বৃহস্পতিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ২ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

গল্প : প্রেমের সুখ : – মনোয়ারা পারভীন




ফোনে কথা হয় রোজই তাদের।কেউ জানেনা কারো পরিচয়।প্রথম পরিচয় টা হয়েছিলো রং ফোন নাম্বারে।এরপর শুরু হয় ফোনালাপ।অবশ্যই নীলা সবুজ কে বার বার নিষেধ করেছিলো।কিন্তু সবুজ কিছুতেই মেনে নেয়নি।

নীলা—-শুনুন! আপনি আমাকে কখনো ফোন দিবেন না?
সবুজ— কেন? এত টুকু পাষাণ হবেন না প্লিজ!

নীলা— কিসের পাষাণ? আমি তো বললাম আপনাকে চিনিনা।তাহলে ফোন দেন কেন?

সবুজ— চিনতে হবেনা।আমি আপনাকে ভালোবেসে ফেলেছি।

এবার বলুন আপনি কি ভালোবাসেন আমায়?
নীলা— কখনো না।আমি কাউকে না জেনে না বুঝ ভালোবাসতে পারবোনা।আপনি অহেতুক আমাকে ডিস্টার্ব করবেন না।

সবুজ—- আমার সাথে কথা না বললে কিভাবে চিনবেন? আমাকে চিনেন,বুঝেন, জানেন।তাতে আমার কোন অসুবিধে নেই।

নীলা– আপনি কিন্তু বেশি বলে যাচ্ছেন।এমন কথা শুনতে আমি প্রস্তুত নই।আপনি ভালোবাসার কথা আমাকে বলবেন না প্লিজ!
সবুজ— ঠিক আছে বলবো না।তবে আপনি কথা দেন রোজ একবার আমাকে ফোন দিবেন?

নীলা— বয়েই গেছে আমার।আমার কি কোন কাজ,কর্ম নেই? আপনাকে ফোন দেবো?

সবুজ—এতোটা কঠোর হবেন না প্লিজ! শুধু একবার।

নীলার মন নরম হয়ে গেলো।কি ভেবে বললো। ঠিক আছে।

এরপর রোজ কথা হয়।ভাল,মন্দ জিজ্ঞেস করা হয়।এরকম কথা বলতে বলতে দু’জন দু’জন কে ভালোবেসে ফেলে।শুরু হয় প্রেমালাপ।

নীলা এক সময় ভয় পেয়ে যায়।এভাবে সবুজ কে ভালোবেসে কথা বলার কোন অর্থই হয়না।নীলার পরিবার সবুজ কে মেনে নিবে কিনা?যদি উভয় পরিবার কেউ কাউকে মেনে না নেয়।তবে কি হবে তাদের পরিণতি?
চাইলে ও সে ঘর ছেড়ে যেতে পারবেনা।সবুজ যদিও তাকে সব জেনে ও গ্রহণ করবে বলেছে।কিন্তু সমাজ,পরিবারের কাছে সে কি জবাব দিবে?

তাই নীলা সবুজ কে ভুলে যাবার চেষ্টা করতে লাগলো। কিন্তু মন থেকে কিছুতেই মুছতে পারছেনা সবুজ কে।সবুজ কে আর ফোন দেয়না,রিসিভ করেনা।এদিকে সবুজ ও অভিমান করে বসে আছে নীলার উপর।নীলা খুব অসুস্থ হয়ে পড়লো। সবুজের জন্য তার মন অস্থির হয়ে আছে।রাগে সবুজ কে ফোন ও দিচ্ছেনা।কেমন ব্যাকুল হয়ে আছে নীলা।

বেশ কয়েক দিন পর সবুজ ফোন দিল।নীলা ধরতে চায়নি।কয়েকবার কল আসার পর কি ভেবে ধরলো।
সবুজ—- হ্যালো! কেমন আছো?

নীলা—- ভালো আছি।

সবুজ—— তুমি আমাকে এভাবে কষ্ট দিতে পারলে?

নীলা—- আমি কষ্ট দিতে চাইনি সবুজ¡!! কষ্ট টা তুমি নিজেই তৈরি করেছো এবং আমাকেও দিচ্ছো।

সবুজ–_— রিয়েলি সরি নীলা!! আমি ভাবতে পারিনি। তুমি এভাবে আমাকে এভয়েড করবে।

নীলা–_—- আমি তোমাকে ভালোবাসি বলেই যে সব ছেড়ে চলে যাবো? সে কথা তুমি ভাবলে কি করে?

সবুজ—- নীলা তোমাকে নিয়ে আমি স্বপ্ন দেখা শুরু করেছিলাম।তোমাকে নিয়ে আমার সুন্দর একটি সাজানো বাগান তৈরী করবো।সে বাগানের ফুল হবে তুমি।আর আমি হবো বাগানের মালি।রোজ বাগানে ফুল কুড়াবো আমি।কত আনন্দ পাবো দুজনেই।
কিন্তু কেন তুমি দূরে সরে যেতে চাইছো? আমি কি তোমার যোগ্য নই? হ্যাঁ,বা,মা কেউ তোমাকে মেনে না নিলে গাছ তলায় তোমাকে নিয়ে থাকবো।তবুও আমি তোমাকে চাই।বলো নীলা! তুমি কি হবেনা আমার? একান্ত আমার হয়ে থাকতে পারবেনা সারাটি জীবন?

