বৃহস্পতিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ২ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

আমাদের কমল গঞ্জ !! “এছূয়ে দিল খলইয়ে দিলনা”! – বশীর উদ্দিন আহমদ



পর্যটনের বিপূল সম্ভাবনা থাকা স্বত্বেও শুধুমাত্র যোগাযোগ ও অন্যান পর্যটন সংশ্লিষ্ট অবকাঠামোর অভাবে দেশ ও জাতী দীর্ঘ দিন যাবত বঞ্চিত! আমি এবিষয়ে সদাশয় মান্যবর পর্যটন মন্ত্রী বাহাদূরের কৃপা দৃস্টি কামনা করি! এখানে একটি মিনি পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তুলা কোন রকেট সায়েন্স নয়! যেটুকু জেনেছি পর্য্যটন মন্ত্রী বৃহত্তর সিলেটেরি কৃতি সন্তান! তিনি বিমান মন্ত্রী ও বটে! শমশের নগর বিমান বন্দর চালু এবং সিলেট ওসমানীকে কার্য্যকর ভাবে (বর্ত্মানে নামে মাত্র আন্তর্জাতিক) আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে রূপান্তরের এখনই মোক্ষম সময়! ইহাতে এমপ্লয়মেন্ট বা কর্মসংস্থান সৃস্টির পাশাপাশি বিপুল পরিমাণ রেভিনিউ আয়ের ও সম্ভাবনা রয়েছে! দূর্গ্ম পাহাড়ি অঞ্চল হওয়ায় সহজেই হেলি-রাইডের ব্যবস্থা করা যায়! পাশেই শমশের নগর এয়ার;পোর্ট! প্রয়োজন হামহামে একটি হেলি-প্যাড নির্মান! যেহেতূ পর্য্যটন ও বিমান একই মন্ত্রণায়ের অধীনে সেহেতূ একাজটি একেবারেই অনায়াসে কিম্বা অল্পায়াসে করা যায়! যাকে বলে পানির সহজ বা জলবত তরলং! তেমন কোন অর্থের ও প্রয়োজন নেই! প্রয়োজন শুধু যৎসামান্য মেধা মননশীলতা ও দূর দৃস্টি! আইকিউ! এবিষয়ে ৮ আট বছর আগে থেকেই কথা বার্তা চলছে তবে কতৃপক্ষের কৃপা দৃষ্টি আকৃস্ট হচ্ছেনা! স্থানীয় জেলা-উপ-জেলা প্রশাসনেরও কোন উদ্যোগ পরিলক্ষিত হচ্ছে না! এমতাবস্থায় মন্যবর বিমান ও পর্য্যটন মন্ত্রী বাহাদূরের কাছে আমাদের আবেদন! এখানে একটি মিনি পর্য্যটন কেন্দ্র গড়ে হেলি-রাইড অথাব নিদেন পক্ষে “রজ্জু পথ” (স্কাই লাইন) স্থ;পন করত পর্য্যটন শিল্পের বিকাশ সাধনে অবদান রাখুন! মিল কারখানাই শুধু শিল্প নয় পর্য্যটন একটি ব্যাপক শিল্প! পৃথিবীর বহূ দেশে পর্যটনই বৈদেশিক মূদ্রা আয়ের প্রধান উৎস! পর্যটন পিপাষূরা কোমরে গামছা বেধে গদা হাতে জলপ্রপাত দেখতে যাবে এটা অত্যান্ত পীড়াদায়ক ! হাস্যকরতো বটেই! এতদঞ্চলের নয়নাভিরাম প্রাকৃতিক দৃশ্য বিদেশী পর্যটক আকর্ষনের উপযূক্ত! দরকার শুধু যৎসামান্য দেশ প্রেম ও দূর দৃস্টি সম্পন্ন নেতৃত্ব! আশা করা যায় আমাদের শুভ বুদ্ধির উদয় হবে! দেশবাসীর আশা আকাঙ্ক্ষা পূর্ণতা লাভ করবে! সেই প্রত্যাশায় রইলাম!