শুক্রবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সিলেট বিভাগের ৩টি জেলায় বাংলাদেশ মণিপুরী ছাত্র সমিতির মেধাবৃত্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত



আর কে সোমেন :
সিলেট বিভাগের সিলেট, মৌলভীবাজার ও হবিগঞ্জ জেলার ছয়টি পৃথক কেন্দ্রে এক যোগে বাংলাদেশ মণিপুরি ছাত্র সমিতি (বামছাস) মেধাবৃত্তি পরীক্ষা প্রাইমারী ও জুনিয়র স্কলারশীপ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
শুক্রবার ২০ নভেম্বর সকাল ১০টা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত পরীক্ষায় প্রাথমিক পর্যায়ের পঞ্চম শ্রেণী ও মাধ্যমিক পর্যায়ে অষ্টম শ্রেণীর দুই শতাধিক শিক্ষার্থী অংশ নেয়।
কেন্দ্রগুলো হল সিলেটের রাজা জি সি উচ্চ বিদ্যালয়, হবিগঞ্জের চুনারুঘাট আঁবাদ গাঁও, মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের তেতইগাঁও রশীদ উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়, শ্রীমঙ্গল উপজেলার রামনগর, জুড়ি উপজেলার ছোট ধামাই, কুলাউড়া উপজেলার কর্মধার ভান্ডারীগাঁও কেন্দ্রে  মেধাবৃত্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। পরীক্ষায় বাংলা, ইংরেজি, গণিত, সধারণ বিজ্ঞান, বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয় রয়েছে। আগামি ৪৫ দিনের মধ্যে মেধাবৃত্তি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করার কথা রয়েছে।
জানা যায়, ঐতিহ্যবাহী মণিপুরী ছাত্র সংগঠন ‘বাংলাদেশ মণিপুরী ছাত্র সমিতি(বামছাস) ১৯৮৪ সালে প্রতিষ্ঠার পর ১৯৯১ সালে প্রাথমিকের পঞ্চম শ্রেণী ও ১৯৯৫ সাল থেকে মাধ্যমিকের অষ্টম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের নিয়ে মেধাবৃত্তি পরীক্ষা ‘প্রাইমারী ও জুনিয়র স্কলারশীপ পরীক্ষা’ প্রশংসার সঙ্গে পরিচালনা করে আসছে। তবে মধ্যখানে কয়েক বছর মেধাবৃত্তি পরীক্ষা বন্ধ ছিল।
বিভাগের ছয়টি কেন্দ্রে এক যোগে সফল ভাবে মেধাবৃত্তি পরীক্ষা পরিচালনায় সহযোগী সকলকে বামছাস কেন্দ্রীয় কমিটির পক্ষ থেকে  শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন সংগঠনের স্কলারশিপ পরীক্ষা পরিচালনা পরিষদের চেয়ারম্যান পুস্প দেবী সন্দীপা ও পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক হিজম সুশীল।
তাঁরা জানান, সিলেট বিভাগের ৬টি কেন্দ্রে দুই শতাধিক শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেছেন। করোনা পরিস্থিতির কারণে কঠোর স্বাস্থ্য বিধি অনুসরণ করে আমরা ‘প্রাইমারী ও জুনিয়র স্কলারশীপ পরীক্ষা’ আয়োজন করেছিলাম। এতে সকলের প্রচেষ্টা ও পৃষ্ঠপোষকদের সহযোগিতা পাওয়া না গেলে এতো বড় আয়োজন সফল হতো না। এর জন্য আমরা প্রধান উপদেষ্টা ও পৃষ্ঠপোষক অসেম সত্যজিৎ, এল নন্দলাল এবং বিশিষ্ট নাট্যজন ও উপদেষ্টা এম. উত্তম সিংহ রতন। বামছাস কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক এস. কেশব সিংহ, কোষাধ্যক্ষ খৈশনাম রজত, সাহিত্য ও প্রকাশনা সম্পাদক এম. মুকেশ, সাংগঠনিক সম্পাদক হিজম কৃষান, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক মাইবম দর্পণ সিংহ সহ যারা স্কলারশিপ পরীক্ষায় প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে আমাদেরকে সহযোগিতা প্রদান করেছেন তাঁদের প্রত্যেককে বামছাস-এর পক্ষ থেকে আন্তরিকভাবে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।