নীলা— কিছুই স্থির করতে পারছেনা। তার ভাবনা গুলো এলোমেলো হয়ে যাচ্ছে।সবুজ কে তো পাগলের মতো সে ভালোবাসে।কিন্তু আজ সিদ্ধান্ত নিয়ে গিয়ে নীলা হিমসিম খাচ্ছে।তার মনের মাঝে বেশ কিছু প্রশ্ন তোলপাড় করছে।কোন কূল খুঁজে পাচ্ছেনা।সে মনে মনে ভাবলো,সে সবুজের সাথে দেখা করবে।দেখা না করে কোন সিদ্ধান্ত নেওয়া ঠিক হবেনা।এভাবে অচেনা পথে ফাঁড়ি দেওয়া যাবেনা।
তাই সে সবুজ কে দেখা করার কথা জানালো।বললো আমরা কোথাও একদিন দেখা করি।একে অন্যের মতামত বিনিময় করি।
সবুজ রাজি হলো।সময় ও দিন ঠিক করলো।
তারা দুজনেই অপেক্ষা করছে সে দিনের জন্য।

অবশেষে একদিন তাদের পছন্দ মতো একটি পার্কে দেখা করার সময় ও দিন ঠিক হলো।নীলা সময়ের আগেই গিয়ে উপস্থিত হলো।কিন্তু সবুজ সেদিন আর আসতে অনেক টাই দেরী করে ফেললো।নীলা অপেক্ষা করছে আর বার বার ফোন করছে।দেরীতে হলেও সবুজ উপস্থিত হলো।নীলা রাগে কথা বলতে চাচ্ছেনা।
সবুজ—– সরি নীলা! কান ধরলাম।আর কখনো এমন হবেনা।কথা বলো।আর শুনো কেন দেরী হলো।

নীলা—- কিচ্ছু শুনতে হবেনা।বলো কোথায় যাবে।
সবুজ — চলো আমরা আজই বিয়ে করে ফেলবো।আর এখনই।
এই বলে নীলা আর সবুজ রেজিষ্টার অফিসে গিয়ে বিয়ে করে নেয়।সবুজ বললো এবার চলো আমার এক আত্মিয়ের বাসায় গিয়ে উঠবো।নীলা কে নিয়ে সে বিশাল এক বাড়ির গেটের সামনে দাঁড় করিয়ে বললো।তুমি এখানে দাঁড়াও আমি আসছি।না আসা পর্যন্ত কোথাও যাবেনা।নীলা অনেক ক্ষণ দাঁড়িয়ে আছে। কিন্তু সবুজ আসছেনা।ফোন দিয়েও পাচ্ছেনা।সে কেমন জানি অসস্থি বোধ করছে।
বেশ কিছুক্ষণ পর গেইট দিয়ে একজন ভদ্র লোক বের হলেন।মেয়েটি কে দাঁড়িয়ে দেখতে পেয়ে বললেন।কে তুমি মা?এখানে কি কারো জন্য অপেক্ষা করছো? নীলা কি বলবে ভেবে পাচ্ছেনা।মাথা নেড়ে বললো হ্যাঁ।তারপর ভদ্রলোক কে সব খুলে বললো।ভদ্রলোক সব শুনে বললেন।কত অভদ্র ছেলে এরকম কোন ভালো ছেলের কাজ হতে পারেনা।
তুমি চলো মা আমার ঘরে এসো।আজ থেকে আমার মেয়ে তুমি।আমাদের কোন মেয়ে নেই।তাই তুমি আমাদের এখানেই থাকবে।এই বলে নীলা কে ঘরে নিয়ে গেলেন।গিন্নি কে ডাক দিলেন।
কই গো!! এসোনা। দেখে যাও কে এসেছে?
গিন্নি— আসছি। দাঁড়াও।
ভদ্রলোক— দেখো আজকাল কার ছেলেদের কি কাণ্ড! মেয়ে টিকে অচেনা জায়গায় দাঁড়িয়ে রেখে কই গেছে পাত্তাই নাই।আচ্ছা মা ছেলের বাবার ফোন নাম্বার দাও।আচ্ছা করে বকে দেই।এমন ছেলে জন্মালেন কি করে?
নীলা— সরি! ওর বাবার ফোন নাম্বার নেই।
ভদ্রলোক— তাহলে ছেলের টা দাও?
নীলা ফোন নাম্বার দিলো।কিন্তু ফোন নাম্বার বন্ধ।
কিছুক্ষণ পর দরজায় কে নক করলো।ভদ্রলোক বললেন। যাও মা দরজা খোলো!! যাও,,
নীলা দরজা খুললো।খুলতেই দেখে সবুজ।
সবুজ— সরি! বাবা ও মা আমার দেরী হয়ে গেছে।নীলা হতভম্ব!! একই বলছে সবুজ?
ভদ্রলোক আর ভদ্রমহিলা নীলা কে উদ্দেশ্য করে বললেন।জানো মা,এই ছেলে টা আমাদের। আর আমাদের প্ল্যান মতো তোমাকে এখানে নিয়ে আসা।আর দেরী নয় বলে গিন্নি মিষ্টি ও কিছু গহনা নিয়ে এসে নীলাকে বরণ করে নিলেন #