মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

এ’খাচা ভাঙ্গব আমি কেমন করে!



॥ বশীর উদ্দীন আহমেদ ॥

রাত প্রায় দশটা। কথা হচ্ছে এক নাতনীর সাথে। তোমার চুল ভেজা কেন? গোসল করলাম। রাতে কেন দিনে করতে পারনা? আমার সময় নেই। তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী !! সময় নেই কেন? সকাল সাড়ে ৭টায় স্কুল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত, তারপর যাই কোচিংয়ে ফিরি সন্ধ্যায়, আসেন হুজুর, হুজুর চলে যাওয়ার পর আসেন প্রাইভেট টিউটর!! একজন অংক ও বিজ্ঞান আরেক জন ইংরেজী! এতে করেই রাত দশটা। খেলাধুলা? না আমাদের খেলাধুলার সময় নেই। ইহা কি শিক্ষা ব্যবস্থা নাকি জোর করে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করার মত অবস্থা! অভিবাকগণের যে কোন মূল্যে গোল্ডেন এপ্লাস চাই!! এই আধুনিক দাসত্ব থেকে মূক্তির উপায় নাই। এই অন্যায় অপ্রয়োজনীয় চাপ শিশুদের জীবিন থেকে কেড়ে নিয়েছে আনন্দ। শিক্ষার নামে আধুনিক দাসত্ব! ব্যঙ্গের ছাতার মত গড়ে উঠেছে কোচিং সেন্টার পাড়ায় মহল্লায় অলি গলিতে, মাছ বাজার কাঁচা বাজারের দুতলায়! রাস্তায় অবেলায় ট্রাফিক জ্যাম! কারণ কি? কোচিং সেন্টার ছুটী হয়েছে। শিশুদের সাথে আছেন অতন্ত্র-প্রহরী মা’। মায়েরা ছায়ার মত লেগে আছেন শিশুদের পিছনে! শ’তে শ’ পাওয়া চাই। নইলে ইজ্জত নাই! যেখানে পুরো শিক্ষা ব্যবস্থা প্রাইভেট কোচিং/গৃহ শিক্ষক নির্ভর সেখানে সরকারি স্কুল কলেজ ভেঙ্গে আধুনিক শপিং মহল করে কোচিং সেন্টারকে পৃষ্টপোষকতা করলেই হাড্ডি চর্ম সার জনগণের বিপুল অর্থের সাশ্রয় হয় নাকি হয় না। দ্বৈত সিসটেমের জাতাকলে পিষ্ট আমাদের ভবিষ্যত। আমাদের একটা সিদ্ধান্তে উপনিত হতে হয় সরকারী শিক্ষা ব্যবস্থা না হয় কোছিং সেন্টার! সারা দিন স্কুল করার পর যদি সারা বিকেল কোচিং করা লাগেই তাহলে স্কুল বন্ধ করে কোচিং করাই শ্রেয় বলে মনে করার যথেষ্ট কারণ কি নেই! সৃজনশীল শিক্ষার নামে এপ্লাস পাইয়ে দেয়ার নামে আমাদের শিশুদের মানষিক শাস্তি দেয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এই ব্যবস্থা একজন এপ্লাস প্রাপ্ত শিক্ষার্থী ইউনিসেফের এব্রিভিয়েশন জানেনা! তারা সহস্রাধিক সৃজনশীল প্রশ্নের রেডিমেইড উত্তর ছাড়া আর কিছুই জানেনা জানার প্রয়োজন পড়েনা! না পেলে আত্মহত্যার মত ঘটনাও ঘঠে। মা’বাবা সারা দিন পড় পড় বলে তাদের জীবন বিষিয়ে তুলেছেন। তাই আত্মহত্যা। এই সিস্টেমে পাশ করার চেয়ে ভর্তি হয়া বেশী কঠিন। এজন্য ভর্তি কোচিং  (দেখুন-২)আবিষ্কৃত হয়েছে। ততোধিক কঠিন চাকুরী পাইয়া এতএব প্রাইমারী শিক্ষক ইত্যাদির চাকুরী কোচিং শুরু হয়েছে দেশ ব্যাপী মহামারী আকারে! অভিভাবক বিশেষ করে মায়েদের ঘুম হারাম এই চিন্তায়। বেডের নীচে/বালিশের নীচে কঞ্চিও রেখেছেন মাঝে মাঝে থেরাপী দেয়ার জন্য! কঞ্চি কেন? না মারিনা ভয় দেখাই!! অবস্টাদৃস্টে এই অধমের মনে এই মর্মে দৃঢ প্রত্যয় জন্মেছে যে অবিলম্বে এই শিকল ভাংতে হবে, মুক্ত করতে হবে আমাদের শিশুদের শিক্ষা নামক এই আধুনিক দাসত্ব থেকে। ফিরিয়ে দিতে হবে তাদের আনন্দের শিশুকাল। এটা কেড়ে নেয়ার কোন অধিকার আমাদের নেই। তারা কি আর এই দিন ফিরে পারে!! আর যদি কোচিং ছাড়া সবই বিফল হয় তাহলে সরকারী স্কুল কলেজ অয়ান-টুর মধ্যে ভেঙ্গে শপিং মল করা হউক আর এই অর্থ দিয়ে কোচিং সেন্টার গুলিকে পৃষ্টপোষকতা দেয়া হউক। এতে করে হাড্ডিচর্মসার জনগনের হাজার হাজার কোটি টাকার সাশ্রয় হবে, জিপিডি দুই অংক ছেড়ে যাবে বলে অধমের বিশ্বাস। আশা করছি কর্তৃপক্ষ বিষয়টি বিবেচনায় আনবেন আমাদের শিশুদের এই দ্বাসত্ব থেকে মুক্তি দেবেন সহসাই।

লেখক : আমেরিক প্রবাসী