শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আজ মহান মে দিবস ।। চা শ্রমিকদের ভাগ্যের পরিবর্তন হয়নি !



tea-2

কমলকুঁড়ি প্রতিবেদক

আজ ১মে মহান মে দিবস। শ্রমজীবী মানুষের সংগ্রামের ইতিহাসের দিন। ১৮৮৬ সালের এই দিনে যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো নগরীতে শ্রমিকরা দৈনিক আট ঘণ্টা কর্মসময় নির্ধারণ ও ন্যায্য মজুররি দাবিতে সর্বাত্মক ধর্মঘট শুরু করেন।  তখন আমেরিকা ও ইউরোপে শ্রমিকদের দৈনিক ১৪  থেকে ১৮ ঘণ্টা পর্যন্ত কাজ করতে হতো। ওভার টাইম-এর নীতিমালা ছিল না। তাই শ্রমিকরা মালিকপক্ষের এ ধরনের নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী হয়ে ওঠেন। আন্দোলন চূড়ান্ত রূপ নেয় ৩ ও ৪ মে।  এই দুদিনে পুলিশের গুলিতে প্রাণ হারান ১০ শ্রমিক। বহু শ্রমিককে পুলিশ গ্রেফতার করে। তাদের মধ্যে ছয়জনকে পরে ফাঁসিতে ঝোলানো হয়। শ্রমিক আন্দোলনের এ  গৌরবময় অধ্যায়কে স্মরণীয় করে রাখার জন্য ১৮৯০ সাল  থেকে পালিত হয়ে আসছে মহান মে দিবস।

 

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর রাষ্ট্রীয়ভাবে মে দিবস পালন করা হয়ে থাকে। দিনটি ১৯৭২ সাল  থেকেই সরকারি ছুটির দিন। কিন্তু যাদের রক্তে রাঙানো সংগ্রামের স্বীকৃতি এ দিবস,  সেই শ্রমিক ও  মেহনতী মানুষ রাষ্ট্রীয়, সামাজিক, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক  কোনো ক্ষেত্রেই আজও এদেশে তাদের ন্যূনতম মর্যাদা ও অধিকার লাভ করেনি।

স্বাধীনতার ৪৪ বছর অতিবাহিত হলেও বঞ্চিত চা শ্রমিকদের অধিকার পুর্ণতা লাভ করেনি । দু’বছর অন্তর চা শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধির কথা থাকলেও ২০০৯ সনের পর আর কোন চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়নি। এককভাবেই মালিক পক্ষ কয়েক দফায় সর্বশেষ চা শ্রমিকদের সর্ব্বোচ্চ মজুরি ৬৯ টাকা নির্ধারন করে। চা শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধি, চিকিৎসা, বাসস্থানসহ আনুষঙ্গিক সকল সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধির দাবি নিয়ে দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রামের পর নির্বাচিত শ্রমিক ইউনিয়ন নেতারা মাসিক চাঁদা আদায়ে ব্যস্ত থাকলেও মজুরি বৃদ্ধির বিষয়ে তারা সক্রিয় নন বলে শ্রমিকরা অভিযোগ তোলেছেন। বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, প্রতি দুই বছর অন্তর চা শ্রমিকদের মজুরী বৃদ্ধি করা হয়। সর্বশেষ ২০০৯ সালের ১লা সেপ্টেম্বর চা শ্রমিকদের মজুরী এ ক্লাস বাগানে দৈনিক ৪৮ টাকা, বি ক্লাস বাগানে ৪৬ টাকা এবং সি ক্লাস বাগানে দৈনিক ৪৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছিল। বাংলাদেশ চা এসোসিয়েশন (বি,টি,এ) এবং চা শ্রমিক ইউনিয়নের মধ্যে দ্বি-পাক্ষিক চুক্তির মাধ্যমে নির্ধারিত উল্লেখিত মজুরীর মেয়াদ ছিল ২০১১ সালের ৩১ আগষ্ট পর্যন্ত। ২০১১ সালের ৩১ আগষ্ট চা শ্রমিকদের মজুরী সংক্রান্ত চুক্তির মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পর চা শ্রমিকদের মধ্যে অসন্তোষ দানা বাঁধতে শুরু করলে মালিক পক্ষ ৪৮ টাকা থেকে বৃদ্ধি করে ৫২ টাকা ৬২ টাকা এবং সর্বশেষ সর্ব্বোচ্চ মজুরি ৬৯ টাকা নির্ধারণ করেন। মালিক পক্ষের নির্ধারিত ৬৯ টাকা হিসাবে শ্রমিকরা এখনো মজুরি পাচ্ছেন।

চা শ্রমিকরা জানিয়েছেন অসুখ বিসুখ হলে বাগান কর্তৃপক্ষ সব রোগের জন্য প্যারাসিটামল ট্যাবলেট দেয় এতে তারা সুচিকিৎসা থেকে বঞ্চিত । মে দিবস আর নারী দিবস চা শ্রমিকদের ভাগ্যের কোন পরিবর্তন করেনি ।
চা শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন দাবি দাওয়া বাস্তবায়নে চা শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচন নিয়ে শ্রমিক নেতারা আন্দোলন শুরু করলে ২০১৪ সনের ১০ আগষ্ট দেশের ৫টি জেলার ২০টি উপজেলার ৭টি ভ্যালিতে (অঞ্চলে) ২২৭টি চা বাগানে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।
নির্বাচনে বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের মাখন লাল কর্ম্মকার সভাপতি ও রামভজন কৈরী সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। কমিটি নির্বাচিত হওয়ার ৮ মাস অতিবাহিত হলেও এখন পর্যন্ত এক টাকাও মজুরি বৃদ্ধি পায়নি।