বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ কার্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সিলেট বিভাগের ১৬ পৌরসভার নির্বাচন ডিসেম্বরে : নির্বাচন কমিশনের প্রস্তুতি শুরু




কমলকুঁড়ি রিপোর্ট
সিলেট বিভাগের চার জেলার ১৬ পৌরসভার নির্বাচন আগামী ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত হবে। এ লক্ষে প্রস্তুতি শুরু করেছে নির্বাচন কমিশন। ইতোমধ্যে ১৬ পৌরসভার নির্বাচন, শপথ গ্রহণ ও মেয়াদ উত্তীর্ণের তারিখসহ বিস্তারিত তথ্য সিলেট থেকে ঢাকায় নির্বাচন কমিশনে প্রেরণ করা হয়েছে। চূড়ান্ত করা হয়েছে ভোটার তালিকা।
সিলেটের আঞ্চলিক নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, আগামী জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে পৌরসভার মেয়াদ পূর্ণ হবে। এজন্যে ডিসেম্বরেই নির্বাচন করতে হবে। নির্বাচন কমিশন পৌর নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্যে প্রস্তুতি শুরু করেছে। বর্তমান পরিস্থিতি মাথায় রেখে তারা কাজ করছে। সিলেট বিভাগের ৪ জেলার ১৯ পৌরসভার মধ্যে ১৬ পৌরসভার নির্বাচন করতে পারবে নির্বাচন কমিশন। বাকি ৩ পৌরসভার মধ্যে দু’টিতে মামলাজনিত কারণে ও অন্যটির মেয়াদ উর্ত্তীণের সময় পূর্ণ না হওয়ায় নির্বাচন করা যাবে না।
নির্বাচনযোগ্য ১৬ পৌরসভার মধ্যে আগামী জানুয়ারি মাসে ১টি, ফেব্রুয়ারি মাসে ১৩টি এবং মার্চ মাসে ২টি পৌরসভার পরিষদের ৫ বছর মেয়াদ পূর্ণ হবে। গত রোববার নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সভায় ডিসেম্বরে পৌরসভা নির্বাচনের ভোট গ্রহণের নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর বুধবার সিলেট বিভাগের ১৬ পৌরসভাসহ ২৩৪ পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ওই নির্বাচনে প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীকে মেয়র পদে ভোট যুদ্ধে অবতীর্ণ হন মেয়র প্রার্থীরা। নির্বাচন কমিশন সূত্র জানা যায়, সিলেট জেলার গোলাপগঞ্জ পৌরসভাটি ‘ক’ শ্রেণির। ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর ভোট গ্রহণের পর নির্বাচিতরা শপথ নেন ২০১৬ সালের ৩১ জানুয়ারি। একই দিন তাদের প্রথম সভা হয়। এই পৌরসভার মেয়াদ পূর্ণ হবে আগামী ৩০ জানুয়ারি।মৌলভীবাজার জেলার ‘ক’ শ্রেণির কুলাউড়া পৌরসভার মেয়াদ পূর্ণ হবে আগামী ৩ ফেব্র“য়ারি। ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নির্বাচনে বিজয়ীরা ২০১৬ সালের ৩১ জানুয়ারি শপথ নেন। প্রথম সভা হয় ২০১৬ সালের ৪ ফেব্র“য়ারি। ‘ক’ শ্রেণির মৌলভীবাজার পৌরসভার মেয়াদ পূর্ণ হবে আগামী ১৩ ফেব্র“য়ারি। ভোট গ্রহণ হয় ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর। ২০১৬ সালের ২৭ জানুয়ারি শপথ গ্রহণের পর একই বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি প্রথম সভা হয়।
এছাড়াও ‘খ’ শ্রেণির কমলগঞ্জ পৌরসভার মেয়াদ পূর্ণ হবে আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি। ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনের পর ২০১৬ সালের ২৭ জানুয়ারি বিজয়ীরা শপথ নেন। একই বছরের ৭ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হয় প্রথম সভা। ‘খ’ শ্রেণির বড়লেখা পৌরসভার মেয়াদ পূর্ণ হবে আগামী ২ ফেব্র“য়ারি। ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর ভোট গ্রহণের পর ২০১৬ সালের ২৭ জানুয়ারি বিজয়ীরা শপথ নেন। প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হয় ২০১৬ সালের ৩ ফেব্র“য়ারি।
এদিকে, ২০১৫ সালের পৌর নির্বাচনে সিলেট বিভাগের এই ১৬ পৌরসভায় মেয়র, কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে মোট ৭৭৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন। নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকে ১০ জন, বি.এন.পি’র ধানের শীষ প্রতীকে ৩ জন এবং আওয়ামী লীগের ৩ বিদ্রোহী প্রার্থী মেয়র পদে বিজয়ী হয়েছিলেন।
নির্বাচন কমিশন সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, গতবারের ন্যায় এবারও দলীয় প্রতীকেই মেয়র পদের প্রার্থীরা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। সিলেটের ১৬ পৌরসভার মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার আগেই নির্বাচন অনুষ্ঠানের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এজন্যে প্রস্তুতি চলছে।