শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কমলগঞ্জে নদী ভাঙ্গনের হাত থেকে – ১৭ রবিদাস পরিবারের বসত ঘর রক্ষার দাবীতে স্মারকলিপি



Pic--Kamalgonj
কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ।।
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার মুন্সীবাজার ইউনিয়নের উবাহাটা ও চৈতন্যগঞ্জ গ্রামে ধলাই নদীর অব্যাহত ভাঙ্গনে এখন হুমকির মুখে ১৭টি অনগ্রসর অসহায় রবিদাস পরিবার। যে কোন মুহূর্তে রবিদাস পরিবারের বসত ঘর নদী গর্ভে বিলিনের আশঙ্কা রয়েছে। নদী ভাঙ্গনের হাত থেকে বসতঘর রক্ষার দাবীতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে ১৭ রবিদাস পরিবার সদস্যরা মিছিলসহকারে এসে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে স্মারকলিপি প্রেশ করেছেন।
চৈতন্যগঞ্জ গ্রামের রবিদাস পরিবার সদস্য সুনিল রবিদাস বলেন, বিগত কয়েক বছর ধরে নদী ভাঙ্গনে চৈতন্যগঞ্জ গ্রামের ১০ থেকে ১৫টি বসত ঘর নদী গর্ভে বিলিন হয়েছে। এখন ১৭টি রবিদাস পরিবারের বসতঘর রীতিমত হুমকির মুখে আছে। নদীতে পানি বাড়লে ও উজানের পাহাড়ি ঢলের পানি আসলে এসব বাড়ি ঘর নদী গর্ভে বিলিন হয়ে যাবে। যাদের সামর্থ আছে তারা এখন নিরাপদ স্থানে গিয়ে বসত ঘর করেছেন। রবিদাস পরিবার এমনিতেই অতি দরিদ্র ও সামর্থহীন। তাই তারা অন্য কোন স্থানে নতুন করে বসত ঘর করার কোন সুযোগ নেই। বিগত কয়েক বছরে ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের কাছ থেকে আশ্বাসের বাণী শুনেছেন। কিন্তু বাস্তবে কোন কাজ হচ্ছে না। অবশেষে স্ত্রী সন্তানদের সাথে নিয়ে মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে দেখা করে তাঁর হাতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের দাবীতে ১৭টি রবিদাস পরিবার একটি স্মারকলিপি প্রদান করেছেন। স্মারকলিপিতে ধলাই নদীর ভাঙ্গনে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার সমূহকে পুনর্বাসন ও ভাঙ্গনের হাত থেকে রক্ষা, প্রয়োজনে ১৭টি রবিদাস পরিবারকে বিকল্প আশ্রায়নের ব্যবস্থা করা এবং অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ১৭টি রবিদাস পরিবার এবং জীবিকার স্বার্থে সরকারি সুযোগ সুবিধার বিশেষ বিবেচনা রাখার জোর দাবী জানানো হয়।
কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম মিঞা আতঙ্কিত রবিদাস পরিবারের কাছ থেকে স্মারকলিপি গ্রহণের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, জেলা প্রশাসকের সাথে আলোচনাক্রমে পানি উন্নয়ন বোর্ডের মাধ্যমে চৈতন্যগঞ্জ গ্রাম এলাকায় প্রতিরক্ষা বাঁধ উন্নয়নে কার্যক্রম গ্রহনের উদ্যোগ নিবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন।