শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শ্রীমঙ্গলে আনারসের ভরা মৌসুম



 pic

  শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি :
মৌসুমি ফল আনারসের এখন ভরা মৌসুম। মৌ মৌ মিষ্টি গন্ধের রসে ভরা সুস্বাদু ফল আনারসের লোভ সামলানো দায়। আর তা যদি হয় শ্রীমঙ্গলের আনারস তাহলে তো কথাই নেই। শ্রীমঙ্গলের আনারসের খ্যাতি দেশজোড়া। চলতি মৌসুমে এখানে আনারসের বাম্পার ফলন হয়। জানা যায়, শ্রীমঙ্গল উপজেলার পাহাড়ি উচু-নিচু টিলায় ষাটের দশক থেকে আনারস চাষ শুরু হয়। এখানকার উষ্ণ ও আদ্র জলবায়ু আনারস চাষের জন্য খুবই উপযোগী।

উপজেলার মোহাজেরাবাদ, বিষামনি, হোসেনাবাদ, বালিশিরা, ডলুছড়া, সাতগাঁও, নন্দরানী ও মাইজদীর পাহাড়ি এলাকায় আনারসের চাষ হচ্ছে। অনেকে আনারসের চাষ শুরু করে পাইকারের কাছে আগাম ফল বিক্রি করে দেন। নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে শ্রীমঙ্গলের আনারস রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় বিক্রি করা হয়। বড় আকারের ১ হাজার আনারস বর্তমানে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে উপজেলার প্রায় ৪০২ হেক্টর পাহাড়ি টিলায় আনারস চাষ করা হয়েছে। আর হেক্টরপ্রতি ফলন হয়েছে ৪ হাজার ৮০০ মেট্রিক টন। বর্তমানে শ্রীমঙ্গলে বিলেতি ও ক্যালেন্ডার দুই প্রকারের আনারস প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যাচ্ছে। তবে আনারস বাগান মালিক আবদুল বাছিদ বাচ্চু অভিযোগ করে বলেন, নানা প্রতিকূলতার কারণে দিন দিন আনারস চাষ কমে যাচ্ছে।

আনারসের পরিবর্তে চাষিরা এখন লেবু চাষের দিকে বেশি ঝুঁকে পড়ছেন। জমির উর্বরতা হ্রাস, সার ও চারার দাম বৃদ্ধি, শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধি- সব মিলিয়ে আনারসের উৎপাদন ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে। তবুও তারা শ্রীমঙ্গলের ঐতিহ্যবাহী আনারসের আবাদ ধরে রাখার চেষ্টা করছেন। সুস্বাদু ফল আনারস প্রক্রিয়াজাতকরণের কোনো ব্যবস্থা এখানে নেই। প্রক্রিয়াজাত করে বিদেশে রপ্তানি করলে এ ফল থেকে বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন সম্ভব।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা, সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা, আধুনিক চাষাবাদ পদ্ধতির প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা গ্রহণ করার দাবি জানান তিনি। তবে শ্রীমঙ্গল উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা নিলুফার ইয়াসমিন মোনালিসা সুইটি বলেন, আনারসের উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য চাষিদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে।