বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ কার্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

হীড বাংলাদেশের ক্ষুদ্র ঋণ নিয়ে কমলগঞ্জের আদমপুরের একজন প্রবীণ তামেরী বিবির সাফল্য গাঁথা গল্প



কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

একজন তামেরী বিবির সাফল্য, অন্যজনকেও উৎসাহীত করবে। কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের কোনাগাঁও গ্রামের এক সংগ্রামী প্রবীণ নারী তামেরী বেগম। যৌবনকালে সমাজের আর ১০ টা মেয়ের মত তামেরী বেগমকে বাবা মা বিয়ে হয়।

ভালো চলছিলো দাম্পত্য জীবন এক ফুটফুটে কন্যা সন্তান আসে তামেরী বেগমের কুলে। সবকিছু ঠিকঠাক চলছিলো হঠাৎ নেমে আসলো তামেরী বেগমের জীবনে অন্ধকারের কালোঘটা। স্বামী অন্য মেয়েকে বিয়ে করে বাঁধলো নতুন সংসার। শুরু হলো তামেরী বেগমের জীবন যুদ্ধ ৫ বছরের মেয়ে কে নিয়ে শুরু করলো বাবার বাড়িতে আরেকটি নতুন অধ্যায়। নিজের কিছু ছিলো না। বাবা-মার দেওয়া একটুখানি জায়গাতে কোনমত দিনাতিপাত করতো মা মেয়ে। বাড়ির পাশে হীড বাংলাদেশের ক্ষুদ্রঋণ কর্মসুচির সাপ্তাহিক সভা বসতো
তামেরী বেগম ঋণ কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করেন এবং ১৯৯৪ সালে সদস্য হন। সাপ্তাহিক ২ টাকা হারে সঞ্চয় করেন তিনি পরে ঋণ গ্রহণ করেন। শুরু হয় ঘুরে দাঁড়ানোর গল্প।

তাঁতের সুতো পেচানোর মেশিন ক্রয় করে দৈনিক দেড়-দুই কেজি সুতা পেঁচান ৩৫/৪০ টাকা দৈনিক আয় করেন। কোনমতে মা-মেয়ের দিন চলে যেতো। মেয়েকে হীড বাংলাদেশের সঞ্চিত টাকা থেকে এস এসসি পর্যন্ত লেখাপড়া করিয়েছেন। হীড বাংলাদেশে সঞ্চয় করতেন নিয়মিত এবং ক্রমানয়ে ঋণ গ্রহণ করে সুতো নিজে করে তা পেচিয়ে তাঁতে বিক্রি করতো।

যার আয় এবং তার ভাইদের সহযোগিতায় মেয়ে কে পাশের গ্রামে এক যুবকের সাথে বিয়ে পর্যন্ত দেন। নিজের জীবন আর জীবিকা চলছিলো ঠিকঠাক।

একসময় বয়সের মাপকাঠিতে সে প্রবীণ আর নিয়মের বাধ্যবাধকতায় হীড বাংলাদেশ তামেরী বেগম কে আর ঋণ দিতে পারছে না। এমন কি সদস্য পদ হারিয়েছে তামেরী বেগম। মেয়ে কে কষ্ট দিবে না বলে নিজের বাড়িতে কোনরকম দিনাতিপাত করছে। তামেরী বেগমের বয়স হলেও এখনো তার অনেক সক্ষমতা রয়েছে।
সক্ষমতা থাকলেও অর্থের অভাবে সব কিছুতে প্রতিবন্ধকতা দেখতে পান।

আদমপুর হীড বাংলাদেশ সমৃদ্ধি কর্মসুচির প্রবীণ কার্যক্রমের আওতায় ওয়ার্ড প্রবীণ কমিটির মিটিং এ আসেন তামেরী বেগম এবং একজন সদস্য হন। তিনি মাসিক আলোচনা সভার মাধ্যমে জানতে পারেন যে সক্ষম প্রবীণদের সহনীয় সুদে পিকেএসএফ এর অর্থায়নে হীড বাংলাদেশ ঋন প্রদান করে থাকেন। অনেক আশার আলো নিয়ে আবার তার সুতো পেচানোর মেশিন মেরামত করেন এবং নতুন উদ্যমে আবার আয় করে নিজের জীবিকা নির্বাহ করছেন।

এখনো তিনি ১ কেজি সুতো পেচালে ২০০/ টাকা পান তিনি দৈনিক ২০০-২৫০ টাকা আয় করে নিজের দৈনন্দিক চাহিদা মিটিয়ে নাতনিদের জন্য কিছু নিতে পারেন।এখন প্রবীন বয়সে কারো উপর নির্ভর না করে হীড বাংলাদেশের প্রবীণ ঋণ কে পুজি করে নিজের সক্ষমতা কে কাজে লাগিয়ে সুন্দর ভাবে জীবিকা নির্বাহ করছেন।

তামেরী বেগমের সাফল্য গাঁথা জীবনের গল্প অন্যদের অনেক কাজে লাগবে।