শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কমলকুঁড়ি পত্রিকার পথচলা



॥ মমতা দেবী ॥
হাঁটি হাঁটি পা পা করে আমার প্রিয় কমলকঁড়ি পত্রিকাটি ৪র্থ বর্ষ থেকে ৫ম বর্ষে পদার্পণ করেছে। এই কমলকুঁড়ি পত্রিকায় ফুটে উঠে কমলগঞ্জের মানুষের সুখ-দুঃখ, হাসি-কান্নার কথা। বিশেষ করে চা শ্রমিকদের কথা। যারা সারাদিন পরিশ্রম করে মজুরি পায় মাত্র ৬৯ টাকা। আর কমলকুঁড়ি পত্রিকার প্রতিষ্ঠাতা পিন্টু দেবনাথের অনন্য অবদানের জন্যই আজ পত্রিকাটি ৪র্থ থেকে ৫ম বছরে পা দিয়েছে। পত্রিকাটি আমার ভালো লাগে কারণ এই পত্রিকার জন্যই কজন গরীব মেধাবী শিক্ষার্থীরা শিক্ষার আলোয় আলোকিত হচ্ছে। এই জন্য আমি ধন্যবাদ জানাচ্ছি  যিনি গরীব শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার খরচ বহন করছেন এবং কমলকুঁড়ির সম্পাদককে। গরীব মানুষের মাথা গোঁজার ঠাই করেও দিয়েছেন এই পত্রিকার মাধ্যমে। এভাবেই এই পত্রিকার সম্পাদক উনার প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছেন। তিনি তার প্রতিভাকে পুঁজি করে কমলকুঁড়ি পত্রিকাকে এগিয়ে নিয়ে গেছেন অনেক দূর। নিপুণ হাতেই পত্রিকার সব কাজ সম্পন্ন করেন মনোযোগ ও ধৈর্য্যরে সহিত।  আরেকটি কথা না বললেই নয়, তিনি যেমন লেখালেখি করেন তেমনি ছোটদেরকেও লেখালেখিতে উৎসাহিত করেন। আমি সবসময় উনার কাছ থেকে দিকনির্দেশনা পেয়ে থাকি এবং ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করি যেন সামনের দিনগুলোতে তিনি এভাবেই যেন উৎসাহ-উদ্দীপনা এবং পথচলার নির্দেশ দেন। আমি অভিনন্দন জানাচ্ছি কমলকুঁড়ি পত্রিকাকে এবং এর সম্পাদক ও প্রকাশক পিন্টু দেবনাথকে জানাচ্ছি গভীর শ্রদ্ধা। আর সেই সাথে এই কামনা করছি কমলকুঁড়ি পত্রিকাটি যেন অব্যাহত থাকে যুগ যুগান্তরে।