শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মৌলভীবাজারের বিভিন্ন চা বাগানে ফাগুয়া উৎসব চলছে



pic-4কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ।।
বসন্তের রং-রূপে নতুন হয়ে উঠেছে প্রকৃতি। মৌলভীবাজারের বিভিন্ন চা বাগানের এখন ফাগুয়া য়াৎস চলছে। সেই চির চেনা দৃশ্য, সেই  সজীবতার রং চা-বাগানে আগের মত নেই বললেই চলে। বৃষ্টি প্রধান এলাকা শ্রীমঙ্গল। প্রতিবছর মার্চ মাস থেকেই দু-এক পশলা বৃষ্টি হয়। গেল ফেব্র“য়ারী মাসে সামন্য বৃষ্টি পাত হলেও মার্চ মাস থেকে বৃষ্টির কোন দেখা নেই। লক্ষ-কোটি চা-গাছ দাঁিড়য়ে  আছে সারি সারি মাঠের পর মাঠ।
বিবর্ণ চা শিল্পাঞ্চলের মানুষগুলোর রংধুনর সাতরং ভর করেছে। তারা মেতে উঠে রঙের উৎসব ফাগুয়ায়।
বেগুনী, নীল, আকাশি, সবুজ ,হলুদ, কমলা লাল -কী নেই? যে দিকে তাকানো যায় সেদিকেই রঙের ছড়াছড়ি। নারী -পুরুষ, আবাল-বৃদ্ধ সব বয়সীরা মেতে ওঠে ফাগুয়া উৎসবে।
একে অপরের দিকে রং ছুড়ে মারছে, গান গাইছে, নাচছে। তরুণ তরুণী, কিশোর-কিশোরী এমনকি ৭০-৭৫ বছরের বৃদ্ধরাও আনন্দ মেতে উঠেন। প্রাণের উচ্ছ্বলতায় বয়সের ভেদাভেদ ভূলে গেছে সবাই।
কমলগঞ্জ উপজেলার মিরতিংগা, দেওরাছড়া, আলীনগর সহ বিভিন্ন চা বাগান ঘুরে দেখা যায় এক নান্দনিক দৃশ্য। একে অপরকে আরির দিয়ে রাঙিয়ে দেয়া হচ্ছে। এমনকি চা বাগান এলাকায় কেউ আসলে তাকে আনন্দ সহকারে রাঙিয়ে দেয়া হচ্ছে। এদিকে মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে ফিনলে টি কোম্পানির ভাড়াউড়া চা বাগান ঘুরে দেখা গেল এমন দৃশ্য। ভাড়াউড়া চা বাগানের কোয়ার্টার লাইনের এক ঘরে সামনে মোটর সাইকেল দাঁড়িয়ে দেখতে থাকি তাদের এই রঙের খেলা।

