বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বোনকে উত্যক্ত করায় প্রতিবাদ করায় : কমলগঞ্জের ফুলবাড়ি চা বাগানের উত্যক্তকারীর দায়ের কুপে ভাই গুরুতর আহত ॥ দা-সহ উত্যক্তকারী আটক



কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ॥
ছোট বোনকে উত্যক্ত করার প্রতিবাদ করায় মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার ফুলবাড়ি চা বাগানে উত্যক্তকারীর ধারালো দায়ের কুপে ভাই স্বপন দেব ফুলমালি (২৬) নামের এক চা শ্রমিক গুরুতর আহত হয়ে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। পুলিশ দা-সহ উত্যক্তারীকে আটক করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার ( ১৯ জুন) রাত আটটায়।
ফুলবাড়ি চা বাগান ওয়ার্ড ইউপি সদস্য সিতাংশু পাল,  চা বাগান পঞ্চায়েত সভাপতি রবি বাউরী, সাধারণ সম্পাদক আসিদ আলী ও কমলগঞ্জ থানা সূত্রে জানা যায়, হারাধন সাওতাল (২০) নামের এক চা শ্রমিক নন্দরানী চা বাগান থেকে প্রায় এক বছর পূর্বে এই চা বাগানে এসে এক আত্মীয়ের বাড়িতে বসবাস করে এ চা বাগানের  অস্থায়ী শ্রমিকের কাজ করে আসছিল। হারাধন সাওতাল প্রায়ই ফুলবাড়ি চা বাগানের ১০ নম্বর শ্রমিক বস্তির চা শ্রমিক স্বপন দেব ফুলমালির এক বোনকে নানাভাবে উত্যক্ত করে। সম্প্রতি আবার বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিল। এতে মেয়েটি রাজি না হয়ে তার বড় ভাইকে বিষয়টি অবহিত করে। এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে শুক্রবার সন্ধ্যার পর স্বপন দেব ফুলমালি প্রতিবাদ করে হারাধনকে শাসিয়েছিলেন। কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে ক্ষিপ্ত হয়ে হারাধন সাওতাল দৌড়ে গিয়ে ঘর থেকে একটি দা এনে স্বপন দেব ফুলমালির গলায় ডান দিকে কুপ দেয়। এতে স্বপন দেব ফুলমালি গুরুতরভাবে আহত হলে তাকে প্রথমে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে শুক্রবার রাতেই দ্রুত সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। তার অবস্থা আশংকাজনক বলে জানিয়েছেন পরিবার সদস্যরা।
এদিকে ফুলবাড়ি চা বাগানের লোকজন দা দিয়ে কুপ দিয়ে পালানোর সময় হারাধনকে আটক করে। স্থানীয় ইউপি সদস্যের মাধ্যমে খবর পেয়ে কমলগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক লিটন পাল শুক্রবার রাত সোয়া ৯টায় দাসহ হারাধন সাওতালকে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন। উপ-পরিদর্শক লিটন পাল জানান এ ঘটনায় শনিবার দুপুরে কমলগঞ্জ থানায় একটি মামলা হয়েছে। পুলিশ মামলার একমাত্র আসামী হারাধন সাওতালকে দা-সহ গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে মৌলভীবাজার কারাগারে প্রেরণ করেছে।
চা বাগান সমূহে সাম্প্রতিক সহিং¯্রতা ও হানানিতে উদ্ভেগ প্রকাশ করে বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারন সম্পাদক রাম ভজন কৈরী বলেন, সাধারন চা শ্রমিকরা একন আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন। এসব ঘটনা প্রতিরোধে দ্রুত প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহন করতে হবে বলেও তিনি জানান।