী আনন্দ। প্রকৃতির অপরুপ সৌন্দর্য্যরে এ লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ‘ট্রপিক্যাল রেইন ফরেস্ট’ হিসেবে খ্যাত। শিক্ষা, গবেষণা, ইকো-টুরিজমসহ ভ্রমণ বিলাসীদের কাছে চিত্ত বিনোদনের অন্যতম আকর্ষণীয় স্পটও হয়ে উঠেছে এ উদ্যান। লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে পর্যটকদের সুবিধার্থে নির্মিত হয়েছে তথ্যকেন্দ্র, ইকো-কটেজ, ফুট ট্রেইল, ইকো-রেস্তোরা প্রভৃতি। লাউয়াছড়ায় জমে উঠেছে পর্যটকদের মিলনের সেতু বন্ধন।
আলাপকালে ঢাকা থেকে আগত সাংবাদিক নিয়াজ মাহমুদ, স্কয়ার ফার্মাসিটিক্যালের ম্যানেজার আইজাক হালদার, সুজন কান্তি দে, চাকুরীজীবি সোহেল আহমদ, হবিগঞ্জের ব্যবসায়ী শরীফ আলী, আল আমীন, কুমিল¬ার গৃহিনী লিমা আক্তার, হবিগঞ্জের কলেজ ছাত্রী সুফিয়া বেগম, নাজনীন আক্তার জানান, সিলেটের ব্যবসায়ী আসাবুজ্জামান শাওন, এনজিও কর্মী রফিকুল ইসলাম, শাব্বির আহমদ জানান, লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের অপরূপ প্রকৃতির অপরুপ নান্দনিক দৃশ্য তাদের মুগ্ধ করেছে। গহীন অরণ্যে বেড়াতে তারা নিরাপদ ও স্বাচ্ছন্ধ্য বোধ করছেন। নিবিড় বন দেখতে ভালোই লাগলো। আবার ও সময় ফেলে বেড়াতে আসবেন।
লাউয়াছড়া বন বিট কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম জানান, টানা ছুটিতে গত চার দিনে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে টিকেট খাতে আয় হয়েছে লক্ষাধিক টাকার উপরে।