চা জনগোষ্ঠী আধিবাসী ফন্টের সভাপতি পরিমল বাড়াইক জানালেন, বছরে অনেকগুলো উৎসবের মধ্যে অন্যতম দুইটি উৎসব চা-জনগোষ্ঠীর মানুষজন আনন্দের সুযোগ পায়। এক, বাঙালির সনাতন হিন্দু ধর্মের দুর্গাৎসব। দুই, রঙের উৎসব ফাগুয়া। ফাগুয়া প্রতিবছর ফাল্গুন মাসের শেষ দিকে আর চৈত্র মাসের প্রথম দিকে পূর্ণিমা তিথিতেএ উৎসব শুরু হয়।
উৎসব উপলক্ষে চা বাগানে দুই দিনের ছুটি দেয়া হয়। চা বাগানে এ উৎসব যে দিন শুরু হয় সেইদিন থেকে আরো ১৫দিন পর্যন্ত তার রেশ থাকে। উৎসব শুরুর আগে থেকে রাতের বেলায় চা-বাগান লাখড়ি সংগ্রহ করে থাকে। তিনি আরো  জানান, ফাগুয়া উৎসব উৎপত্তি ভারত থেকে।  সাধারণত হলি খেলা উৎসব বলে, “ভারতীয় শব্দ”।
চা শ্রমিকদের কথা বলে জানা যায়, ছন্দ-তাল লয়হীন এসব চা শ্রমিকের কঠিনতম জীবনে ফাগুয়া উৎসব এসেছে মহান্দরে জোয়ার নিয়ে সেই জোয়ারে ছড়িয়ে পড়েছে প্রতিটি চা-বাগানের অনাচে-কানাচে। শুধুই রং, শুধুই রঙের ছড়াছড়ি।
ছোপ ছোপ রঙের দাগ লেগেই থাকে চা -বাগানের অলিগলিতে, শ্রমিক লাইন, বাড়িঘরের আঙিনায়। ভাড়াউড়া চা বাগানের মতো প্রতিটি চা-বাগানে তরুণেরা তরুণ-তরুণী সেজে নাচের দল নিয়ে বের হয় শ্রমিক লাইনে। তারা পরিবেশন করেছে চা-বাগানের জনগোষ্ঠী ঐতিহ্যবাহী কাঠিনৃত্য। তাদের পরিবেশনায় বাড়তি আনন্দ জোগাচ্ছে।
বাংলাদেশ চা গবেষণা ইনষ্টিটিউটের পথ ধরে কিছু দূর এগিয়ে গিয়েও চোখে পড়ল এমন দৃশ্য। শিশু -কিশোর, তরুণ – তরুণী, মধ্যবয়সী সবাই নাচছে, গাইছে, আনন্দ করছে। শত দু:খ কষ্ট,শত অভাব অনটনের মধ্যেও উৎসবের তিনটি দিন তারা পরিবার – পরিজন নিয়ে আনন্দে কাটানোর চেষ্টা করে থাকে। এ আনন্দ ভাগাভাগি করে প্রতিবেশিদের সঙ্গেও। দূর -দূরান্ত চা -বাগানের মেয়েরা নাইওর এসেছে জামাইসহ।
রশিদ পুর  চা বাগান থেকে ভাড়াউড়া  চা -বাগানের বাপের বাড়ি নাইওর এসেছেন  সীমা তাঁতি। শুধু সীমা তাঁতি নন, সীমার মতো প্রতিটি চা-বাগানের ঘরেই এসেছে নাইওরি। প্রত্যেক চা শ্রমিকের বাবা উৎসব উপলক্ষে সামর্থ্য অনুযায়ী ভালো খাবারের ব্যবস্থা করে থাকেন। নতুন কাপড় উপহার দিয়ে থাকেন মেয়ে, জামাই, নাতি,নাতিনিকে।
জামাইরাও দিচ্ছেন শশুড়-শাশুড়ীকে। এটাই নাকি চা-বাগানের শ্রমিকদের শত বছরের প্রথা। চা-বাগানের বাজারগুলোতে দোকানিরা মিঠাই মন্ডা সাজিয়ে বসেছে। তবে দুইটি উৎসবের কটা দিন ভালোই বিকিকিনি চলে। ভাবতে ভালো লাগে, ফাগুয়ার উৎসবে নাইওর এসে সীমার পরিচিত সেই পাহাড়ি ছড়াই অবগাহন করেন, কৈশোরের ফেলে যাওয়া খেলার সাথিদের সঙ্গে প্রাণে প্রাণ মেলান, চা-বাগানের ছায়াবৃক্ষের মগডালে সবুজ ঘুঘুদের ডানা ঝাপটানোর মতোই উচ্ছলতায় মেতে ওঠেন।

এ নান্দনিক অনুষ্ঠানে চা শ্রমিকদের মধ্যে এক অন্যরকম অনুভূতি বিরাজ করছে। মাথার ঘাম পায়ে ফেলে দিন রাত কষ্ট করে উর্পাজিত সামান্য টাকা তাদের জীবন দূর্বিষ করে তোলে। তারপর আনন্দ তাদের জীবনে বাড়তি পাওয়া। একদিকে আনন্দ। অন্যদিকে দুর্বিষ যন্ত্রণার ছাঁপ।